মঙ্গলবার, ১৬ জানুয়ারী ২০১৮রেজি:/স্মারক - ০৫.৪২.৫১০০.০১৪.৫৫.০৩৭.১২-৫৬২
Menu

দলীয় প্রতীকেই স্থানীয় সরকার নির্বাচন

দলীয় প্রতীকেই স্থানীয় সরকার নির্বাচন

রবিবার, ১১ অক্টোবর ২০১৫
এন রায় রাজা, ঢাকা থেকে: রাজনৈতিক পরিচয়ে দলীয় প্রতীকে অনুষ্ঠিত হবে স্থানীয় সরকারের নির্বাচন। এর অংশ হিসেবে আগামী ডিসেম্বরে অনুষ্ঠেয় পৌরসভা নির্বাচন দলীয় প্রতীকে হচ্ছে। এলক্ষ্যে আইন সংশোধনের প্রক্রিয়া শুরু করেছে সরকার। আগামীকাল সোমবার মন্ত্রিসভার বৈঠকে এ সংক্রান্ত একটি অধ্যাদেশ উত্থাপিত হবে। সংশোধনীটি অধ্যাদেশ আকারে জারি হতে পারে। এরপর অধ্যাদেশটি নভেম্বরের প্রথম সপ্তাহে শুরু হওয়া জাতীয় সংসদ অধিবেশনে আইন আকারে পাস হবে। স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায়মন্ত্রী খন্দকার মোশাররফ হোসেন এ তথ্য জানিয়েছেন।

খন্দকার মোশাররফ হোসেন মাসিক সাম্প্রতিক স্বদেশকে বলেন, এবার থেকে যেসব স্থানীয় সরকার নির্বাচন অর্থাৎ সিটি কর্পোরেশন, জেলা পরিষদ, উপজেলা পরিষদ, পৌরসভা এবং ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন হবে সেগুলো সবই দলীয়ভাবে হবে। অর্থাৎ এখানে প্রার্থীরা দলীয়ভাবে দলীয় প্রতীকে লড়বেন। শুধু মেয়র-চেয়ারম্যান বা ভাইস চেয়ারম্যানরাই নন, দলীয় প্রার্থী হলে মেম্বার বা কাউন্সিলররাও দলীয় প্রতীকে লড়বেন।

তিনি বলেন, বর্তমান সরকার দীর্ঘদিন ধরে চাচ্ছে স্থানীয় সরকার নির্বাচন দলীয়ভাবে হোক। কেননা, যে কোনো স্থানীয় নির্বাচনে দলের প্রভাব পড়ে এবং নির্বাচনটি মূলত দলীয়ভাবেই হয়। সে কারণে আমরা এ বিষয়ে গত সোমবার কেবিনেটে আলোচনা করেছি। প্রধানমন্ত্রী এটিতে তার সম্মতির কথা জানিয়েছেন। তিনি এটিকে আইনে পরিণত করতে যা কিছু করা লাগে তা দ্রুত সম্পন্ন করার নির্দেশনা দিয়েছেন। সে হিসেবে আগামীকাল মন্ত্রিসভার মিটিংয়ে এ-সংক্রান্ত অধ্যাদেশটি উপস্থাপন করা হবে এবং সবচেয়ে প্রাধান্য দিয়ে এ বিষয়টি আলোচনা হবে, আর পাসও হবে। এরপরে অর্ডিন্যান্সটি আইনে পরিণত করতে আমরা জাতীয় সংসদের অষ্টম অধিবেশনের প্রথম দিনে উত্থাপন করব এবং পাস করাব। (অষ্টম অধিবেশন বসতে পারে নভেম্বরের প্রথম সপ্তাহে)। তারপরে এটি রাষ্ট্রপতির কাছে পাঠানো হলে তার সম্মতিক্রমে এটি আইনে পরিণত হবে বলে জানান তিনি। সুতরাং এটি করতে মাত্র ২০-২৫ দিন সময় লাগতে পারে। সে ক্ষেত্রে আগামী ডিসেম্বর বা জানুয়ারিতে পৌরসভা নির্বাচন দলীয়ভাবে করতে নির্বাচন কমিশনকে আমরা অনুরোধ করব এবং তারা আইনের বলে স্থানীয় সরকার নির্বাচন দলীয়ভাবে অনুষ্ঠিত করবে।

খন্দকার মোশাররফ আরো বলেন, আগামীকাল মন্ত্রিসভায় এ-সংক্রান্ত অধ্যাদেশটি অনুমোদন হলে আমরা এ বিষয়ে আগেভাগেই নির্বাচন কমিশনকে জানিয়ে রাখতেও পারি এবং সে অনুযায়ী তাদের প্রস্তুত হওয়ার জন্য বলতে পারি। সে ক্ষেত্রে নির্বাচন দলীয়ভাবে করতে আর কোনো বাধা বা অসুবিধা হবে বলে মনে হয় না। তিনি বলেন, পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে স্থানীয় সরকার নির্বাচন দলীয়ভাবেই হয়। সেখানে স্থানীয় সরকার অনেক বেশি শক্তিশালীভাবে চলছে। সুতরাং আমাদের দেশে এটি হলে স্থানীয় সরকার আরো শক্তিশালী হবে।

এদিকে জাতীয় সংসদের অষ্টম অধিবেশন আগামী নভেম্বর মাসের প্রথম সপ্তাহে বসতে পারে বলে জানান, জাতীয় সংসদের গণসংযোগ বিভাগের প্রধান এস এম মঞ্জুর। সুতরাং এ নির্বাচন কমিশনের এরই অংশ হিসেবে স্থানীয় সরকার নির্বাচন আইন সংশোধন করার ব্যাপারে খুব একটা সময়ক্ষেপণ হবে তা বলা যাবে না।

আবার এ বিষয়ে নির্বাচন কমিশনার আবদুল মোবারক বলেন, তফসিল ঘোষণার মাত্র ১০ মিনিট আগে যদি আমাদের আইন সংশোধনের বিষয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে জানানো হয় তাহলে আমরা স্থানীয় সরকার নির্বাচন দলীয়ভাবে, দলীয় প্রতীকে করতে পারব। সে ক্ষেত্রে আমাদের কোনো সমস্যা হবে না। কেননা, আমরা আগামী ডিসেম্বর বেশ কয়েকটি পৌরসভা নির্বাচন করার জন্য তফসিল ঘোষণা করব। সে ক্ষেত্রে এসব পৌরসভার মেয়াদ উত্তীর্ণ হবে। এখানে মেয়াদোত্তীর্ণের ৯০ দিনের মধ্যে নির্বাচন করাটা আমাদের বাধ্যবাধকতার মধ্যে পড়ে।

তিনি বলেন, তবে সরকার এ বিষয়ে আমাদের কোনো মতামত গ্রহণ করেনি। এটি করলে আরো ভালো হতো। আমাদের কোনো সুপারিশ নিলে আইনটি আরো ভালো হতো।

তিনি বলেন, আমরা এর আগে অতি অল্প সময়ের মধ্যে নির্বাচন করেছি। গত ৫ জানুয়ারির জাতীয় নির্বাচন জ্বালাও-পোড়াওয়ের মধ্যেও সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করেছি। ইসি যে কোনো পরিস্থিতিতে নির্বাচন করতে পারবে।

আবদুল মোবারক আরো বলেন, সরকার যদি স্থানীয় সরকার নির্বাচন দলীয়ভাবে করতে চায় তাহলে সাংবিধানিক সংস্থা হিসেবে আমাদের কোনো বাধা দেয়া বা না করার অজুহাত দেয়ার অবকাশ নেই। স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় এ বিষয়ে মন্ত্রিসভায় ও জাতীয় সংসদে পাস হওয়ার আইনের অনুলিপি প্রজ্ঞাপণ আকারে আমাদের পাঠালে আমরা সে অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণ করব। যেহেতু আগামী ডিসেম্বরে পৌরসভা নির্বাচন করার জন্য আমাদের প্রস্তুতি নিতেই হচ্ছে। তাই সেটি দলীয়ভাবে করতে আমাদের আলাদা কোনো ঝামেলা পোহাতে হবে না। তার ওপরে দেশে কোনো নির্বাচন দলীয় সমর্থন ছাড়া হয় না বা সরাসরি দলীয় প্রতীক ব্যবহার না হলেও প্রতিটি নির্বাচনে দলের প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষ প্রভাব রয়েছে। তাই নির্বাচন দলীয় হোক বা নির্দলীয় হোক তা অনুষ্ঠিত করতে ইসির কোনো সমস্যা হওয়ার কথা নয়।

তবে ব্যালট পেপারে দলীয় প্রতীক ছাপাতে হবে এবং স্থানীয় সরকার নির্বাচনগুলোর প্রতীক নিয়ে আমাদের আবারো বসতে হবে। পুনঃপ্রতীক নির্বাচন করতে হবে। তাছাড়া সব বিষয়টি তো একই।

তবে তফসিল ঘোষণার আগে যদি এ-সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপণ পাওয়া যায় তাহলে ভালো হবে। কোনো জটিলতা ছাড়াই নির্বাচন অনুষ্ঠিত করা সম্ভব হবে। আর যদি তফসিল ঘোষণার পরে এ বিষয়ে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় আমাদের অবগত করে তাহলে কিছুটা জটিলতা থেকে যাবে বলে মন্তব্য করেন তিনি।

তবে পৌরসভাগুলোর মধ্যে কিছুসংখ্যক পৌরসভার নির্বাচন ডিসেম্বরের মধ্যে আবার ইউনিয়ন পরিষদের একাংশের নির্বাচন আগামী মার্চের মধ্যে করতে হবে। তাই সে ক্ষেত্রে সময়মতো নির্বাচন করতে ইসির বাধ্যবাধকতা রয়েছে। আশাকরি স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় বিষয়গুলো মাথায় রেখে সময়মতো বা আগেভাগেই সংশোধিত আকারে আইনটি আমাদের আনুষ্ঠানিকভাবে জানাবেন। যাতে করে কোনো ধরনের জটিলতা না হয়।

এদিকে স্থানীয় সরকার নির্বাচন আইন সংশোধন অর্থাৎ স্থানীয় সরকার নির্বাচন দলীয়ভাবে অনুষ্ঠিত করার বিষয়ে আইন পাস কবে নাগাদ হতে পারে এমন প্রশ্নের জবাবে আইন ও সংসদবিষয়কমন্ত্রী আনিসুল হক বলেন, এটি করতে কত দিন লাগবে তা জানি না। তবে এটি আগে মন্ত্রিসভায় তুলতে হবে এবং পাসও করাতে হবে। পরে জাতীয় সংসদে ভোটে এটি আইনে রূপ নেবে। এ প্রক্রিয়াটি সম্পন্ন করতে সময় লাগবে। তবে কবে নাগাদ সম্পন্ন হবে তা স্থানীয় সরকারমন্ত্রী ভালো বলতে পারবেন বলে জানান তিনি।

উল্লেখ্য, বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকারের দ্বিতীয় মেয়াদে স্থানীয় সরকার নির্বাচন দলীয়ভাবে করার দাবি জানায়। বিশেষ করে প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা এবং আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম প্রকাশ্যেই স্থানীয় সরকার নির্বাচন দলীয়ভাবে করার ওপর জোর দেন।

জানা গেছে, আসন্ন মন্ত্রিসভার বৈঠকে উত্থাপনের জন্য স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের সচিব আবদুল মালেক স্বাক্ষরিত সংশোধনীর সার-সংক্ষেপটি গত সোমবার মন্ত্রিসভায় পাঠানো হয়। এর পরে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে এটি অধ্যাদেশ আকারে চূড়ান্তভাবে অনুমোদনের জন্য আগামীকাল অনুষ্ঠেয় মন্ত্রিসভায় উত্থাপন করা হবে।

মন্ত্রিসভায় পাঠানো সার-সংক্ষেপে বলা হয়েছে, বাংলাদেশে সুদীর্ঘকাল থেকে স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানগুলো তৃণমূল পর্যায় থেকে সর্বস্তরের জনগণের সেবা প্রদান করে আসছে। স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানগুলো উৎসবমুখর পরিবেশে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়ে থাকে। দেশে বর্তমানে ৫ স্তরের স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠান বিদ্যমান। এগুলোর মধ্যে সিটি কর্পোরেশন, জেলা পরিষদ, উপজেলা পরিষদ, পৌরসভা এবং ইউনিয়ন পরিষদ।

এসব প্রতিষ্ঠান সরাসরি ভোটে নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি দ্বারা পরিচালিত। এসব প্রতিষ্ঠানে নির্দলীয়ভাবে নির্বাচন হলেও বাস্তবে প্রত্যেকটি রাজনৈতিক দল প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে নির্বাচনে দলীয় ব্যক্তিকে প্রার্থী হিসেবে সমর্থন দিয়ে থাকে। এ ছাড়া বিপুলসংখ্যক ব্যক্তিস্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশ নিয়ে থাকেন।

জনগণ ও প্রতিনিধিদের পক্ষ থেকে রাজনৈতিক দলের সরাসরি অংশগ্রহণে নির্বাচনগুলো সম্পন্ন করার দাবি উত্থাপিত হয়ে আসছে।

জনগণের এই গণতান্ত্রিক প্রত্যাশার প্রতি গুরুত্ব প্রদান করে রাজনৈতিক দলগুলোর সরাসরি অংশগ্রহণের মাধ্যমে স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানগুলোর নির্বাচন অনুষ্ঠিত হলে দলীয় প্রার্থীরা নির্বাচনে অংশ নেয়ার সুযোগ পাবেন। মনোনয়ন থেকে শুরু করে নির্বাচনী প্রচার সবই হচ্ছে দলীয়ভাবে। সম্প্রতি ঢাকা ও চট্টগ্রামে তিন সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের সময়ও দলীয়ভাবে নির্বাচন করার জোরালো দাবি ওঠে।

শেষ পর্যন্ত জনমতের প্রতি শ্রদ্ধা দেখিয়ে বর্তমান সরকার আপাতত স্থানীয় সরকার নির্বাচনের অন্যতম স্তর পৌরসভা, ইউনিয়ন পরিষদ এবং জেলা পরিষদ নির্বাচন দলীয়ভাবে করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করতে যাচ্ছে। এরই অংশ হিসেবে স্থানীয় সরকার আইন সংশোধন করার উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। পরে উপজেলা পরিষদ ও সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনও দলীয়ভাবে হবে।

এতে প্রার্থীদের দায়বদ্ধতা বৃদ্ধি পাবে এবং তাদের রাজনৈতিক অঙ্গীকার প্রতিফলনের সুযোগ সৃষ্টি হবে। উপরন্তু ওই প্রার্থীরা নির্বাচিত হলে জনগণকে আরো বেশি সেবা প্রদানে তৎপর থাকবেন। এ ক্ষেত্রে তাকে মনোনয়ন প্রদানকারী রাজনৈতিক দল তাদের নীতি ও আর্দশ বাস্তবায়নে এবং জনস্বার্থ প্রতিপালনে তার কর্মকাণ্ড নজরদারিতে রাখতে পারবে।

আবার এ আইনের মাধ্যমে সরকার স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানগুলোতে রাজনৈতিক বিবেচনায় নির্বাচনের উদ্যোগ নেয়ায় ভবিষ্যতে দলীয়ভাবে প্রার্থী মনোনয়ন, দলীয় ব্যানারে নির্বাচনী প্রচার চালানো এবং দলীয় প্রতীকে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। এ জন্য আইনের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে নির্বাচন পরিচালনা বিধিমালা ও আচরণ বিধিমালায় সংশোধনী আনা হচ্ছে। আর এরই আলোকে আগামী ডিসেম্বরে অনুষ্ঠেয় পৌরসভা নির্বাচন ও মার্চে অনুষ্ঠেয় ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে প্রথমবারের মতো ভোটাররা দলীয় প্রতীক অর্থাৎ নৌকা, ধানের শিষসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের প্রতীকে সিল মেরে সেই দলের প্রার্থীকে সমর্থন জানাবেন।

আর্কাইভ