মঙ্গলবার, ১৬ জানুয়ারী ২০১৮রেজি:/স্মারক - ০৫.৪২.৫১০০.০১৪.৫৫.০৩৭.১২-৫৬২
Menu

লিবিয়া থেকে সাগর পথে ইতালি, অতঃপর চাটখিলের জসিম নিখোঁজ

লিবিয়া থেকে সাগর পথে ইতালি, অতঃপর চাটখিলের জসিম নিখোঁজ

শুক্রবার, ২১ আগষ্ট ২০১৫
নোয়াখালী প্রতিনিধি : অভাব অনটনে পড়ে একটু সুখের আশায় যুদ্ধবিধ্বস্থ দেশ লিবিয়া থেকে সাগর পথে জাহাজ যোগে ইতালি যাওয়ার পথে জাহাজ ডুবে নিখোঁজ হয়েছেন নোয়াখালীর চাটখিল উপজেলার আশরাফুল আমিন জসিম নামের এক ব্যক্তি।
গত ৪ আগস্ট মঙ্গলবার ভূ-মধ্য সাগরে ঝড়ের কবলে পড়ে জাহাটি ডুবে যায়। এখনো ২০ আগস্ট বৃহস্পতিবার পর্যন্ত নিখোঁজ জসিমের কোন সন্ধান পাওয়া যায়নি। আশরাফুল আমিন জসিম (৩২) চাটখিল উপজেলার খিলপাড়া ইউনিয়নের অমরপুর গ্রামের রুহুল আমিনের ছেলে। তিনি ৪ ভাই ও ৩ বোনের মধ্যে সবার ছোট এবং এক মেয়ে ও এক ছেলের জনক।   
বৃহস্পতিবার সকালে কথা হয় নিখোঁজ জসিমের বড় ভাই আলিম আল রাজুর সাথে। তিনি বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, পরিবারের সচ্চলতা আনতে গত ২০১৪ সালে লিবিয়ায় পাড়ি জমায় জসিম। এরপর থেকে বিভিন্ন সময় মোবাইলে ওই দেশে শান্তি নেই। সবসময় চুরি, ডাকাতি, মারামারি ও দাঙ্গাহামলা লেগেই থাকত বলে সে জানায়। কষ্টের জীবন ছেড়ে দালালের খপ্পরে পড়ে এক লাখ টাকা চুক্তিতে গত ৪আগস্ট দিবাগত রাতে তার সাথে থাকা অন্যসহকর্মীদের সাথে সাগর পথে ইতালি যাওয়ার চেষ্টা করে।
গভীর রাতে ভূ-মধ্য সাগরে মাঝখানে ঘূর্ণিঝড়ের কবলে পড়ে তাদের বহনকারী জাহাজটি ডুবে যায়। এতে জসিমসহ জাহাজের যাত্রীরা সাগরে লাফিয়ে পড়ে। পরে ইতালিয়ান কোস্টগার্ড তাদের মধ্যে কয়েকজনকে উদ্ধার করে।
তিনি আরো বলেন, জসিমের সাথে সাগরে লাফিয়ে পড়ার পর উদ্ধার হওয়া সবুজ নামের জসিমের এক সহকর্মী তাদেরকে মোবাইলে জানান, ‘তাদের সাথে যাওয়া ৬’শ যাত্রীর মধ্যে বাংলাদেশি ছাড়াও ইথোপিয়া, সোমালিয়া ও ভারতের নাগরিক ছিল। এদের মধ্যে ডুবে যাওয়া প্রায় ৩’শ জনকে ইতালিয়ান কোস্টগার্ড উদ্ধার করেছে। আর জসিমসহ বাকীরা এখনো নিখোঁজ রয়েছে।’   
এদিকে ১৬দিন অতিবাহিত হলেও সন্তানের কোন খবর না পেয়ে দিশেহারা হয়ে পড়েছেন তার মা, স্ত্রী ও সন্তানসহ পরিবারের লোকজন।

আর্কাইভ