মঙ্গলবার, ১৬ জানুয়ারী ২০১৮রেজি:/স্মারক - ০৫.৪২.৫১০০.০১৪.৫৫.০৩৭.১২-৫৬২
Menu

সমাজ সেবক ও শিক্ষাবিদ আহমদুর রহমান এর ৪৪তম স্মরণসভা অনুষ্ঠিত

সমাজ সেবক ও শিক্ষাবিদ আহমদুর রহমান এর ৪৪তম স্মরণসভা অনুষ্ঠিত

বৃহস্পতিবার ৮ অক্টোবর ২০১৫
কামরুল হুদা:
সমাজ হিতৈষী, নির্ভীক, স্বাধীনচেতা, সদা হাস্যময়ী, ধর্মভীরু, মানুষের কল্যাণে সদা চিন্তাশীল, সম-সাময়িক কালজয়ী, শিক্ষাবিদ ও শিক্ষানুরাগী, চট্টগ্রামের চন্দনাইশ থানার দোহাজারী উপশহরের সাবেক চেয়ারম্যান আহমদুর রহমান প্রকাশ এ. রহমান’র কর্মের কথা, আদর্শের কথা, বর্ণাঢ্য জীবনের স্মৃতি চারণ করার উদ্দেশ্যেই আজ এ সামান্য প্রয়াস। তাঁকে, তাঁর কর্মকে, তাঁর বিচরণের ক্ষেত্রকে, সমাজের বিভিন্ন পর্যায়ে, তাঁর অবদানের পরিসংখ্যান নিতে গেলে বা দিতে গেলে তাঁর সম্পর্কে এই বিশেষণ গুলো অতি অল্পই হয়ে যায়, আরো বিশেষণে বিশেষায়িত করতে পারলেই যেন মনটা শান্তি পেতো। তার জানার পরিধি ছিল ব্যাপক, ভাণ্ডার ছিলো অফুরন্ত এক কথায় সর্বক্ষেত্রে তিনি ছিলেন সফল ও সার্থক একজন কর্মবীর মানুষ। সত্য, ভালো ও সুন্দর এই তিনটির উপর নৈতিকতা দাঁড়িয়ে থাকে। সদা সত্য বলা, ভালো কাজের সাথে থাকা এবং সুন্দরের প্রতি আগ্রহ বা সমর্থন থাকা এই সবগুলো গুণই ছিলো চেয়ারম্যান আহমদুর রহমান প্রকাশ এ. রহমান’র কাছে। তিনি একজন আপাদমস্তক ইসলামী ভাবধারার অনুসারী ছিলেন। চেয়ারম্যান আহমদুর রহমান প্রকাশ এ. রহমান’র স্বচ্ছ চিন্তা-চেতনার মানুষ, পরিবর্তিত সমাজ ব্যবস্থায় তিনি মানবীয় গুণ সম্পন্ন একটি উজ্জ্বল আদর্শের প্রতীক। বলতে গেলেই আমাদের দূষিত সমাজে একজন পরিশুদ্ধতায় খাঁটি অন্ত:প্রাণ সৎ নির্লোভ ব্যক্তিত্ব। ইসলামের দিক নির্দেশনাকে আদর্শ জেনে রাজনীতি, সমাজনীতি ও অর্থনীতির মাধ্যমে জীবনের শেষ সময় পর্যন্ত দেশ-জাতি-মাটি-মানুষের কল্যাণে নিরলস কাজ করে গেছেন। বিশেষ করে সাধারণ মানুষের ভালো-মন্দ, চাওয়া-পাওয়া, আনন্দ-বেদনার সাথে খুব কাছ থেকে সম্পৃক্ত ছিলেন।

মানুষ মরণশীল। কিন্তু জাতি অমর, জাতির মধ্যে থেকে ইতিহাসের বাঁকে বাঁকে কিছু ক্ষণজন্মা ব্যক্তি নেতৃত্বের উচ্চ সোপানে আরোহণ করে থাকেন। এই ধরনের ব্যক্তিবর্গ ব্যক্তি থেকে ব্যক্তিত্বে পরিণত হয়ে থাকেন। ব্যক্তিত্বকে কেন্দ্র করে ইতহাসের খন্ড রচিত হয়। প্রতিষ্ঠান সৃষ্টি হয়। কিন্তু কোন নেতা অমরত্ব লাভ করবেন, সেটা নির্ভর করে তার গুণ, যোগ্যতা, অর্জিত সাফল্য এবং ইতিহাসের প্রতি তার ব্যক্তিত্বের প্রভাবের উপর। অমরত্ব কোন দাবীর বিষয় নয়, মর্যাদাও তেমনি কোন দলিলকৃত বা রেজিস্ট্রিকৃত মীমাংসা নয়। সে রকম সমগ্র দক্ষিণ চট্টগ্রামের যে কয়জন খ্যাতিমান গুণী ব্যক্তিদের জীবনে, আচরণে ও কর্মে মানব সেবার মহামন্ত্রটি স্বার্থক হয়ে উঠেছিল ক্ষণজন্মা পুরুষ মরহুম আহমদুর রহমান (এ.রহমান) ছিলেন তাদের অন্যতম। তিনি ছিলেন একাধারে সমাজসেবী, শিক্ষানুরাগী, দেশদরদী, রোগ ও জরাগ্রস্ত মানুষের আশা আকাংখা ও সেবার মূর্তপ্রতীক এবং সর্বপরি মানবপ্রেমী এক কৃতিমান পুরুষ।
মরণ মানুষকে ছিনিয়ে নেয় বটে, কিন্তু কৃতি তাকে রাখে চিরস্থায়ী। কেননা “তোমার চেয়ে কৃতি যে মহৎ”। জন্ম এবং মৃত্যু সৃষ্টিকর্তার অমোঘ বিধান। এ ধরায় প্রতিনিয়ত অনেকে আসছেন এবং অনেকে চলে যাচ্ছেন। কিন্তু কিছু কিছু ব্যাক্তির এ আসা যাওয়ার মাঝখানে অনেক কৃতি থেকেই যায়। সেজন্য চিরজীবন তাদের মরণ স্পর্শ করে না, স্পর্শ করতে পারবে না।

বিন্দু বিন্দু পানি যেমন গড়ে তোলে অতল সাগর, মানব জীবন ও তেমনি ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র ঘটনার সমাহার। প্রতিটি মুহূর্তের প্রতিটি ক্ষনের অফুরন্ত যোগফলই এক অর্থে জীবন। মানুষের স্মৃতির মণিকোঠায়, ইতিহাসে এ জীবন মহামূল্যবান ঐশ্বর্য্যরে মত বন্দী হয়ে থাকে। আবার রাতের অযুত লক্ষ্য তারা যেমন হারিয়ে যায় ঐদিন লাল সূর্যের তেমনি মানব জীবনের এক একটি ক্ষণ হারিয়ে গেলেও জীবনের অনেক উত্তাল ঘটনার বিক্ষুব্ধ তরঙ্গ অভিঘাতে। কিন্তু লক্ষ তারা হারিয়ে গেলেও রাতে শুক তারাটি যেমন কখনো কখনো ভোরের আকাশেও দীপ্ত সমুজ্জল হয়ে ফুটে উঠে। তেমনি কিছু বিশেষ মানুষের জীবনের কোন ঘটনা, সৃষ্টি প্রভৃতি জেগে থাকে স্মৃতির দিগন্ত রেখায়। মানুষ ইচ্ছা করলেও তা কখনো ভুলতে পারে না। ভুলা যায় না, আর ভুলা যায় না বলেই আজ প্রায় ৪৪ বছর পরেও আমরা গভীর শোক ও শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করছি দক্ষিণ চট্টগ্রামের দোহাজারী উপশহরের এক চিরউজ্জ্বল নক্ষত্র, তদানীন্তন প্রতিথযশা প্রেসিডেন্ট মরহুম আহমদুর রহমান প্রকাশ এ. রহমান সাহেবকে।

বস্তুত কর্মহীন জীবন মৃত্যুর ভিতর চিরবিলীন হয়ে থাকে। অথচ কর্মই মানুষকে পরিচিতি করে তোলে এ ধরার বুকে। কর্মহীন মানুষ শত বছর বেঁচে থেকেও অমরত্ব লাভ করতে পারে না। মৃত্যুর মধ্যেই ঘটে তার জীবনের পরিসমাপ্তি। অথচ কর্ম উপযোগী মানুষের বিন্দুমাত্র অবসর নেই। সময়কে কাজে লাগিয়ে তাই তারা জীবনের সর্বশ্রেষ্ঠ ধন অর্জনে হন সদা তৎপর। আমাদের শ্রদ্ধেয় এ. রহমান ছিলেন তেমনি একজন কর্ম পুরুষ। যার যা পাওনা তা দেওয়া মানে সুবিচার, আমাদের এই ঘূণে ধরা সমাজে সুবিচার নাই বলইে যত সব সমস্যা। আমরা নিজের কার্যকলাপের বাছবিচার খুব কমই করি, কৃর্তিমান ব্যাক্তিদের সৃষ্টি ও স্মৃতিগুলোকে অনেক সময় আমাদের সমাজ কেন যেন স্বীকৃতি দিতে চায় না। এভাবে জাতির অনেক প্রতিভাধর ব্যক্তিত্ব আমাদের মাঝ থেকে হারিয়ে যাচ্ছে বা গেছেন, যাদের আমরা স্মরণ করছি না, যারা আগামী প্রজন্মের প্রেরণার উৎস, এটা সত্যি আমাদের দূর্ভাগ্য।

দোহাজারী জামিজুরী এ. রহমান উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা, প্রতিথযশা, সমাজকর্মী, শিক্ষানুরাগী ও চেয়ারম্যান এ. রহমানের মৃত্যুবার্ষিকী ২৭ সেপ্টম্বর কিন্তু স্কুল বন্ধ থাকার কারণে মরহুমের মৃত্যুবার্ষিকী পালন করা হবে ২০ সেপ্টম্বর। কেন জানি মনে হচ্ছে সময়ের ব্যবধানে হলেও আমাদের আরো কয়েকজন প্রেসিডেন্ট এ. রহমানের প্রয়োজন। আর কিছু না হোক অন্তত: এ অনুভূতি বা অভাববোধই মরহুম এ. রহমানের প্রতি আমাদের অকপট শ্রদ্ধাঞ্জলী হিসেবে বিবেচিত হতে পারে না। এ. রহমানের সারা জীবনের সাধনায় শিক্ষার যে মিটমিটে প্রদীপগুলো জ্বেলে যান তার আলোয় উদ্ভাসিত মানুষগুলো এবং তাদের বংশধরেরা এখন সারা দেশে ছড়িয়ে পড়েছে। এ. রহমান এটাই তো চেয়েছিলেন। সুতরাং বলা যায়, এ. রহমানের স্বপ্ন সফল হয়েছে, শিক্ষার আলো জ্বেলে তিনি ধন্য হতে চাননি। তা চাওয়ার কথাও নয়। যারা ধন্য হওয়ার অবশ্যই হয়েছে। ওদের কাছে তার পার্থিব চাওয়ার কিছু নাই। তারা কেবল দোয়া করবেন। এ. রহমান বুঝতেই পেরেছিলেন একমাত্র সুশিক্ষিত লোকেরাই পারেন একটি জাতির সত্যিকার উত্তোরণ ঘটাতে। তাই অশিক্ষার অন্ধকারে যুগ যুগ ধরে নিমজ্জিত গণমানুষের হৃদয়ে শিক্ষার আলো জ্বালাতে রোগ ব্যাধিগ্রস্থ দরিদ্র মানুষকে চিকিৎসা সেবা ও স্বাস্থ্য সচেতেন করে তুলতে এক কথায় সমাজের সার্বিক উপকারার্থে অতি আরাম-আয়েশ বিসর্জন দিয়ে কষ্টার্জিত স্বীয় তহবিল অকাতরে ব্যয় করে সমাজের উপকার করার মানসিকতা ছিল বলেই তিনি আজ আমাদের কাছে অনন্য সাধারণ এক মানুষ। জন্ম বা মৃত্যু বার্ষিকীতে এ. রহমান সাহেব আমাদের মোটেই মুখাপেক্ষী নয়। বরং এই মহৎপ্রাণ ব্যক্তিকে স্মরণ করে আমরা উত্তরসুরীরা নিজেরাই ধন্য হচ্ছি। এ. রহমান নিজ মহিমায় ভাস্বর। দক্ষিণ চট্টগ্রামের এ. রহমান সাহেব ছিলেন সারাদেশের সম্পদ। আমরা তাকে শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করি।

সমাজ সেবায় যুগে যুগে মানুষকে উদ্বুদ্ধ করার প্রয়োজনে এ. রহমানের মত লোকদের স্মৃতি অবিনশ্বর করে রাখা দরকার। কিন্তু আমরা এখনো তা করতে পারিনি। এটা আমাদের ক্ষমাহীন ব্যর্থতা। এ ব্যর্থতার উদ্যোগ যে নেওয়া হয়নি তা নয়। কিন্তু প্রত্যাশার সাথে প্রাপ্তির দূস্তর ব্যবধান সাফল্য অর্জনের সাথে অন্তরায় হয়ে দাঁড়ায়। আমার ধারণায় এ. রহমান সাহেবকে তার ন্যায্য পাপ্য বুঝিয়ে দিলে আরো অনেক এ. রহমান সাহেবের অভ্যূদয় নিশ্চিত হয়ে উঠতো। কিন্তু এ অপরিহার্য উপলব্ধি আমাদের মনে কাঙ্খিত বিস্ফোরণ ঘটাতে পারছে না। বলা বাহুল্য আমাদের নতুন প্রজন্মের কাছে বলতে গেলে এ ক্ষণজন্মা পুরুষের কোন পরিচিতি নেই। নিশ্চয় এটা দূর্ভাগ্যজনক। একটা হীরক খন্ড মাটি চাপা পড়ে আছে, একে উদ্ধার করে দেশ সমাজের অপরিসীম উপকারে লাগানো যেতে পারে। এ. রহমান সাহেবকে নতুন প্রজন্মের কাছে সঠিকভাবে উপস্থাপন করে আমরা জাতির ঘূণে ধরা চেতনায় সংবেদনশীলতা সৃষ্টি করতে পারছি না কেন? সংশ্লিষ্ট সকলের কাছে এ আমার প্রশ্ন। এ. রহমান সাহেব বলতে গেলে সার্বক্ষণিক সমাজ কর্মী ছিলেন। সকাল থেকে শুরু করে গভীর রাত পর্যন্ত অনুগ্রহ প্রার্থীদের দ্বারা পরিবেষ্টিত থেকে কখনো বিরক্তবোধ করতেন না।

স্কুল-কলেজ প্রতিষ্ঠায় অত্যুৎসাহী ছিলেন বলে অধিকাংশ সময় সে কাজেই ব্যয় হত, মানুষের শ্রম কখনো বৃথা যায় না। এ. রহমান সাহেবের অক্লান্ত পরিশ্রমের সোনালী ফসল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান দোহাজারী জামিজুরী এ. রহমান উচ্চ বিদ্যালয় অন্যতম। এ বিদ্যালয়টি ১৯৪৫ সালে দোহাজারীর অপরাপর গণ্যমান্য ব্যক্তিদের সাথে নিয়ে প্রতিষ্ঠা করেন।

এছাড়াও আপমর জনসাধারণের চিকিৎসা সেবার জন্য তার আপন ভাগিনা আলহাজ্ব সামশুল হুদার নিজস্ব ভূমিতে দু’জনের যৌথ উদ্যোগে দক্ষিণ চট্টগ্রামের অন্যতম হাসপাতাল ১৯৬৫ সালে দোহাজারী উপশহরে প্রতিষ্ঠিত হয়। দোহাজারী উপশহরের বিএডিসি’র অফিস ও গুদামসমূহ তারই অক্লান্ত পরিশ্রমের ফসল।

চেয়ারম্যান আহমদুর রহমান প্রকাশ এ. রহমান চট্টগ্রাম জেলার চন্দনাইশ উপজেলার দোহাজারী উপশহরেরর চাগাচর গ্রামের ফুলতলা এলাকার এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে  ১৮৯৮ সালের ১৮ আগস্ট, ৬ শাবান  জন্ম গ্রহণ করেন। তাঁর পিতার নাম হাজী আবদুল গণি মিয়াজী, হাজী আবদুল গণি মিয়াজীর ভাইয়ের নাম আবদুল বারী, বোনের নাম আমেনা খাতুন, রসিদা বা মাকসুদা খাতুন, ছালেহা খাতুন। আবদুল গণি মিয়াজীর বোন আমেনা খাতুন, আমেনা খাতুন আলহাজ্ব সামশুল হুদার দাদী তিনি এ. রহমানের ভাগিনা, রসিদা খাতুন সাতবাড়িয়ার হাচনদন্ডীর নাসিরকুলের বাসিন্দা আবুল কাসেমের দাদী, ছালেহা খাতুন দোহাজারী সরকার পাড়ার বজল আহমদের দাদী। আবদুল গণি মিয়াজির দুই স্ত্রী এক স্ত্রীর নাম আয়েশা খাতুন অপর স্ত্রীর নাম সবজান বিবি, আয়েশা খাতুনের ওরশজাত সন্তানেরা হচ্ছে মেহরাজ খাতুন, ভাই মাহমুদুর রহমান, আহমদুর রহমান প্রকাশ এ. রহমান, সিরাজ খাতুন, কবির আহমদ, মৌলানা সুলতান আহমদ, মজলিশ খাতুন, তোফায়েল আহমদ ও মফজল আহমদ। সবজান বিবির ওরশজাত সন্তানেরা হচ্ছে ছগীর আহমদ ফকির ও ছালেহ আহমদ। মেহরাজ খাতুনের পুত্র ও কন্যা সন্তানের নাম আছিয়া খাতুন ও সামশুল হুদা। মাহমুদুর রহমানের কোন পুত্র সন্তান ছিল না। এ. রহমানের সন্তানেরা হচ্ছে আনোয়ারুল আলম মিয়া, সামশুন্নাহার, নূর নাহার বেগম, আনোয়ারা বেগম, নূরজাহান বেগম, লাইলা বেগম, মাষ্টার বাহারুল আলম ও আকতারুল আলম। সিরাজ খাতুনের সন্তানেরা হচ্ছে নূরুচ্ছফা, আছনর ছফা, আনোয়ারুচ্ছফা, সামশুল আলম বদি জঙ্গলখাইন পটিয়া। মৌলানা সুলতান আহমদের সন্তানেরা হচ্ছে মরিয়ম খাতুন, ছাহেরা খাতুন, আবু তাহের, আবদুজ জাহের, মোহাম্মদ সোলায়মান, আয়েশা বেগম, ফাতেমা বেগম, জোবাইদা আকতার রানু ও আবু বক্কর। তোফায়েল আহমদের সন্তানেরা হচ্ছে ছাদেক আহমদ, জামাল উদ্দিন, ইকবাল হোসেন, আমেনা বেগম, লুলু বেগম ও ফেরদৌসী আকতার। মফজল আহমদের সন্তানেরা হচ্ছে মোহাম্মদ ইব্রাহিম, আক্কাছ উদ্দিন, আব্বাছ উদ্দিন, কহিনুর আকতার, আছহাব উদ্দিন ও নিলু আকতার। ছগির আহমদ ফকিরের সন্তানেরা হচ্ছে মাহাবুবুল আলম, নুরুর রহমান মাস্টার, মাহফুজুর রহমান, আমিনুর রহমান, মাহমুদুল হক। ছালেহ আহমদের সন্তানেরা হচ্ছে আম্বিয়া খাতুন, আবুল কালাম, আবুল আলম মৃত্যু ২৭ অক্টোবর ২০১২ ইংরেজী, জোহরা বেগম, ফখরুল আলম, সামশুল আলম, রোশনেরা বেগম, মোহাম্মদ ইয়াছিন, আনজুমান আরা বেগম ও হোসেনেয়ারা বেগম। সবজান বিবির পিতার নাম বসির উল্লাহ তার সন্তানেরা হচ্ছে আমিন শরীফ পঞ্চায়েত, জমির শরীফ, চান শরীফ ও জালাল আহমদ। আমিন শরীফ পঞ্চায়েতের মেয়ে জোবাইদা, জোবাইদার মেয়ে আয়েশা খাতুন, আয়েশা খাতুনের ছেলে দোহাজারীর বাসিন্দা এএসপি আহমদ শফি দারোগা। মেহরাজ খাতুনের পিতার নাম হাজী আবদুল গণি মিয়াজী, হাজী আবদুল গণি মিয়াজির পিতার নাম আছহাব উদ্দিন তার স্ত্রীর নাম লাইলা বেগম, আছহাব উদ্দিনের পিতার নাম বদরুদ্দিন তার স্ত্রী রমজান বিবি, বদরুদ্দিন ও রমজান বিবির এক সন্তান আছহাব উদ্দিন, দুই মেয়ে বধু বিবি ও কধু বিবি। এ. রহমানের আরেক বোনের নাম মেহরাজ খাতুন, মেহরাজ খাতুন সামশুল হুদার মাতা। মিয়া খোন্দকারের ছেলের নাম হামিদউল্লাহ মিয়াজি, তার স্ত্রীর নাম আমেনা খাতুন। হামিদ উল্লাহ মিয়াজীর পুত্রের নাম নূর আহমদ ও আলি আহমদ। আলি আহমদের কোন পুত্র কন্যা ছিল না। নূর আহমদের পুত্রের নাম আলহাজ্ব সামশুল হুদা, আলহাজ্ব সামশুল হুদার ছেলেমেয়েদের নাম মাস্টার নুরুল হুদা, সাংবাদিক কামরুল হুদা, নাজমুল হুদা, বশিরুল হুদা, মিনহাজুল হুদা, এহেতাসামুল হুদা, নাহিদা বেগম, ফাহমিদা বেগম, অলিদুল হুদা। চেয়ারম্যান আহমদুর রহমান প্রকাশ এ. রহমানের পূর্ব পুরুষেরা ইসলাম প্রচারের জন্য সূদুর আরব থেকে আফগান, হায়দ্রাবাদ, মুর্শিদাবাদ ও বাংলাদেশে আসে সমুদ্র পথে। পরে তাদের বংশধররা বাংলাদেশের রাঙ্গুনিয়া, নোয়াপাড়া ক্যান্টনমেন্ট, জানালীহাট, মাইজভান্ডার, হাটহাজারীর ছিপাতলী, পটিয়ার ছনহারা ইউনিয়নের চাটারা বৈরীয়া আলমদরপাড়া, দোহাজারী, পানতিরিশার ফারাঙ্গা, গোমদন্ডী ও আলমশাহর দারগাহ অঞ্চলে ছড়িয়ে ছিটিয়ে পড়েন। তারা ঘোরী বংশ নামে পরিচিত। এ. রহমান সাহেবের দীর্ঘ ৭৩ বছর তার কর্মমুখর জীবন অতিবাহিত করেন। সমগ্র জেলা হাজী আবদুল গণি পরিবারের খ্যাতি আছে। সাঙ্গু নদীর পলি বিধৌত উপকূলীয় উপশহর দোহাজারীতে শৈশব ও কৈশর কাটে এ. রহমান সাহেবের। যৌবনে বার্মার রেঙ্গুন এবং আকিয়াব শহরে। রেঙ্গুন এবং আকিয়াব শহর থেকে এ. রহমান বিপুল ধনরাশি উপার্জন করে দেশে এসে বিভিন্ন মানব সেবামূলক কাজে আত্ম নিয়োগ করেন। সমাজ সেবার নিদর্শনস্বরূপ টানা ৩৬ বছর দোহাজারীর প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব পালন করেন। মাঝখানে কয়েক বছরের জন্য ভগীরত সিংহ হাজারীকে চেয়ারম্যানের দায়িত্ব প্রদান করেন। সে সময় যে সব কৃতি পুরুষ এ. রহমান সাহেবের সহপাঠি ছিলেন তারা হলেন ফজলুল কাদের চৌধুরী, প্রিন্সিপাল আবুল কাশেম, কবির আহমদ সওদাগর, ফরিদউদ্দিন মুন্সি, নূর আহমদ, আলী আহমদ, আবু বরকত, রসিদুন্নবী, জালাল আহমদ, ভগীরত সিংহ হাজারী, আমিন শরীফ পঞ্চায়েত, আমজাদ হোসেন চেয়ারম্যান, সৈয়দ মাস্টার, মাওলানা বদরুদ্দোজা, আমিন শরীফ কমাণ্ডার, ডেপুটি ডাইরেক্টর সিরাজুল ইসলাম প্রমুখ।

এ. রহমান যেখানে একটি প্রদীপ জ্বালান, সেখানে আজ আলো বিকিরণ করছে শত সহস্র প্রদীপ। সংশ্লিষ্ট সকলের উপকৃত হবার বিনিময়ে এ. রহমানের বিদেহী আত্মার মাগফেরাতের উসিলা হোক। মূল্যবোধের অবক্ষয় ও আত্মকেন্দ্রিকতা বর্তমানে আমাদের ইতিহাস ও ঐতিহ্যের মূলে কুঠারাঘাত করছে। সমাজের অধিকাংশ মানুষ একটি সর্বনাশা খেলায় মেতে উঠেছে। কলমের পরিবর্তে আমাদের প্রিয় ছাত্রদের হাতে গর্জে উঠেছে আগ্নেয়াস্ত্র। তাই দেশ ও জাতির যুগ সন্ধিক্ষণে খুব বেশী করে মনে পড়ছে এ. রহমানকে। ঘরে ঘরে শিক্ষার আলো জ্বালাতেন যে লোকটি ৪৪ বছর আগে এইদিনে তিনি আমাদের ছেড়ে চলে যান, তারপরও দীর্ঘ সময়ে আর কোন এ. রহমানকে আমরা পাইনি। প্রাকৃতিক দূর্যোগের সময় অসহায় মানুষের দ্বারপ্রান্তে গিয়ে সাহার্য্যরে অভয় বাণী শোনাতেন যে লোকটি তিনি আজ আমাদের মাঝে নেই। এ বাস্তবতা আমাদের মনকে পীড়িত করে। এটা তীব্র দুঃখবোধ সংক্রমিত হয় তার পরিচিত জনদের মনে। সবকিছু বিবেচনা করলে তিনি নিজেই একটি প্রতিষ্ঠানে পরিণত হয়েছিলেন। মরহুম এ. রহামানের বিকল্প আজো দক্ষিণ চট্টগ্রামে জন্মায়নি। বিভিন্ন জন বিভিন্ন পেশায় স্বার্থক হলেও শিক্ষা বিস্তারে ও সমাজ সেবায় এ. রহমান সাহেবকে অদ্বিতীয় বলা যায়। তার পাণ্ডিত্য ও সাংগঠনিক ক্ষমতা তাকে এ এলাকার অন্যতম জ্ঞান তাপস এবং শিক্ষানুরাগী হিসেবে বিতর্কের উর্ধ্বে আসীন করেছে। আজকের সমাজে এ. রহমানের মত শিক্ষাবিদ এবং সমাজসেবীর বড় বেশী প্রয়োজন। দক্ষিণ চট্টগ্রামের জনগণকে অজ্ঞতার অন্ধকার থেকে আলোর পথে আনতে তিনি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রতিষ্ঠা করতে ব্রতী হয়েছিলেন।

জীবিতকালে অনেক সংগঠক, শিক্ষাবিদ ও গুণীজন সম্মান পান না। কিন্তু এ. রহমান এ ক্ষেত্রে ভিন্নতার দাবী রাখেন। জীবিতকালেও তাকে প্রত্যেকে সম্মান করেছে। মৃত্যুর পরেও তার প্রতিষ্ঠান, বন্ধু-বন্ধব, আত্মীয়স্বজন তাকে সম্মান করছে, স্মরণ করছে।

গুণী ও কৃর্তীমান ব্যক্তিদের প্রতিভার চেয়ে পরিশ্রমের মর্যাদা বেশী। প্রতিভাকে আসলে ধৈর্য্য ও পরিশ্রমের সমষ্টি বলে মনে করেন। মানুষের কর্মসাধনার সাথে চাই অসীম ধৈর্য্য গুণ। সাধনার সঙ্গে আনন্দের মিশ্রণও বাঞ্চনীয়। কর্মে আনন্দ থাকলে মানুষের প্রেরণা জন্মে, এ প্রেরণার মাধ্যমে এ. রহমান মানব সেবায় ব্রতী হয়ে উঠেন। গুণীর কদর করলে গুণীর জন্ম হয়। দক্ষিণ চট্টগ্রামের সহজ সরল মানুষ গুণীর কদর করেছে। আর আমরাও আশাবাদী যে, এ. রহমানের মহৎ গুণগুলো আগামী প্রজন্ম এবং যারা সমাজকর্মী তারা গ্রহণ করবেন। তা হলেই এ. রহমানের আত্মা শান্তি পাবে।

তার ৭৩ বছরের বর্ণাঢ্য জীবনের কিছু স্মৃতি পাঠকের সামনে তুলে ধরছি। তিনি দোহাজারী ইউনিয়নের নির্বাচিত প্রেসিডেন্ট (বর্তামন চেয়ারম্যান) ছিলেন। তিনি স্ত্রী, ৩ পুত্র ও ৫ কন্যাসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে মহান আল্লাহর ডাকে সাড়া দেন ১৯৭১ সালের ২৭ সেপ্টম্বর। তার পুত্রদের মধ্যে বড়পুত্র আনোয়ারুল আলম মিয়া রেলওয়ের কর্মকর্তা ছিলেন, দ্বিতীয় পুত্র আলহাজ্ব মাস্টার বাহারুল আলম দোহাজারী জামিজুরী আ. রহমান উচ্চ বিদ্যালয়ের সিনিয়র শিক্ষক, তৃতীয় পুত্র আকতারুল আলম ব্যবসায়ী, মরহুমের ৫ মেয়ের মধ্যে সবাই স্ব-স্ব শ্বশুর বাড়ীতে আজ প্রতিষ্ঠিত। মরহুমের ৪৪ তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে আমি আজ তার রূহের মাগফেরাত কামনা করছি। মহান আল্লাহ তাকে জান্নাতের আলা দরজায় অধিষ্ঠিত করুক। আমিন।

মরহুম দেশের সেবা ও শিক্ষা বিস্তারে এক অনন্য প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলেন। সেটি হচ্ছে দোহাজারী জামিজুরী আ. রহমান উচ্চ বিদ্যালয়। এ বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠা করেন ১৯৪৫ সালে। স্কুল প্রতিষ্ঠায় সহযোগিতা করেন ডেপুটি ডাইরেক্টর সিরাজুল ইসলাম খান, ভগীরত সিংহাজারী, ওয়াহিদ মিয়া খান, উকিল মুখ্যদা, নূর মোহাম্মদ চৌধুরী, আমাজাদ হোসেন চেয়ারম্যান। তার আপন ভাগিনা আলহাজ্ব সামশুল হুদা সে স্কুলের অবৈতনিক শিক্ষক ছিলেন। এ. রহমানের সারা জীবনের সাধনায় শিক্ষার যে মিটমিটে প্রদীপগুলো জ্বেলে যান তার আলোয় উদ্ভাসিত মানুষগুলো এবং তাদের বংশধরেরা এখন সারা দেশে ছড়িয়ে ছিটিয়ে পড়েছে। এ. রহমান চেয়ারম্যান এটাই তো চেয়েছিলেন। এ আদর্শ মানুষটি আজ আমাদের মাঝে নেই। এই স্বনামধন্য ও বিরল আদর্শবাদী, ত্যাগি মানুষটির কর্ম ও ঘটনা বহুল জীবনের পরিসমাপ্তি ঘটে। কিন্তু তিনি যে আলো জ্বালিয়ে গেছেন তা নিভার নয়।

এ. রহমান সাহেব এলাকায় বহু শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, মসজিদ, মাদ্রাসা ও হাসপাতাল প্রতিষ্ঠায় সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছিলেন। ৫ বছর যাবৎ শিক্ষক ও ছাত্রদের নিজ বাড়ীতে রেখে বিনা বেতনে পাঠ দান এবং শিক্ষকদের খাওয়া-দাওয়ার ব্যবস্থা করেন এবং শিক্ষকদের বেতন নিজ তহবিল থেকে দিয়ে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে আরো একদাপ এগিয়ে দেবার ব্যবস্থা করেছেন। এ. রহমান সাহেবের নিজ ভূমির উপর চাগাচর মুছাবিয়া নছুবিয়া মাদরাসা, তৈয়রীরদীঘির পাড়ে রেজিস্ট্রার্ড প্রাইমারী স্কুল ও মসজিদ তার ভূমির উপরই প্রতিষ্ঠিত।

এছাড়াও তিনি এলাকায় নিজ উদ্যোগে নলকূপ স্থাপন, দুঃস্থদের সাহায্য প্রদান, দুঃস্থ মায়েদের বিবাহ যোগ্য মেয়েদেরকে এককালীন সাহায্য ও এতিমখানায় অনুদান প্রদান করা এ কাজ গুলো তার উল্লেখযোগ্য। তিনি বহু জনহিতকর প্রকল্প হাতে নিয়েছেন, যাতে এলাকার মানুষের কল্যাণ সাধন হয়। ব্যবসার মাধ্যমে কর্মজীবন শুরু করে তিনি দেশের একজন সফল ব্যবসায়ী হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠা করতে সফল হয়েছিলেন। বাণিজ্যিক রাজধানী চট্টগ্রামকে বিশ্বের দরবারে কিভাবে পরিচিতি লাভ করা যায় সেদিকে তার প্রচেষ্টা ছিল। সেইজন্য তখনকার সময়ে ক্ষমতায় অধিষ্টিতজনদের সাথে সাথে তার সখ্যতা ছিল। ফজলুল কাদের চৌধুরী তার বাড়ীতে আসা যাওয়া করতো। এ. রহমান সাহেব উচ্চ স্তরের লোক ছিল বলেই তার কাছে ক্ষমতাধর ব্যক্তিরা চলে আসতো। তার নিকট পরামর্শ নিত।

শত ব্যস্ততার মাঝেও চেয়ারম্যান এ. রহমান বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনের সাথে সম্পৃক্ত ছিলেন। সামাজিক সংগঠনের সাথে জড়িত থেকে সমাজের বিভিন্ন স্তরের জনগণের পাশে থেকে জনগণকে উন্নয়নমূলক কাজে এগিয়ে আসার জন্য উদ্বুদ্ধ করেছিলেন। তিনি দোহাজারী ইউনিয়ন পরিষদের প্রেসিডেন্ট (বর্তামন চেয়ারম্যান) পদে অধিষ্ঠিত ছিলেন। দেশ ও জনগণের সেবায় আমৃত্যু নিয়োজিত ছিলেন।

চেয়ারম্যান আহমদুর রহমান প্রকাশ এ. রহমান’র  দীর্ঘ কর্মময় বর্ণাঢ্য জীবনের পরিসমাপ্তি ঘটে ১৯৭১ সালের ২৭ সেপ্টম্বর। নিজ বাস ভবনে মাত্র ৭৩ বছর বয়সে তিনি মৃত্যুবরণ করেন (ইন্নালিল্লাহে--------রাজেউন)। মৃত্যুর পূর্বে তিনি দোহাজারী ইউনিয়ন পরিষদের প্রেসিডেন্ট (বর্তামন চেয়ারম্যান) পদে অধিষ্ঠিত ছিলেন। তার এ শূন্যস্থান সমাজে পূরণ হবার নয়। তাঁর জন্ম-মৃত্যুর মাঝখানে মাত্র ৭৩ বছর আয়ুষ্কাল যেন একটি জীবন, একটি ইতিহাস, একটি প্রতিষ্ঠান, একটি মোহনীয় ব্যক্তিত্ব জ্বলজ্বল করে তাঁর নিজস্ব আলোয় উদ্ভাসিত করে রেখেছিল এই নশ্বর পৃথিবীর বাংলাদেশ নামক ভূখন্ডটকে।

সমাজের কোন জায়গাটিতে তিনি বিচরণ করেননি? সমাজসেবা, দান-খয়রাত, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, মসজিদ-মাদ্রাসা, সেবামূলক প্রতিষ্ঠান নির্মাণ, মানুষের বিপদে এগিয়ে যাওয়া, রাজনীতিতে সক্রিয় অবস্থান, ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে জনগণের কল্যাণ সাধন সহ সমাজের প্রতিটি পরতে পরতে তিনি স্বমহিমায় বিচরণ করেছেন। তিনি সদালাপী ও অত্যন্ত সাধাসিধে জীবন-যাপন করতেন। তার সাথে কয়েক বছরের ঘনিষ্ঠতার মুহূর্তগুলো আমার দেখার, জানার, শেখার, বুঝার অভিজ্ঞতার ভাণ্ডারকে সমৃদ্ধশালী করেছে। তার মতো দেশপ্রেমে উদ্ভুদ্ধ হয়ে চরিত্র গঠন করতে পারলে বর্তমান ও ভবিষ্যৎ প্রজন্ম অবশ্যই সাফল্যের চূড়ান্ত শেখরে আরোহণ করতে পারবে। মা-মাটি-মানুষের-দেশের কল্যাণে তার মতো নিবেদিত প্রাণ প্রজন্ম প্রত্যাশা করছি। এই মহৎপ্রাণ ব্যক্তিটির স্মৃতি রক্ষার্থে সরকার ও সমাজের সর্বস্তরের জনগণের আন্তরিকভাবে এগিয়ে আসা উচিত বলে মনে করি। গুণী ও মহৎ ব্যক্তিদের কর্মের যথাযথ স্বীকৃতি প্রদান করলেই পরবর্তীতে নতুন প্রজন্ম উৎসাহিত বোধ করবেন।
গত ২০ সেপ্টম্বর রোববার সমাজ সেবক ও শিক্ষাবিদ আহমদুর রহমান প্রকাশ এ. রহমান স্মরণে ৪৪ তম মৃত্যুবার্ষিকী পালিত হয়েছে। এ ব্যাপারে দোহাজারী জামিজুরী আ. রহমান উচ্চ বিদ্যালয়ে বিভিন্ন কর্মসূচি পালিত হয়। কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে সকালে স্কুল প্রাঙ্গণে আলোচনা সভা, মরহুমের বাড়ীতে খতমে কোরআন, দোয়া মাহফিল। এছাড়াও এ. রহমান স্মৃতি সংসদ, বিভিন্ন সামাজিক সংগঠন তার মৃত্যুবার্ষিকী পালন উপলক্ষে বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করেছে।

লেখক- কলামিস্ট ও সাংবাদিক
মো.-০১৮১৯-৮০১৯৮৫


আর্কাইভ