শুক্রবার, ১৯ জানুয়ারী ২০১৮রেজি:/স্মারক - ০৫.৪২.৫১০০.০১৪.৫৫.০৩৭.১২-৫৬২
Menu

আন্দোলনের বাইরে জামায়াতের সঙ্গে কোনো সম্পর্ক নেই

 আন্দোলনের বাইরে জামায়াতের সঙ্গে কোনো সম্পর্ক নেই

ঢাকা অফিস :
আন্দোলন ও নির্বাচনী জোট ছাড়া বিএনপির সঙ্গে জামায়াতের কোনো সম্পর্ক নেই বলে জানিয়েছেন দলটির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া।
 
বিজয়ের মাস ডিসেম্বর উপলক্ষে সোমবার (১ ডিসেম্বর) রাতে তার গুলশান কার্যালয়ে জাতীয়তাবাদী মুক্তিযোদ্ধা দলের মাসব্যাপী কর্মসূচি উদ্বোধনকালে তিনি এ কথা জানান।
 
খালেদা জিয়া বলেন, আওয়ামী লীগ সব সময় বলে বিএনপি নাকি রাজাকারদের হাতে পতাকা তুলে দিয়েছে। আওয়ামী লীগ হলো মিথ্যাবাদীর দল। তারাই (আওয়ামী লীগ) প্রথম রাজাকার নুরু মাওলানার হাতে পতাকা তুলে দিয়েছে। এছাড়া রাজাকার একে ফয়জূল হক, ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেনের গাড়িতে তারাই পতাকা তুলে দিয়েছে। এখনো সে (ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন) বহাল তবিয়তে আছেন। দেশটাকে লুটেপুটে শেষ করে দিচ্ছেন।
 
তিনি বলেন, কথায় কথায় তারা (আওয়ামী লীগ)  জামায়াতের কথা বলেন, ১৯৮৬ সালে জামায়াতকে সঙ্গে নিয়ে তারা এরশাদের নির্বাচনে যায়নি? ১৯৯৫ সালে তত্ত্বাবধায়কের দাবিতে জামায়াতকে সঙ্গে নিয়ে আমাদের বিরুদ্ধে আন্দোলন করেনি? ১৯৯৬ সালের নির্বাচনের পর নিজামীদেরকে সঙ্গে নিয়ে সরকার গঠন করতে চায়নি? এখন তারা জামায়াতের কথা বলে। জামায়াতের সঙ্গে আমাদের কেবল নির্বাচন ও আন্দোলনের জোট, অন্য কোনো সম্পর্ক নেই।
 
বিএনপিই প্রকৃত মুক্তিযুদ্ধের দল দাবি করে খালেদা জিয়া বলেন, জিয়াউর রহমানের ডাকে সাড়া দিয়ে যারা রণাঙ্গনে মুক্তিযুদ্ধ করেছে তারাই এখন বিএনপি করে। সুতরাং বিএনপিই প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধাদের দল। বিএনপিই মুক্তিযুদ্ধে সপক্ষের শক্তি।  তাই আমরা পুরো ডিসেম্বর মাস বিজয় উৎসব পালন করবো।
 
শেখ মুজিবুর রহমান স্বাধীনতা চাননি তাই স্বাধীনতার ঘোষণা দেননি বলেও মন্তব্য করেন বিএনপির চেয়ারপারসন। বাংলাদেশের প্রথম প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দীন আহমেদের মেয়ে শারমীন আহমেদের বইয়ের উদ্ধৃতি দিয়ে বিএনপি চেয়ারপার্সন বলেন, ২৫ মার্চ রাতে তাজউদ্দীন সাহেব টেপরেকর্ডার নিয়ে শেখ সাহেবের কাছে গিয়েছিলেন। কিন্তু তিনি স্বাধীনতার ঘোষণা দেননি। উল্টো বলেছেন, তোমরা কি আমাকে দেশদ্রোহী মামলায় ফাঁসাতে চাও। অর্থাৎ তিনি রিস্ক (ঝুকি) নিতে চাননি।
 
তিনি বলেন, ‘যারা আওয়ামী লীগে থাকেন তারাই এখন মুক্তিযোদ্ধা হয়েছেন। আর যারা বাইরে থাকেন তারা মুক্তিযোদ্ধা না। অথচ আওয়ামী লীগের কেউ মুক্তিযুদ্ধই করেননি। তারা ছিলো সরনার্থী। ২৫ মার্চ যখন পিলখানা ও রাজারবাগে পাক হানাদার বাহিনী হামলা করে তখন তারা পাকিস্তান ও ভারতের নিরাপদ স্থানে চলে গিয়েছিলো। দেশের মানুষকে যারা বিপদে রেখে পালায় তারা মুক্তিযোদ্ধা হন কী করে?’
 
উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, ভাইস চেয়ারম্যান শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন, শমসের মবিন চৌধুরী, মেজর জেনারেল (অব) হাফিজ উদ্দীন আহমেদ,  চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ব্যারিস্টার শাজাহান ওমর বীর উত্তম, কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব.) সৈয়দ মুহম্মদ ইবরাহিম বীর প্রতীক, মুক্তিযোদ্ধা দলের সভাপতি ইশতিয়াক আজিজ উলফাত প্রমুখ।
 
বিজয়ের মাসেই আন্দোলন কর্মসূচি শুরুর ইঙ্গিত দিয়ে খালেদা জিয়া বলেন, আমরা একদিকে বিজয় মাসের কর্মসূচি পালন করবো। অন্যদিকে আন্দোলন কর্মসূচিও দেব। এই স্বৈরাচার সরকার পতন না হওয়া পর্যন্ত সে আন্দোলন অব্যাহত থাকবে। আপনারা যারা দেশের শান্তি, কল্যাণ, উন্নয়ন ও গণতন্ত্র চান তারা এই আন্দোলনে শরিক হবেন।
 
বিএনপিকে গাল দিতে দিতে আওয়ামী লীগের বদ্যাভাস হয়ে গেছে মন্তব্য করে খালেদা জিয়া বলেন, জোর করে ক্ষমতায় বসে তারা নিজেদেরকে মন্ত্রী দাবি করেন। তারা নাকি মন্ত্রী। অথচ বিদেশি মেহমানদের কী ভাষায় তারা গালিগালাজ করছেন। আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশারাফ বিদেশি মেহমানকে কী ভাষায় গালি দিয়েছেন। মতিয়া চৌধুরী বিশ্বব্যাংককে সেদিন কী বলেছেন। তারা কাউকে সম্মান দিতে জানেন না। দেশের সম্মানও তারা শেষ করে দিচ্ছেন।

আর্কাইভ