শুক্রবার, ১৯ জানুয়ারী ২০১৮রেজি:/স্মারক - ০৫.৪২.৫১০০.০১৪.৫৫.০৩৭.১২-৫৬২
Menu

মহানবীর (সা:) রওজা শরীফ নিয়ে সৌদি শাসকদের স্বেচ্ছাচারীতা বিশ্ব মুসলিম রুখে দেবে

মহানবীর (সা:) রওজা শরীফ নিয়ে সৌদি শাসকদের স্বেচ্ছাচারীতা বিশ্ব মুসলিম রুখে দেবে

স্থানীয় একটি পত্রিকায় প্রকাশিত শিরোনামে বলা হয়েছে ‘রওজা ভেঙ্গে সরিয়ে ফেলা হবে নবীজি (দ:)কে।’ যুক্তরাজ্যের দৈনিক দ্য ইন্ডিপেন্ডেন্ট ও ডেইলী মেইল পত্রিকার প্রতিবেদন উদ্ধৃত করে স্থানীয় দৈনিক পূর্বদেশ পত্রিকার ডেস্ক রিপোর্ট এ সংক্রান্ত খবর প্রকাশ করেছে। এটি এমন একটি খবর যা সমগ্র বিশ্ব মুসলিমকে হৃদয়ে আঘাত দেবে। খবরে বলা হয়েছে, মুসলিম সম্প্রদায়ের অন্যতম পবিত্র তীর্থভূমি মহানবী (স:) এর সমাধিক্ষেত্র ভেঙ্গে তার দেহাবশেষ অজ্ঞাত স্থানে সরিয়ে নেয়ার একটি প্রস্তাব দেয়া হয়েছে সৌদি আরবে। এ সংক্রান্ত প্রস্তাবটি মদিনার মসজিদে নব্বী পরিচালনা কমিটির কাছে পাঠানো হয়েছে বলে জানানো হয়। গুরুত্বের দিক দিয়ে পবিত্র কাবা শরীফের পরই মসজিদে নব্বী ও রওজা মোবারক মুসলিম বিশ্বের কাছে পরম শ্রদ্ধার স্থান। দো জাহানের বাদশা কঠিন হাশরের দিনের আমাদের কান্ডারী হুজুরে পাক (স:) এখানে সমাহিত হওয়ার কারণে এর মর্যাদা আরো বেশী। প্রচলিত নিয়ম অনুযায়ী সৌদি বাদশা এর অভিভাবক। কিন্তু রাসুলে পাক (স:) এর রওজা মোবারকে হাত দেয়ার কোন নৈতিক ক্ষমতা সৌদি বাদশার আছে কিনা এ প্রশ্ন একজন মুসলিম  হিসেবে করতেই পারি। রাসুলে পাক হযরত মুহম্মদ (স:) এর সৃষ্টি, নবুয়ত ও ওফাত স্বয়ং আল্লাহ্ রাব্বুল আলামীন এর সরাসরি তত্ত্বাবধানে হয়েছে। তাঁর দুনিয়ার জিন্দেগী শেষ হবার পর তিনি আল্লাহ্র নির্দেশেই বর্তমান রওজা শরীফের স্থানে সমাহিত হন। রাসুল (স:) এর জীবনের অনেক স্মৃতির সাথে ওফাতের পর দাফনও ভিন্নভাবে হয়েছে। আর দশজন মৃতের মত রাসুল (স:) এর জানাজা হয় নি। কারণ, তিনি হায়াতুল মোরসালিন তথা জিন্দা নবী। রাসুল পাক এর রওজা সরিয়ে নেয়ার পরিকল্পনা যারা করছে তারা কাফের-মুশরেক অপেক্ষাও জঘন্য বলে আমরা মনে করি। রাসুল পাক (স:) এর কবরের পাশে তাঁর সবচেয়ে ঘনিষ্ঠ সহচর ইসলামের প্রথম খলিফা হযরত আবু বকর সিদ্দিক (রা:) এর কবর। আমরা যতদূর জানি, রওজা পাকের সাথে একটি কবরের জায়গা খালি আছে- যাতে কেয়ামতের আগে হযরত ঈশা (আ:) কে এখানে সমাহিত করা হবে। এ সত্য আমরা হাদিস মারফত পাই। রাসুল (স:) বলেছেন, ‘কোন ব্যক্তি হজ্ব পালন শেষে মদিনায় আমাকে জিয়ারত করলে সে যেন আমার সাথে জীবিত অবস্থায় সাক্ষাৎ করল’। যে নবী না হলে আল্লাহ্ কোন কিছুই সৃষ্টি করতেন না, সেই নবীর সাথে আল্লাহ্ নিজের জালালী নাম জুড়ে দিয়েছেন- সেই নবীজির (স:) রওজা শরীফকে অন্যত্র সরানোর মত দু:সাহস সৌদি শাসকদের কি করে হয় ? সৌদি শাসকরা মুসলিম বিশ্বের ধ্বংস ডেকে আনার পাশাপাশি মুসলিম হৃদয়ে আঘাত হানছে। একজন মুসলিম হিসেবে সৌদি বাদশার প্রতি আমরা ধিক্কার জানাই। জীবনে যদি সবকিছু হারিয়ে যায় পরোয়া করব না। কিন্তু নবীর (স:) শানে বেয়াদবি করলে সৌদি শাসকদেরকে বিন্দুমাত্র ছাড় দেয়া হবে না। সবশেষে বলব, তোমরা ইসলামী বিশ্বের অনেক ক্ষতি করেছ- নবীর (স:) রওজায় হাত বাড়ানোর চেষ্টা থেকে বিরত থাক।

আর্কাইভ