শুক্রবার, ১৯ জানুয়ারী ২০১৮রেজি:/স্মারক - ০৫.৪২.৫১০০.০১৪.৫৫.০৩৭.১২-৫৬২
Menu

সরকার ও বিরোধী দলের কাছে প্রত্যাশা দেশের মানচিত্র ও পতাকায় কেউ যেন আঘাত করতে না পারে

 সরকার ও বিরোধী দলের কাছে প্রত্যাশা দেশের মানচিত্র ও পতাকায় কেউ যেন আঘাত করতে না পারে

মিজানুর রহমান চৌধুরী
সরকার বৈধ কি অবৈধ সেটা এখন মুখ্য বিষয় নয়। বিএনপি এবং ২০ দলীয় জোটের নাম সর্বস্ব দলগুলোর নেতাদের চেহারা এবং বক্তৃতা শুনে বঞ্চিত জনতা এখন আর বিশ্বাস রাখে না। কারণ অনেক নেতা দিনের বেলায় বিএনপির মিছিলে অভিনয় করলেও রাতের বেলায় হামলা, মামলা , নির্যাতন এবং গুম থেকে বাঁচার জন্য সুবিধাবাদী হয়ে আওয়ামী লীগের প্রভাবশালীদের সাথে সু-সম্পর্ক রক্ষা করে চলছেন। সাধারণ জনগণ কিন্তু বঞ্চনার কারণে সরকার বিরোধী হলেও তারা সরকার বিরোধী কোন কর্মসূচীতে আগ্রহী হচ্ছে না। এদিকে বিএনপির ভিতরে যারা ভারত বিরোধীতার রাজনীতি করতো তারা এখন ভারতের মোদী সরকারের সমর্থন তাদের পক্ষে আছে বলে প্রচার করাতে জনমনে বিএনপির প্রতি আস্থা আরো কমে গেছে। এ সুযোগে সরকারী দল জাপান, আমেরিকা, চীন, থাইল্যান্ড বিভিন্ন দেশের সাথে সুসম্পর্ক গড়ে তুলতে সক্ষম হয়েছে। ভারতের সমর্থন লাভের রাজনৈতিক কূটকৌশলে বিএনপির কিছু কিছু নেতাকে ভারতের দালালিতে ব্যস্ত করে দিতে সক্ষম হয়েছে। এহেন প্রেক্ষাপটে সরকারের বিরুদ্ধে বিএনপির গরম গরম বক্তৃতা জনগণকে কোন আকর্ষণ করতে পারছে না। তবে সরকারে জনবিচ্ছিন্ন বিভিন্ন কর্মকাণ্ডে সাধারণ জনমনে হতাশা তো আছেই। সবকিছুর পরেও দেশের স্বাধীনতা সার্বভৌমত্বের প্রশ্নে রাজনৈতিক দল ও সরকারি দলকে একিই কক্ষপথে হাঁটতে হবে। দেশপ্রেমিক জনগণের এটাই প্রত্যাশা। শুধু জোর করে ক্ষমতায় থাকার টেনশন ছেড়ে দিয়ে সরকারকে দেশের অগ্রগতি, উন্নয়ন ও সুনাম রক্ষায় কঠোর মনোযোগ দিতে হবে। মনে রাখতে হবে আমাদের মানচিত্র ও পতাকায় কেউ যেন আঘাত করতে না পারে। সরকার ও বিরোধী দল সকলের কাছে এটাই জনগণের প্রত্যাশা।

আর্কাইভ