মঙ্গলবার, ১৬ জানুয়ারী ২০১৮রেজি:/স্মারক - ০৫.৪২.৫১০০.০১৪.৫৫.০৩৭.১২-৫৬২
Menu

কলঙ্কিত জেলহত্যা দিবস আজ : চার নেতাকে স্মরণ করবে জাতি

কলঙ্কিত জেলহত্যা দিবস আজ : চার নেতাকে স্মরণ করবে জাতি

মঙ্গলবার, ৩ নভেম্বর ২০১৫
ঝর্ণা মনি : আজ ৩ নভেম্বর। শোকাবহ জেলহত্যা দিবস। সভ্যতার ইতিহাসে বেদনাময় এক কলঙ্কিত দিন। বাঙালি জাতিকে নেতৃত্ব শূন্য করতে ৪০ বছর আগে ১৯৭৫ সালের ৩ নভেম্বর মধ্যরাতে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের নিভৃত প্রকোষ্ঠে বন্দি মহান মুক্তিযুদ্ধের চার সিপাহসালার ও জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঘনিষ্ঠ সহচর জাতীয় চারনেতা সৈয়দ নজরুল ইসলাম, তাজউদ্দিন আহমেদ, ক্যাপ্টেন এম মনসুর আলী এবং আবু হেনা মোহাম্মদ কামরুজ্জামানকে নিষ্ঠুরভাবে হত্যা করা হয়। স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধের শত্রুরা সেদিন দেশ মাতৃকার সেরা সন্তান এই জাতীয় চারনেতাকে শুধু গুলি চালিয়েই ক্ষান্ত হয়নি, কাপুরুষের মতো গুলিবিদ্ধ দেহকে বেয়নেট দিয়ে খুঁচিয়ে খুঁচিয়ে ক্ষত-বিক্ষত করে ’৭১-র পরাজয়ের জ্বালা মিটিয়েছিল। কারাগারের নিরাপদ আশ্রয়ে থাকা অবস্থায় এ ধরনের বর্বরোচিত হত্যাকাণ্ড পৃথিবীর ইতিহাসে বিরল। এই নিষ্ঠুর হত্যাযজ্ঞের ঘটনায় শুধু বাংলাদেশের মানুষই নয়, স্তম্ভিত হয়েছিল বিশ্ব। কলঙ্কিত জেলহত্যা দিবসে আজ মহান চার নেতাকে শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করবে জাতি। ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগও সমগ্র জাতির সঙ্গে একাত্ম হয়ে যথাযোগ্য মর্যাদা ও ভাবগাম্ভীর্যের সঙ্গে শোকাবহ এ দিবসটিকে স্মরণ ও পালন করবে। দিবসটি উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ এডভোকেট ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পৃথক পৃথক বাণীতে শোককে শক্তিতে পরিণত করে বঙ্গবন্ধু ও জাতীয় চার নেতার আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে সোনার বাংলা গড়ার অঙ্গীকার করেছেন।

বঙ্গববন্ধু ও জাতীয় চারনেতার হত্যাকাণ্ড ছিল একই ষড়যন্ত্রের ধারাবাহিকতা। বিশ্বাসঘাতক খুনিদের পরিকল্পনা, উদ্দেশ্য আজ জাতির সামনে পরিষ্কার। মিথ্যা কুয়াশার ধ‚ম্রজাল ছিন্ন করে আজ নতুন সূর্যের আলোর মতো প্রকাশিত হয়েছে সত্য; মূলত, হত্যাকারীরা এবং তাদের সহযোগীরা চেয়েছিল পাকিস্তান ভাঙার প্রতিশোধ নিতে, রক্তক্ষয়ী মুক্তিযুদ্ধ ও অপরিসীম ত্যাগের বিনিময়ে স্বাধীনতা অর্জনকারী দেশটিকে হত্যা, ক্যু ও ষড়যন্ত্রের রাজনীতির আবর্তে নিক্ষেপ করতে। তাদের উদ্দেশ্য ছিল পুনর্গঠন ও গণতান্ত্রিকতার পথ থেকে সদ্য স্বাধীন সার্বভৌম দেশটিকে বিচ্যুত করা।

এখানেই শেষ হয়নি স্বাধীনতার শত্রুদের ষড়যন্ত্র। ’৭৫-র পর থেকে বছরের পর বছর বঙ্গবন্ধুর নাম-নিশানা মুছে ফেলার চেষ্টা করেছে। তবে ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে এবং ৩ নভেম্বর ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে জাতীয় চারনেতাকে নিষ্ঠুরভাবে হত্যার মাধ্যমে স্বাধীনতার পরাজিত প্রতিক্রিয়াশীল শক্তি হত্যা, ক্যু ও ষড়যন্ত্রের রাজনীতির মধ্য দিয়ে মুক্তিযুদ্ধের মহতী অর্জন স্বাধীনতা, গণতন্ত্র, প্রগতি, মানবাধিকার, সংস্কৃতি, উন্নয়ন ও অগ্রগতিকে নস্যাৎ করতে চেয়েছিল; কিন্তু ষড়যন্ত্রকারী অন্ধকারের শক্তি সফলকাম হতে পারেনি। ইতিহাসের পথকে যারা দুর্গম ও দুর্লঙ্ঘ্য করে দিতে চেয়েছিল সংগ্রামী বাঙালি জাতি তা ব্যর্থ করে দিয়েছে।

পেছন ফিরে দেখা : পনেরই আগস্টের নির্মম হত্যাকাণ্ডের পর মুক্তিযুদ্ধের চার বীর সেনানীকে কেন্দ্রীয় কারাগারে পাঠানো হয়। বঙ্গবন্ধুর মন্ত্রিসভার সবচাইতে ঘৃণিত বিশ্বাসঘাতক সদস্য হিসেবে পরিচিত এবং তৎকালীন স্বঘোষিত রাষ্ট্রপতি খন্দকার মোশতাক আহমদের প্ররোচণায় এক শ্রেণির উচ্চাভিলাসী মধ্যম সারির জুনিয়র সেনা কর্মকর্তারা এ নির্মম হত্যাকাণ্ড ঘটায়। মুক্তিযুদ্ধকালীন বাংলাদেশ সরকারের মুজিবনগর সরকারের সমধিক পরিচিত প্রধানমন্ত্রী হিসেবে তাজউদ্দিন আহমেদ একটি স্বাধীন বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠায় কোটি কোটি বাঙালির স্বাধীনতার স্বপ্ন পূরণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন। বঙ্গবন্ধুর অপর ঘনিষ্ঠ সহযোগী সৈয়দ নজরুল ইসলাম, এএইচএম কামরুজ্জামান ও ক্যাপ্টেন মনসুর আলী আধুনিক অস্ত্রশস্ত্রে সজ্জিত পাকিস্তানি বাহিনীর বিরুদ্ধে গেরিলা যুদ্ধ পরিচালনার ক্ষেত্রে নীতি ও কৌশল নির্ধারণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন। বঙ্গবন্ধুর এই চার সহযোগীকে নিয়ে খুনি মোশতাক-জিয়ার অনেক ভয় ছিল। এছাড়া এদেশ যাতে কোনোদিন স্বাধীনতার সপক্ষের শক্তি মাথাচাড়া দিয়ে উঠতে না পারে সে জন্য পৃথিবীর সবচেয়ে নিরাপদ স্থান জেলখানার অভ্যন্তরে জাতীয় চারনেতাকে হত্যা করা হয়।

’৭৫ এর পট পরিবর্তনে মোশতাক ক্ষমতায় ছিলেন মাত্র ৮২ দিন। এর মধ্যে দেশকে পাকিস্তানিকরণের দিকে এগিয়ে নেয়া ছাড়া তার সবচেয়ে বড় দুটি কীর্তি হলো জেলে জাতীয় চার নেতাকে খুন এবং ১৫ আগস্টের খুনিদের বিচার করা যাবে না- দায়মুক্তির অধ্যাদেশ জারি করা। পঁচাত্তরের ২৬ সেপ্টেম্বর তিনি এই অধ্যাদেশ জারি করেন। আর জেলে নির্মম হত্যাকাণ্ড ঘটান ৩ নভেম্বর ভোর রাতে।

রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর বাণী : জেলহত্যা দিবস উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ তার বাণীতে বলেছেন, স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্বকে বিপন্ন ও জাতিকে নেতৃত্বহীন করার লক্ষ্যে জাতির পিতাকে হত্যার ধারাবাহিকতায় স্বাধীনতাবিরোধী শক্তি জাতীয় চারনেতাকে নির্মমভাবে হত্যা করে। মহান মুক্তিযুদ্ধে জাতীয় চারনেতার অবদানের কথা স্মরণ করে আবদুল হামিদ বলেন, বঙ্গবন্ধু পাকিস্তান কারাগারে বন্দি থাকা অবস্থায় তার অবর্তমানে ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধচলাকালীন মুজিবনগর সরকার গঠন, রণনীতি ও রণকৌশল প্রণয়ন, প্রশাসনিক কর্মকাণ্ড ও মুক্তিযুদ্ধ পরিচালনা, ক‚টনৈতিক তৎপরতা, শরণার্থীদের তদারকিসহ মুক্তিযুদ্ধকে জনযুদ্ধে পরিণত করতে জাতীয় চারনেতা অসামান্য অবদান রাখেন। জাতি তাদের চিরদিন শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার বাণীতে বলেন, মানবতা ও গণতন্ত্রের ইতিহাসে ৩ নভেম্বর একটি কলঙ্কিত দিন। দেশের উন্নয়নকে বাধাগ্রস্ত করতে গণতন্ত্র ও স্বাধীনতাবিরোধী অপশক্তি এখনো হীনচক্রান্তে লিপ্ত রয়েছে উল্লেখ করে এই সংঘবদ্ধ অপশক্তির দেশবিরোধী ও দেশের উন্নয়নবিরোধী চক্রান্ত নস্যাৎ করতে তিনি সবাইকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী।

আওয়ামী লীগের কর্মসূচি : সকাল সাড়ে ৬টায় বঙ্গবন্ধু ভবন ও দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়সহ দেশের সর্বত্র সংগঠনের শাখা কার্যালয়ে জাতীয় ও দলীয় পতাকা অর্ধনমিতকরণ, কালো পতাকা উত্তোলন এবং কালো ব্যাজ ধারণ। সকাল ৭টায় বঙ্গবন্ধু ভবনে জমায়েত এবং জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ। সকাল সাড়ে ৭টায় বনানী কবরস্থানে ১৫ আগস্টের শহীদ ও জাতীয় নেতাদের কবরে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ, ফাতেহা পাঠ, মিলাদ মাহফিল ও মোনাজাত। রাজশাহীতে জাতীয় নেতা শহীদ কামরুজ্জামানের কবরে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ, ফাতেহা পাঠ, মিলাদ মাহফিল ও মোনাজাত।

সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের আহ্বান : আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম যথাযোগ্য মর্যাদা ও ভাবগম্ভীর পরিবেশে জেলহত্যা দিবস পালনের জন্য আওয়ামী লীগের সব শাখা ও সহযোগী এবং ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনের সব শাখার নেতাকর্মী-সমর্থক, শুভানুধ্যায়ীদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

আর্কাইভ