শুক্রবার, ১৯ জানুয়ারী ২০১৮রেজি:/স্মারক - ০৫.৪২.৫১০০.০১৪.৫৫.০৩৭.১২-৫৬২
Menu

লক্ষীপুরে আওয়ামী লীগ নেতাকে গুলি করে হত্যা প্রতিবাদে অবরোধ-বিক্ষোভ

লক্ষীপুরে আওয়ামী লীগ নেতাকে গুলি করে হত্যা প্রতিবাদে অবরোধ-বিক্ষোভ

বুধবার, ২ সেপ্টেম্বর ২০১৫

মো. কামাল হোসেন, লক্ষীপুর থেকে: জেলার চন্দ্রগঞ্জ থানা সন্ত্রাস নির্মূল কমিটির সভাপতি ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সহসভাপতি মো. ওমর ফারুককে প্রকোশ্য গুলি করে হত্যা করেছে মুখোশধারী দুর্বৃত্তরা। নিহত ওমর ফারুক একই গ্রামের মৃত আবদুল মান্নানের ছেলে। গতকাল মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে লক্ষীপুর সদর উপজেলার চন্দ্রগঞ্জ থানার পশ্চিম লতিফপুর গ্রামের একটি চায়ের দোকানের সামনে এ ঘটনাটি ঘটেছে। এদিকে এ ঘটনার প্রতিবাদে স্থানীয় আওয়ামী লীগ ও ছাত্রলীগ চন্দ্রগঞ্জ বাজারে দুপুর ২টার দিকে বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশসহ ঢাকা-লক্ষীপুর আঞ্চলিক সড়ক ঘণ্টাখানেক অবরোধ করে রাখে। পুলিশ স্থানীয় যুবদল কর্মী ইসমাইল ও নুরুল ইসলাম নামে ২ জনকে সন্দেহজনকভাবে আটক করেছে।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, চন্দ্রগঞ্জের পশ্চিম লতিফপুর গ্রামের বাড়ির পাশের একটি দোকানে নাস্তা করছিলেন ওমর ফারুক। এ সময় সিএনজি অটোরিকশায় করে ৫-৬ জনের মুখোশপরা দুর্বৃত্তরা ঘটনাস্থলে এসে প্রকাশে ওমর ফারুককে এলোপাতাড়ি গুলি করতে থাকে। একপর্যায়ে তিনি দোকান থেকে পালিয়ে যাওয়ার সময় দুর্বৃত্তরা তাকে লক্ষ্য করে আরো কয়েক রাউন্ড গুলি ছুড়ে পালিয়ে যায়। পরে গুরুতর আহত অবস্থায় উদ্ধার করে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পথে তিনি মারা যান।

পুলিশ নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠায়। তবে এ ঘটনার জন্য জিসান ও নাছির বাহিনীর সন্ত্রাসীদের দায়ী করেছে স্থানীয় ছাত্রলীগ। এর আগে গত বছর ৬ ডিসেম্বর ওমর ফারুকের ওপর সন্ত্রাসীরা হামলা এবং তাকে গুলি করে হত্যার চেষ্টা করেছে। পুলিশের তালিকাভুক্ত সন্ত্রাসী ক্রসফায়ারে নিহত জিসান ও নাসিরের মৃত্যুর ঘটনায় ওই সব বাহিনীর সন্ত্রাসীরা ফারুককে দায়ী করে তার ওপর ক্ষুব্ধ বলে স্থানীয়ভাবে জানা যায়।

আর্কাইভ