মঙ্গলবার, ১৬ জানুয়ারী ২০১৮রেজি:/স্মারক - ০৫.৪২.৫১০০.০১৪.৫৫.০৩৭.১২-৫৬২
Menu

দুঃস্বপ্ন আজো ওদের তাড়া করে ফেরে

 দুঃস্বপ্ন আজো ওদের তাড়া করে ফেরে

মঙ্গলবার, ৫ জানুয়ারি ২০১৬
ঝর্ণা মনি : ১৮ জানুয়ারি, ২০১৫। টানা ৪ দিন যন্ত্রণায় ছটফট করে সকাল ১০টায় মারা যান মোহাম্মদ হোসেন মিয়া। নিহত মোহাম্মদ হোসেন মিয়ার স্ত্রী নূরজাহান বেগম (৫০) দৌড়ঝাঁপ করছিলেন ঢাকা মেডিকেলের মর্গের দরজা থেকে বারান্দায়। পাশেই বাবার শোকে অঝোরে কাঁদছিলেন ছেলে নূরুন্নবী হোসেন (১৯)। বারবার জ্ঞান হারাচ্ছিলেন মা-ছেলে। ওই সময় মর্গের ভেতর পেট্রলবোমায় দগ্ধ হোসেন মিয়ার ক্ষতবিক্ষত শরীরটাকে ইঞ্চি ইঞ্চি করে পোস্টমর্টেম করছিলেন ডোমরা। একজন ডোম বলছিলেন, তার (হোসেন মিয়া) শরীরের এমন কোনো জায়গা নেই যেখানে মাংস পচা নেই। মাংস পচে হাড্ডিতে লেগে গেছে। একবছর ধরে এই ভয়ঙ্কর দুঃস্বপ্ন তাড়িয়ে বেড়াচ্ছে নূরজাহান বেগম ও তার ছেলে নুরুন্নবীকে। আওয়ামী লীগ-বিএনপির মুখোমুখি অবস্থান, খালেদা জিয়ার অবরোধ কর্মসূচি, পেট্রলবোমার সহিংস রাজনীতির পৈশাচিক উল্লাসে নরসিংদীর হোসেন মিয়ার মতো চিরবিদায়ের মিছিলে যুক্ত হয় দেড় শতাধিক নিরীহ প্রাণ। আহত হন আরো দুই সহস্রাধিক। যারা ভুলতে পারেননি ভয়ঙ্কর দিনগুলোর কষ্ট। প্রতি মুহ‚র্তে তাড়া করে ফেরে মৃত্যুর ভয়াল থাবা।

ক্যালেন্ডার ঘুরে আজ সেই দুঃস্বপ্নের ৫ জানুয়ারি। যে দিন প্রিয় মাতৃভূমি বাংলাদেশের জন্য খুলে গিয়েছিল নরকের দরজা। টানা ৯২ দিনের অবরোধ আর আগুন সন্ত্রাসে মৃত্যু উপত্যকায় পরিণত হয়েছিল টেকনাফ থেকে তেঁতুলিয়া। ৩ মাসের পেট্রলবোমায় প্রাণ হারিয়েছিলেন ১৪৩ জন। অধিকাংশ পরিবারেই নিহত ব্যক্তিটিই ছিলেন পরিবারের একমাত্র উপার্জনকারী। নিহত মোহাম্মদ হোসেন মিয়ার ছেলে নূরুন্নবী হোসেন জানান, তার বাবার যখন মৃত্যু হয় তখন মায়ের সঙ্গে তিনিও দাঁড়িয়ে ছিলেন। চোখের সামনে পোড়া শরীরের যন্ত্রণায় কাতরাতে কাতরাতে মৃত্যু হয় তার বাবার। এই দৃশ্য আজো তাড়িয়ে বেড়ায় তাকে।

হোসেন মিয়ার স্ত্রী নূরজাহান বেগম জানান, তার স্বামী দিনমজুরের কাজ করতেন। কখনো ছাগল বিক্রি করতেন, কখনো আবার ট্রাকে মালামাল টানতেন। পরিবারের একমাত্র উপার্জনকারী সদস্যকে হারিয়ে এক বছর ধরে অবর্ণনীয় কষ্টে দিন কাটাচ্ছেন তারা।

অগ্নিসন্ত্রাসের চিহ্ন এক বছর ধরে বয়ে বেড়াচ্ছেন ফেনীর ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী মাঈনউদ্দিন (২৮)। গত বছরের ২০ জানুয়ারি মাঈনউদ্দিন সিএনজিতে করে শ্বশুরবাড়ি যাচ্ছিলেন। কিছু দূর যাওয়ার পরেই সিএনজিতে পেট্রলবোমা ছুড়ে দুর্বৃত্তরা। সিএনজির বাকি ৫ জন চলে যান না ফেরার দেশে। মুখ, গলা, বুক, হাতসহ শরীরের ৯ শতাংশ পুড়ে যায় তার। এক বছর পরেও পোড়া জায়গায় জ্বালা-পোড়ার সঙ্গে প্রচুর চুলকানি। সহ্য না করতে পেরে মাঝে মাঝেই কেঁদে ওঠেন তিনি। ১৭ শতাংশ অগ্নিদগ্ধ শরীর নিয়ে দেড় মাস ঢাকা মেডিকেলে ছিলেন ময়মনসিংহের অটোবাইক চালক মো. সিদ্দিকুর রহমান (৪০)। গত বছরের ৫ জানুয়ারি বিকেল ৫টা ১০ মিনিটে জেলা স্কুলের সামনে অটো নিয়ে যাত্রীর জন্য অপেক্ষা করছিলেন তিনি। সেই অপেক্ষাই কাল হয়ে দাঁড়ায় তার জন্য। রাজনৈতিক পৈশাচিকতার আগুনে পুড়ে যায় মুখ, গলা, হাত। আজো মাঝে মাঝে ঘুম ভেঙে গেলে ভয়ে গলা শুকিয়ে আসে সিদ্দিকুর রহমানের। মনে হয় এই বুঝি আগুন লাগিয়ে দিল কেউ। ৫ জানুয়ারির রাজনৈতিক সহিংসতার পেট্রলবোমার আগুনে ঝলসে গেল গৃহবধূ রাশেদার সুখ। রাশেদা জানান, গাজীপুরের বড়াইতলা এলাকায় বাসে পেট্রল ছোড়ে দুর্বৃত্তরা। আগুন ধরে যাওয়ার পর জানালা ভেঙে দ্রুত নামার চেষ্টা করেন তার স্বামী রশিদ মোল্লা। নামার আগেই রশিদের শরীরে আগুন ধরে যায়। লাফিয়ে পড়ে ভাঙেন পায়ের গোড়ালি। রশিদ মোল্লার স্ত্রী রাশেদা আক্তার কান্নায় ভেঙে পড়ে বলেন, নিজের এক টুকরো জমিও নেই। কালিয়াকৈরের চন্দা এলাকার নাজিমুদ্দিন মাস্টারের বাড়ির এক কোণায় বাঁশ-খড় দিয়া একটা ঘর তুইলা কোনো রকম বাঁইচা আছি। অন্যের জায়গায় থাকলেও স্বামী-পোলাপান নিয়া সুখেই ছিলাম। আমার এই সুখটাও কাইড়া নিল।

অবশ্য ৫ জানুয়ারির সহিংসতা নিয়ে শুরু থেকেই খালেদা জিয়া ও বিএনপি-জামায়াতকে দায়ী করে আসছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ ও তার শরিকরা। আওয়ামী লীগ প্রধান শেখ হাসিনা একাধিক জনসভায় এ জন্য বিএনপি চেয়ারপারসন কে দায়ী করে তাকে বিচারের কাঠগড়ায় দাঁড় করানোর কথাও বলেছেন। অন্যদিকে চলতি বছর ৫ জানুয়ারি ঘিরে কোনো ধরনের বিশৃঙ্খলা ও সহিংসতা করা হলে বিএনপি-জামায়াতকে আর ছাড় দেয়া হবে না বলে কঠোর হুঁশিয়ারি করেছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ। এ বিষয়ে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল-আলম হানিফ বলেন, আজ বিএনপি রাজনৈতিক কর্মসূচির নামে কোনো ধরনের সন্ত্রাস ও নাশকতা করলে জনগণকে সঙ্গে নিয়ে আওয়ামী লীগ তার কঠোর জবাব দেবে। তিনি বলেন, বিএনপি-জামায়াত গণতন্ত্র হত্যার জন্য অনেক নাশকতা ও সন্ত্রাস করেছে। জনগণ তার সমুচিত জবাব দিয়েছে।

আর্কাইভ