মঙ্গলবার, ১৬ জানুয়ারী ২০১৮রেজি:/স্মারক - ০৫.৪২.৫১০০.০১৪.৫৫.০৩৭.১২-৫৬২
Menu

বেতন নিচ্ছেন তোবার শ্রমিকরা

বেতন নিচ্ছেন তোবার শ্রমিকরা

ঢাকা অফিস : তোবা গ্রুপের পাঁচটি গার্মেন্টস শ্রমিকদের জুলাই মাসের বেতন ও গত তিন মাসের ওভারটাইমের টাকা দেওয়া শুরু হয়েছে। রোববার দুপুর একটা ৫৫ মিনিট থেকে বিজিএমইএ ভবনের নিচতলায় সাতটি বুথের মাধ্যমে শ্রমিকদের এ অর্থ দেওয়া হচ্ছে। বেতন ও ওভারটাইমের টাকা নিতে তোবার পোশাক মালিকদের শ্রমিকদের বেশ ভিড় লক্ষ করা গেছে। এর আগে দুপুর সাড়ে ১২টা থেকে বিজিএমইএ ভবনের সামনে বেতন নিতে শ্রমিকেরা লাইনে দাঁড়াতে শুরু করেন। দুইটার আগেই অন্তত পাঁচ শতাধিক শ্রমিককে লাইনে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা যায়। এর আগে মে, জুন ও জুলাই মাসের বকেয়া বেতন-ভাতা ও ওভারটাইমের অর্থের দাবিতে গার্মেন্টস শ্রমিক ঐক্য ফোরামের সভাপতি মোশরেফা মিশুর নেতৃত্বে ঈদের আগের দিন রাত থেকে অনশন শুরু করেন তোবা গ্রুপের শ্রমিকেরা। অনশনের মধ্যেই গত বুধ ও বৃহস্পতিবার শ্রমিকদের দুই মাসের বেতন দেওয়া হয়। তবে বৃহস্পতিবার দুপুরে বাড্ডার হোসেন মার্কেটে বেতন ভাতার দাবিতে অনশনকারীদের টিয়ার গ্যাসের শেল ছুড়ে ও লাঠিপেটা করে উচ্ছেদ করা হয়।
ওইদিন দেশব্যাপী পোশাক কারখানায় ধর্মঘট ডাকে তোবা গ্রুপ শ্রমিক সংগ্রাম কমিটি। এদিকে, বিজিএমইএ সূত্রে জানা গেছে, ঈদের পর গত ৪ জুলাই বিজিএমইএতে অনুষ্ঠিত এক ত্রিপক্ষীয় বৈঠকে প্রথম দফায় দুই মাসের বেতন, নির্ধারিত সময়ে জুলাই মাসের বেতন ও অবিলম্বে অন্যান্য পাওনা দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়। দুই মাসের বেতনের টাকা বিজিএমইএ’র মধ্যস্থতায় ব্যবস্থা করে দেওয়ার ঘোষণা দেওয়া হয়েছিল তখন। সে অনুযায়ী দুই মাসের বেতন দিয়েছে বিজিএমইএ। এবার তোবা গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক দেলোয়ার হোসেন বাকি টাকার ব্যবস্থা করেন।
এদিকে, শনিবার বিকেলে সংসদ ভবনে নৌপরিবহনমন্ত্রীর কার্যালয়ে দেলোয়ার হোসেনের সঙ্গে বৈঠক করেন নৌমন্ত্রী শাজাহান খান, শ্রম প্রতিমন্ত্রী মুজিবুল হক চুন্নু, বিজিএমইএয়ের সভাপতি আতিকুল ইসলাম, সহ-সভাপতি এস এম মান্নান কচি, শহীদুল্লাহ আজিম, রিয়াজ বিন মাহমুদ ও বিজিএমইএর শ্রমিককল্যাণ সংক্রান্ত স্থায়ী কমিটির চেয়ারম্যান আবদুল আহাদ আনসারী।
বৈঠক থেকে বেরিয়ে সংসদ সদস্য ক্লাবে শ্রমিক নেতাদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন তারা। তবে ওই সভায় দেলোয়ার হোসেন ছিলেন না।
ওই সভায় কয়েকটি বাম রাজনৈতিক দলের শ্রমিক সংগঠনের নেতারাও উপস্থিত ছিলেন, যারা তোবা গ্রুপের শ্রমিক আন্দোলনের নেতৃত্ব দিয়েছিলেন।
উপস্থিত নেতারা সাংবাদিকদের কাছে জুলাই মাসের বেতন ও ওভারটাইম দেওয়ার সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানান। তবে বোনাস দেওয়া, কারখানা চালু রাখা ও শ্রমিকদের হয়রানি না করারও আহ্বান জানান তারা।

আর্কাইভ