শুক্রবার, ১৯ জানুয়ারী ২০১৮রেজি:/স্মারক - ০৫.৪২.৫১০০.০১৪.৫৫.০৩৭.১২-৫৬২
Menu

সার্ক শীর্ষ সম্মেলনে যোগ দিতে মঙ্গলবার নেপাল যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী

সার্ক শীর্ষ সম্মেলনে যোগ দিতে মঙ্গলবার নেপাল যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী

ঢাকা,অফিস:
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আসন্ন অষ্টাদশ দক্ষিণ এশিয় আঞ্চলিক সহযোগিতা সংস্থার (সার্ক) শীর্ষ সম্মেলনে যোগদানের জন্য আগামি মঙ্গলবার নেপালের রাজধানী কাঠমান্ডুর উদ্দেশ্যে ঢাকা ত্যাগ করবেন। দু’দিনব্যাপী সার্ক শীর্ষ সম্মেলন আগামী ২৬ নভেম্বর কাঠমান্ডুর ভ্রীকুটি মন্ডপে অবস্থিত রাষ্ট্রিয় সভাগৃহে (নগর মিলনায়তন) শুরু হবে। অষ্টাদশ সার্ক শীর্ষ সম্মেলনের মূল প্রতিপাদ্য নির্ধারণ করা হয়েছে ‘শান্তি ও সমৃদ্ধির জন্য আরও ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক’। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, বাংলাদেশ বিমানের একটি ভিভিআইপি ফ্লাইটে মঙ্গলবার বিকাল তিনটায় প্রধানমন্ত্রী ও তাঁর সফর সঙ্গীরা হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ত্যাগ করবেন। ফ্লাইটটি নেপালের স্থানীয় সময় চারটা ১৫ মিনিটে কাঠমান্ডুর ত্রিভুবন আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরে অবতরণ করবে। বিমানবন্দরে উষ্ণ অভ্যর্থনা শেষে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীকে এক আনুষ্ঠানিক মোটর শোভাযাত্রা সহকারে হোটেল ক্রাউন প্লাজা সোয়েলটি- কাঠমান্ডুতে নিয়ে যাওয়া হবে। নেপাল সফর কালে তিনি সেখানে অবস্থান করবেন।২৬ নভেম্বর অষ্টাদশ সার্ক সম্মেলনের উদ্বোধনী অধিবেশনে সার্ক-এর অন্য সদস্য দেশগুলোর রাষ্ট্র ও সরকার প্রধানদের মতো বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উপস্থিত থাকবেন ও ভাষণ দিবেন। এছাড়াও, মঞ্চে নিজ নিজ আসন গ্রহনের আগে তাঁরা ফটোসেশনে অংশ নিবেন। প্রথমদিন সম্মেলনের পাশাপাশি বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নেপালের প্রধানমন্ত্রী সুশীল কৈরালা, আফগানিস্তানের প্রেসিডেন্ট ড. আশরাফ ঘানি এবং মালদ্বীপের প্রেসিডেন্ট আবদুল্লাহ ইয়ামিন আবদুল গাইয়ুম- এর সাথে বৈঠক করবেন বলে আশা করা হচ্ছে। এছাড়াও, ওইদিন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী অন্যান্য দেশের রাষ্ট্র ও সরকার প্রধানদের সাথে হোটেল ক্রাউন প্লাজা সোয়েলটিতে নেপালের প্রধানমন্ত্রীর আয়োজিত ভোজসভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে অংশগ্রহন করবেন। ২৭ নভেম্বর বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং অন্য রাষ্ট্র ও সরকার প্রধানরা অবকাশের জন্য হেলিকপ্টার যোগে নেপালের অন্যতম পর্যটনকেন্দ্র ধুপিখেল - এ যাবেন। একইদিন, ধুপিখেল থেকে ফিরে তাঁরা শীর্ষ সম্মেলনের সমাপনী অনুষ্ঠানে যোগদান করবেন। অন্য রাষ্ট্র ও সরকার প্রধানদের সাথে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কাঠমান্ডুর রাষ্ট্রপতি ভবনে নেপালের প্রেসিডেন্ট ড. রামবরন যাদবের সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন। তাঁরা নেপালের রাষ্ট্রপতির দেয়া ভোজসভায়ও যোগদান করবেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আগামী ২৮ নভেম্বর দুপুর ১২টা পাঁচ মিনিটে দেশে ফিরবেন বলে আশা করা হচ্ছে। এদিকে, গত মঙ্গলবার এক সংবাদ সম্মেলনে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এএইচ মাহমুদ আলী বলেন, যুব উন্নয়ন, দারিদ্র্য বিমোচন, কানেকটিভিটি, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি, জলবায়ু পরিবর্তন, শিক্ষা, নারীর ক্ষমতায়ন, খাদ্য নিরাপত্তা এবং সন্ত্রাসবাদ প্রতিরোধ- আঞ্চলিক সহযোগিতার ১০টি মৌলিক বিষয়ের প্রতি ঢাকা গুরুত্বারোপ করবে। বাংলাদেশ জনগণের কল্যাণ নিশ্চিত করার লক্ষ্যে সার্ককে আরও কার্যকর একটি মঞ্চ হিসেবে দেখতে চায় উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘আমরা সার্ক-এ গৃহিত সিদ্ধান্তসমূহ যথাসময়ে এবং প্রকৃত বাস্তবায়ন করার উপর গুরুত্বারোপ করবো।’ মাহমুদ আলী বলেন, আটটি দক্ষিণ এশীয় দেশ- সদস্য রাষ্ট্রগুলোর মধ্যে যাত্রী ও মালবাহী গাড়ি চলাচলের জন্য ‘সার্ক ভেহিক্যালস এগ্রিমেন্ট’, ‘সার্ক রিজিওনাল রেলওয়ে এগ্রিমেন্ট’ এবং ‘সার্ক ফ্রেমওয়ার্ক এগ্রিমেন্ট ফর এনার্জি কোঅপারেশন (বিদ্যুৎ)’ স্বাক্ষর করবে বলে আশা করা হচ্ছে। তিনি বলেন, এ চুক্তিগুলো স্বাক্ষরিত হলে সার্ক দেশগুলোর মধ্যে পণ্য পরিবহন ও জনগণের চলাচল সহজ হবে এবং জ্বালানি খাতে সহযোগিতা জোরদার হবে। সদস্য রাষ্ট্রগুলোর দ্বিপাক্ষিক ও বহুপাক্ষিক সম্পর্কও জোরদার হবে বলে মাহমুদ আলী উল্লেখ করেন। দক্ষিণ এশীয় আঞ্চলিক সহযোগিতা সংস্থা (সার্ক)- দক্ষিণ এশিয়ার আটটি দেশের অর্থনৈতিক ও ভূ-রাজনৈতিক সংগঠন। দক্ষিণ এশিয়ায় আঞ্চলিক রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক সহযোগিতার বিষয়টি প্রথম ১৯৮০ সালে উত্থাপন করা হয়। পরবর্তীতে ১৯৮৫ সালের ০৮ ডিসেম্বর ঢাকায় শীর্ষ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয় এবং বাংলাদেশ, ভুটান, ভারত, মালদ্বীপ, নেপাল, পাকিস্তান ও শ্রীলঙ্কার সরকারগুলো সার্ক প্রতিষ্ঠা করে। পরে সার্কের পূর্ণাঙ্গ নতুন সদস্য হয় আফগানিস্তান। এছাড়াও রয়েছে কয়েকটি পর্যবেক্ষক রাষ্ট্র।

আর্কাইভ