শুক্রবার, ১৯ জানুয়ারী ২০১৮রেজি:/স্মারক - ০৫.৪২.৫১০০.০১৪.৫৫.০৩৭.১২-৫৬২
Menu

লক্ষ্মীপুরে জগৎবেড় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের বেহাল অবস্থা; ঝুঁকিপূর্ণ ভবনে চলছে পাঠদান

লক্ষ্মীপুরে জগৎবেড় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের বেহাল অবস্থা; ঝুঁকিপূর্ণ ভবনে চলছে পাঠদান

বুধবার ১৩ মে ২০১৫
লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি : প্রয়োজনীয় শ্রেনিকক্ষ, বেঞ্চ, সচল নলকুপ ও স্বাস্থ্যসম্মত শৌচাগার না থাকায় এবং যখন তখন পলেস্তারা খসে পড়ার চরম ঝুঁকি নিয়ে চলছে লক্ষ্মীপুরের জগৎবেড় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পাঠদান। পুরো ভবনটি দীর্ঘ কয়েক বছর থেকে ঝুঁকিপূর্ণ হলেও শিক্ষার্থীদের পাঠদান নিতে হচ্ছে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে। বিকল্প কোন ব্যবস্থ না হওয়ায় বাধ্য হয়ে শিক্ষার্থীদের মেঝেতে কাগজ বিছিয়ে পাঠদান দিতে হচ্ছে শিক্ষকদের। পাঠদানের অনুপযোগী শ্রেনি কক্ষ এবং পর্যাপ্ত বেঞ্চের অভাব, ঝুঁকিপূর্ণ ভবনের কারণে শিক্ষার্থীরা বিদ্যালয়ের যাওয়ার আগ্রহ হারাচ্ছে। আর সঠিক সময়ে শিক্ষার্থীদের পাঠ দান দিতে পাড়ছে না শিক্ষকরা। পাশাপাশি অনেকটা   চিন্তিত ও শস্কিত হয়ে পড়েছেন অভিভাবক মহল।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, সদর উপজেলার টুমচর ইউনিয়নের ৯নং ওযার্ড জগৎবাড়ি গ্রামের জগৎবেড় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের এমন এক করুন দৃশ্য। স্কুলে প্রধান শিক্ষককে না পাওয়া গেলেও ক্লাস ফাঁকি দিয়ে সহকারী শিক্ষকরা অফিস রুমে বসে   গল্প করছে।
সহকারী একজন শিক্ষক জানান, আমাদের এই বিদ্যালয়টি ১৯৮৮ সনে স্থাপিত হয়। ১৯৯৪ সনে ৪টি রুম নিয়ে একতলা বিশিষ্ট নব গঠিত ভবনটি নিম্মিত হয়। এরপর থেকে ধীরে ধীরে বিদ্যালয় ভবনটি ঝুঁকিপূর্ন রূপ নিলে ২০১১ সনে নতুন ভবন করার জন্য মাটি পরিক্ষা করে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। পরে ২০১৩ সনে জুলাই মাসে বিদ্যালয়টি পরিত্যক্ত ঘোষনা করে সদর উপজেলা শিক্ষা কমিটি। মাটি পরিক্ষায় ৪ বছর হলেও নতুন ভবনের দেখা পায়নি স্কুল কর্তৃপক্ষ। স্কুলের ঝুঁকিপূর্ণ ভবনের বিষয়টি বেশ কয়েকবার চিঠির মাধ্যমে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে। চিঠি পেয়ে তারা দ্রুত সমাধানের আশ্বাস দিলেও এখনো পর্যন্ত তা বাস্তবায়ন হয়নি।
শিক্ষার্থীরা জানায়, স্কুল ঘরটি ভাঙ্গা ও বসার বেঞ্চ না থাকায় অনেকে এখন স্কুলে আসে না। ভালো টয়লেট ও ভালো খেলার মাঠও নাই এমনকি পিপাসা মিঠাতে পানি পর্যন্ত নাই। যা একটা চাপ কল আছে তাও নষ্ঠ।
প্রধান শিক্ষক মোঃ সিদ্দিক উল্যার সাথে মুঠো ফোনে আলাপ কালে তিনি জানান, বিদ্যালয়ের বিষয়টি জেলা প্রশাসক, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, উপজেলা শিক্ষা অফিসারসহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে বার বার জানানোর পরেও নতুন ভবন ও বিদ্যালয়টি মেরামতের কোন কাজ এখন পর্যন্ত বাস্তবায়ন হয়নি। ক্লাস ফাঁকির ব্যাপারে জানতে চাইলে তিনি জানান, এলাকার এক শ্রেনির মানুষ আছে যা আমাদের বিরুদ্ধে মিথ্যা প্রচার করে বেড়ায়।
উক্ত বিদ্যালয়ের এক অভিভাবক জানায়, ডিজিটাল যুগে সবকিছুর পরিবর্তন হচ্ছে অথচ আমাদের গ্রামের স্কুল ঘরটির বেহাল দশা। স্কুল ভবনের যে অবস্থ’া যে কোন সময় বড় ধরণের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। স্কুলটি যেন মৃত্যুকুপে পরিনত হয়ে আছে।
উপজেলা শিক্ষা অফিসার হাসিনা ইয়াসমিন বলেন, যে সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো ঝুঁকিপূর্ণ রয়েছে তা ঢাকা পরিকল্পনা উন্নয়ন শাখা থেকে আমাদের কাছে তালিকা চেয়েছে। আমরা জগৎবেড় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টি ১নং তালিকায় দিয়ে পাঠিয়েছি। আশা করি খুব শীঘ্রই বিদ্যালয়টি নতুন ভবন নির্মান হবে বলে তিনি বলেন।       

আর্কাইভ