বুধবার, ১৭ জানুয়ারী ২০১৮রেজি:/স্মারক - ০৫.৪২.৫১০০.০১৪.৫৫.০৩৭.১২-৫৬২
Menu

অধিবেশন কক্ষে মোবাইল নেটওয়ার্কের প্রয়োজন নেই : আবদুল লতিফ সিদ্দিকী

অধিবেশন কক্ষে মোবাইল নেটওয়ার্কের প্রয়োজন নেই : আবদুল লতিফ সিদ্দিকী



ঢাকা অফিস : সংসদ ভবনের অধিবেশন কক্ষে মোবাইল নেটওয়ার্ক থাকার কোনো প্রয়োজন নেই বলে সংসদকে জানিয়েছেন ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী আবদুল লতিফ সিদ্দিকী।
বুধবার দশম জাতীয় সংসদের তৃতীয় অধিবেশনে সংসদ সদস্য শামীম ওসমানের এক সম্পূরক প্রশ্নের উত্তরে মন্ত্রী এ তথ্য জানান।
তিনি বলেন, ‘জনগণ এই পবিত্র সংসদে আমাদের পাঠিয়েছেন দেশের উন্নয়নের কথা নিয়ে আলোচনার জন্য। বাইরের কোনো কিছুর সঙ্গে যোগাযোগ স্থাপনের জন্য এখানে পাঠায়নি। তাই সংসদ চলা অবস্থায় মোবাইল নেটওয়ার্কের কোনো প্রয়োজন নাই।’
মো. সোহরাব উদ্দিনের এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, আগামী বছর দেশের প্রতিটি জেলা সদর এলাকায় ৩-জি নেটওয়ার্ক বসানো সম্ভব হবে। টেলিটক বাংলাদেশ লিমিটেডের ‘৩-জি প্রযুক্তি চালুকরণ ও ২.৫-জি নেটওয়ার্ক সম্প্রসারণ’ শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় ১৭ দশমিক ২৮ লাখ ৩-জি গ্রাহক সংযোগ ক্ষমতাসম্পন্ন ৩-জি মোবাইল নেটওয়ার্ক বাস্তবায়নের জন্য সারাদেশে এক হাজার ৫৬২টি নোড’বি (৩-জি বিটিএস) বসানো হচ্ছে।
মন্ত্রী বলেন, ইতোমধ্যে ৭টি বিভাগীয় শহরসহ মোট ২৪টি জেলা সদর এলাকায় এক হাজার ১৯৫টি নোড’বি (৩-জি বিটিএস) বসানো হয়েছে। আগামী সেপ্টেম্বর মাসে আরো ২১টি জেলা সদর এলাকায় তা বসানো সম্ভব হবে। এছাড়া দেশের অন্যান্য জেলাসহ গুরুত্বপূর্ণ গ্রোথ সেন্টার ও উপজেলায় ৩-জি নেটওয়ার্ক বাস্তবায়নসহ উল্লিখিত জেলাশহরসমূহে ৩-জি নেটওয়ার্ক আরো শক্তিশালী করার জন্য নতুন প্রকল্প প্রস্তাবনা তৈরি করা হয়েছে।
মোহাম্মদ ইলিয়াছের প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, সরকারি ডাক সেবা খাতকে আরো উন্নত ও জনসেবা উপযোগী করার জন্য ডাক বিভাগ ইলেক্ট্রনিক মানি ট্রান্সফার সার্ভিস প্রবর্তন, পোস্টাল ক্যাশ কার্ড চালুকরণ, আইপিএস লাইট (ট্র্যাক অ্যান্ড ট্র্যাসিং) চালুকরণসহ মোট ৮টি কার্যক্রমসূহের বাস্তবায়ন কাজ চলমান রয়েছে। এছাড়া ‘ডাক পরিবহণ ব্যবস্থা শক্তিশালীকরণ’ শীর্ষক একটি উন্নয়ন প্রকল্প সরকারের ডাক বিভাগ গ্রাহকদের উন্নত সেবা দিচ্ছে।
একই প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, বেসরকারি ডাকসেবা খাতকে জবাবদিহিতার মধ্যে আনার জন্য ২০১০ সালে দি পোস্ট অফিস অ্যাষ্ট এর সেকশন ৪ সংশোধন করে কুরিয়ার সার্ভিসের নিয়ন্ত্রণ ও জবাবদিহিতার জন্য পোস্ট অফিস (সংশোধন) আইন-২০১০ প্রণয়ন করা হয়। আইনের সেকশন ৪ সি (৩) এ ক্ষমতাবলে সরকার মেইল অপারেটর ও কুরিয়ার সার্ভিস বিধিমালা, ২০১১- প্রণয়ন করে। এ বিধিমালায় অনিয়মতান্ত্রিকভাবে পরিচালিত মেইলিং অপারেটর ও কুরিয়ার সার্ভিস প্রতিষ্ঠানকে জনস্বার্থে বিধিবদ্ধ আইনের আওতায় এনে বৈধভাবে ব্যবসা করার সুযোগ প্রদান করে। এ বিধিমালা অনুসারে এ মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিবের নেতৃত্বে তিন সদস্যবিশিষ্ট একটি লাইসেন্সিং কর্তৃপক্ষ গঠন করা হয়েছে।
তিনি আরো জানান, লাইসেন্সিং কর্তৃপক্ষ এ পর্যন্ত ১১৩টি প্রতিষ্ঠানের অনুকূলে লাইসেন্স ইস্যু করেছে। ৪৭টি আর্ন্তজাতিক ও ৫২টি অভ্যন্তরীণ মেইল অপারেটর ও কুরিয়ার সার্ভিস প্রতিষ্ঠানের লাইসেন্স বাবদ মোট ৬৮ লাখ ৮৫ হাজার টাকা রাষ্ট্রীয় কোষাগারে জমা হয়েছে। লাইসেন্স ফি’র উপর ১৫ শতাংশ সংযোগ কর জমা করা হয়েছে। এছাড়া নিরাপত্তা জামানত হিসাবে লাইসেন্স গ্রহণকারী প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে পাঁচ কোটি ২৯ লাখ টাকা মূল্যমানের ব্যাংক গ্যারান্টি পাওয়া গেছে।
বেগম সালমা ইসলামের এক প্রশ্নের উত্তরে মন্ত্রী বলেন, ‘দেশে বর্তমানের মোবাইল ফোন অপারেটর কোম্পানিগুলোর গড় কলরেট প্রতি মিনিট ৮৩ পয়সা করে, যা ২০০১ সালে ছিলো নয় টাকা ৬০ পয়সা করে। দেশের মোবাইল কোম্পানিগুলোর কলচার্জ এক করার কোনো পরিকল্পনা আপাততঃ নাই। আন্তর্জাতিক টেলিকমিউনিকেশন্স ইউনিয়নের সহায়তায় একটি কস্ট মডেলিং প্রকল্পের মাধ্যমে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন হতে মোবাইল ফোনের কলরেট সর্বনি¤œ প্রতি মিনিট ২৫ থেকে সর্বোচ্চ প্রতি মিনিট ২ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। এছাড়াও ১০ সেকেন্ড পালস্ চালুর ফলে গ্রাহকরা কথা বলায় অনেক বেশি স্বাধীনতা ভোগ করছেন।’





আর্কাইভ