মঙ্গলবার, ১৬ জানুয়ারী ২০১৮রেজি:/স্মারক - ০৫.৪২.৫১০০.০১৪.৫৫.০৩৭.১২-৫৬২
Menu

রামগতিতে ডাকাতদের অপহৃত ২ নাবিক উদ্ধার

রামগতিতে ডাকাতদের অপহৃত ২ নাবিক উদ্ধার

শনিবার ২৬ ডিসেম্বর ২০১৫
বার্তা সম্পাদক: লক্ষ্মীপুরের রামগতিতে মুক্তিপণের দাবীতে অপহৃত লাইটার জাহাজের ২ নাবিককে উদ্ধার করেছে রামগতি থানা পুলিশ।

জানাযায় গত ২৪ ডিসেম্বর রাত ৯.৩০ ঘটিকার সময় মেঘনা নদীর টাংকি মাছ ঘাট এলাকায় মেঘনা নদীর অদূরবর্তী স্থানে এ্যাকর করা মালবাহী কার্গো এমভি বিউটি অব ভাগ্যকূল থেকে জাহাজের মাষ্টার বরগুনা জেলার আমতলী থানার আঠার গাছিয়া গ্রামের সিরাজ তালুকদারের ছেলে কামরুল ইসলাম ও একই জাহাজের চুকানী নড়াইল জেলার লোহাগাড়া থানার নোয়াপাড়া গ্রামের সহিদ মোল্লার ছেলে জসিমকে অপহরণ করে ১০ থেকে ১৫ জনের অস্রধারী জলদস্যুদল। অপহরণ কালে জাহাজের ১২জন স্টাফকে বেদম মারধর করে তাদের কাছে থাকা ৩৪ হাজার টাকা ও ১৩টি মোবাইল সেট নিয়া যায় জলদস্যুরা।

এমভি বিউটি অব ভাগ্যকূল লাইটার জাহাজটি খুলনা থেকে ফ্লাইঅ্যাশ ও নির্ঝর -০১ জাহাজটি একই জায়গা থেকে কয়লা নিয়ে চট্রগ্রাম যাওয়ার সময় নদীর ভাটার কারণে টাংকির মাছ ঘাট এলাকায় এ্যাংকর করা ছিলো।

রামগতি থানা পুলিশ নাবিকদের উদ্ধারে ব্যাপক অভিযান পরিচালনা করেন।
রামগতি থানা অফিসার্স ইনচার্জ (ওসি) মোঃ ইকবাল হোসেন, পুলিশ পরিদর্শক(তদন্ত) মোহাম্মদ মিজানুর রহমান ও সঙ্গীয় ফোর্স সহ গত ২৫ ডিসেম্বর দিবাগত রাত ১.৩০ টার দিকে চর গাজী ইউনিয়নের টুমচর, বয়ারচর এলাকায় অভিযান পরিচালনা করেন।

এসময় পুলিশের সন্দেহভাজন জলদস্যু সর্দার বাদশা আলম ওরপে বাসু ডাকাতের স্ত্রী পান্না বেগম (২৭), বাসুর ভাই আবদুল করিম এবং জলদস্যু জাবেরের স্ত্রী কোহিনুর বেগম (২৬) দেরকে আটক করে তাদের মাধ্যমে জলদস্যুদের সাথে যোগাযোগ ও চাপ প্রয়োগ করিলে জলদস্যুরা কৌশলে মুক্তিপণের জন্য অপহৃত নাবিকদের রামগতি বাজারের অনুমান ১ কিঃ মিঃ দক্ষিণ পূর্ব দিকে রাস্তার উপর মোটর সাইকেল যোগে এনে দিয়ে যায়।

পুলিশ তাদের উদ্ধার করে রামগতি থানা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রাথমিক চিকিৎসা প্রধান করেন।

এ ব্যাপারে রামগতি থানা অফিসার ইনচার্জ মোঃ ইকবাল হোসেন জানান সন্দিগ্ধ জলদস্যুদের চিহিৃত করা হয়েছে। প্রাথমিক ভাবে ধারনা করা হচ্ছে এই ঘটনায় রামগতি চিহ্নিত  জলদস্যু বাদশা ডাকাত, খলিল ডাকাত, জাবেদ ডাকাত ও সাইফুল্যাহ ডাকাত গ্যাং গণ জড়িত।

উদ্ধার হওয়া নাবিকেরা জানান ২টি রাইফেল, ১টি র্শটগান, ২টি রিভলবার এবং বেশ কিছু চেনি ও রামদা সহ ১০ থেকে ১৫ জনের অস্ত্র সজ্জ্বিত ডাকাতদল আমাদের উপর হামলা করে অপহরণ করে নিয়ে যায়।
এসময় তারা আমাদের পরিবারের কাছ থেকে ৫ লক্ষ টাকা মুক্তিপন দাবি করে। অপহৃত কামরুল জানান ডাকাতদল আমার স্ত্রীর কাছ থেকে মুক্তিপন বাবদ বিকাশের মাধ্যমে ১৫ হাজার টাকা নেয়।

এব্যাপারে রামগতি থানায় উল্লেখিত ডাকাতদের আসামী করে একটি মামলা রজু করা হয়েছে। যার নং-০৬, তাং- ২৫/১২/২০১৫ইং, ধারা ৩২৩/৩৮০/৩৬৪/৫০৬/৩৪ দন্ডবিধি।

সচেতন মহলের দাবী অনতিবিলম্বে যৌথ অভিযানের মাধ্যমে এ সমস্ত ডাকাত ও তাদের গডফাদারদের চিহ্নিত করে আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দেওয়া হোক।


আর্কাইভ