শুক্রবার, ১৯ জানুয়ারী ২০১৮রেজি:/স্মারক - ০৫.৪২.৫১০০.০১৪.৫৫.০৩৭.১২-৫৬২
Menu

ইতিহাস গড়েও নির্লিপ্ত তাইজুল

 ইতিহাস গড়েও নির্লিপ্ত তাইজুল

স্পোর্ট ডেস্ক :
সোমবার মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে ২ হাজার ২২৭তম ক্রিকেটার হিসেবে ওয়ানডেতে অভিষেক হয় তাইজুলের। মাত্র ১১ রান দিয়ে চার উইকেট নিয়ে ম্যাচের সেরা খেলোয়াড় হন তিনি। তাইজুলের চার উইকেটের তিনটি আবার পরপর তিন বলে। অভিষেকে ওয়ানডেতে এই কাজ করতে পারেননি আর কোনো ক্রিকেটার। মাঠেই নিজের ইতিহাস গড়ার কথা জেনেছিলেন তাইজুল। জানতে পারেন, তিনিই প্রথম ব্যক্তি যে কী না অভিষেকে এত ভালো করেছে। “বড় ভাইরা বলেছেন। জানার পরে অনেক ভালো লাগছে।” এই মাঠেই গত মাসে একই প্রতিপক্ষের বিপক্ষে মাত্র ৩৯ রানে ৮ উইকেট নিয়ে টেস্টে বাংলাদেশের সেরা বোলিংয়ের রেকর্ড গড়েন তিনি। এমন একটা সময়ে তাইজুল বোলিংয়ে আসেন যখন সাকিব আল হাসানকে খুব সহজে খেলছিলেন হ্যামিল্টন মাসাকাদজা, ভুসি সিবান্দারা। নিজের বোলিং সম্পর্কে তিনি বলেন, “হ্যাটট্রিক করছি, সাত ওভার বল করে ১১ রান দিয়েছি। ভালো বোলিং করেছি এবং ভালো লাগছে।” পাঁচটি টেস্ট খেলা তাইজুল নিজেকে এই সংস্করণের বিশেষজ্ঞ বোলার মনে করেন না। তার বিশ্বাস, সুযোগ পেলে দুই ধরনের ক্রিকেটেই ভালো করবেন তিনি। প্রথম স্পেলে ৫ ওভার বল করে ১১ রান দেন তাইজুল। দ্বিতীয় স্পেলের প্রথম বলেই সলোমন মায়ারকে আউট করে নিজের প্রথম ওয়ানডে উইকেট নেন তিনি। সেই ওভারের শেষ বলে ফেরান টিনাশে পানিয়াঙ্গারাকে। নিজের পরের ওভারের প্রথম বলে জন নিউম্বুকে এলবিডব্লিউর ফাঁদে ফেলে হ্যাটট্রিকের সম্ভাবনা জাগান তাইজুল। নতুন ব্যাটসম্যান ক্রিজে আসার আগে সিনিয়র ক্রিকেটাররা নানা পরামর্শ দেন তাইজুলকে। এর মধ্যে মুশফিকুর রহিম বলেছিলেন স্টাম্প বরাবর বল করতে। টেন্ডাই চাটারা স্লগ সুইপ করতে চেয়েছিলেন। ব্যাটে লাগাতে পারেননি, বল সোজা গিয়ে স্টাম্প ভেঙে দেয়। “মুশফিক ভাই বলেছিলেন, স্টাম্পে বল করতে। স্টাম্পে করলে উইকেটের সুযোগ বেশি থাকে। আমিও স্টাম্পে করেছি, বাকিটা হয়ে গেছে।” লিস্ট ‘এ’ বা প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে এর আগে কোনো হ্যাটট্রিক ছিল না তাইজুলের। সেই তাইজুলই কী না হ্যাটট্রিক করে ক্রিকেটের রেকর্ড বইয়ে খুললেন নতুন একটি পাতা।

আর্কাইভ