শুক্রবার, ১৯ জানুয়ারী ২০১৮রেজি:/স্মারক - ০৫.৪২.৫১০০.০১৪.৫৫.০৩৭.১২-৫৬২
Menu

চীনের উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রীর ঢাকা ত্যাগ

চীনের উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রীর ঢাকা ত্যাগ

ঢাকা অফিস : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজ সকালে ছয় দিনের সরকারি সফরে চীনের উদ্দেশে ঢাকা থেকে কুনমিং রওয়ানা হয়েছেন। চীনের প্রধানমন্ত্রী লি কেকিয়াংয়ের আমন্ত্রণে তিনি এই সফর করছেন ।
বাংলাদেশ বিমানের একটি ভিভিআইপি ফ্লাইটযোগে প্রধানমন্ত্রী ও তাঁর সফরসঙ্গীরা সকাল ৭টা ৩৫ মিনিটে হজরত শাহ্জালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে চীনের উদ্দেশে রওয়ানা দেন।প্রধানমন্ত্রীকে বিদায় জানাতে বিমানবন্দরে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত, শিল্পমন্ত্রী আমীর হোসেন আমু, স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম এবং বেসামরিক বিমান ও পর্যটনমন্ত্রী রাশেদ খান মেনন উপস্থিত ছিলেন। এছাড়া, মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া, তিন বাহিনীর প্রধানগণ, ঢাকায় নিযুক্ত চীনের রাষ্ট্রদূত এবং উচ্চপদস্থ সামরিক ও বেসামরিক কর্মকর্তারা বিমানবন্দরে উপস্থিত ছিলেন।ফ্লাইটটি স্থানীয় সময় সকাল সাড়ে ১১টায় কুনমিং চাংশুই আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরে অবতরণ করার কথা রয়েছে।চীনে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত আজিজুল হক এবং চীনা সরকারের প্রতিনিধিরা বিমানবন্দরে প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগত জানাবেন। বিমানবন্দর থেকে শেখ হাসিনাকে গ্রীন লেক হোটেলে নেয়া হবে। কুনমিং সফরকালে সেখানেই তিনি অবস্থান করবেন। সরকারি সূত্র জানায়, বাংলাদেশ ও চীনের প্রধানমন্ত্রীর মধ্যে আগামী ৯ জুন বেইজিংয়ে গ্রেট হল অব পিপল-এ আনুষ্ঠানিক আলোচনা অনুষ্ঠিত হবে। আলোচনার পর তিনি লি কাকিয়াংয়ের সঙ্গে একটি যৌথ ইস্তেহার স্বাক্ষর করবেন।প্রধানমন্ত্রীর সম্মানে গ্রেট হল অব পিপল-এ একটি সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হবে। সেখানে তাঁকে গার্ড অব অনার প্রদান করা হবে। শেখ হাসিনা লি কাকিয়াং আয়োজিত একটি ভোজসভায় অংশ নেবেন।
এ সফরের প্রথম ধাপে প্রধানমন্ত্রী কুনমিংয়ে কাটাবেন এবং সেখান থেকে তিনি রোববার চীনের রাজধানী বেইজিংয়ের উদ্দেশ্যে রওনা হবেন।
শেখ হাসিনা আজ কুনমিংয়ে দ্বিতীয় চায়না-সাউথ এশিয়া এক্সপোর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকবেন এবং ইউনান প্রদেশের গভনর্র লি জিহেং আয়োজিত এক ভোজসভায় যোগ দেবেন। প্রধানমন্ত্রী আগামী ৭ জুন নবম চায়না-সাউথ এশিয়া বিজনেস ফোরামে মূলবক্তা হিসেবে উপস্থিত থাকবেন। পরে তিনি স্টোন ফরেস্ট পরিদর্শন করবেন। সন্ধ্যায় ইউনান প্রদেশের গর্ভনর তার পূর্বসূরীকে সঙ্গে নিয়ে তাঁর হোটেল স্যুটে সৌজন্য সাক্ষাৎ করবেন। বেইজিংয়ে তিনি আগামী ৮ জুন মনুমেন্ট অব দি পিপলস হিরোজ-এ পুষ্পস্তবক অর্পণ করবেন। তিনি বেইজিং চাওয়াং থিয়েটার এ্যান্ড এ্যাক্রোবেটিক ওয়ার্ল্ডও পরিদর্শন করবেন।
আগামী ৯ জুন প্রধানমন্ত্রী চায়না ইনস্টিটিউট অব ইন্টারন্যাশনাল স্টাডিজে (সিআইআইএস) এক সেমিনারে মূলবক্তা হিসেবে বক্তব্য দেবেন। তিনি আগামী ১০ জুন বেইজিংয়ে বাংলাদেশ চায়না ট্রেড এ্যান্ড ইকোনমিক কো-অপারেশন ফোরামে ভাষণ দেবেন।
তিনি চীনের প্রেসিডেন্ট জি জিনপিংয়ের সঙ্গে সাক্ষাত করবেন এবং গ্রেট হল অব পিপল-এ চাইনিজ পিপলস পলিটিক্যাল কনসালটেটিভ কনফারেন্সের চেয়ারম্যান উ ঝেংশেংয়ের সঙ্গে বৈঠক করবেন।
সফরকালে প্রধানমন্ত্রী সিসিটিভি, ফনিক্স টিভি, ইউনান টিভি ও চায়না রেডিও ইন্টারন্যাশনালের বাংলা বিভাগকে সাক্ষাৎকার দেবেন। এছাড়া চীনের কমিউনিকেশন ইউনিভার্সিটির বাংলা বিভাগের ছাত্রছাত্রীদের আয়োজিত সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানেও তিনি যোগ দেবেন।
প্রধানমন্ত্রী আগামী ১১ জুন হংকং হয়ে দেশে ফিরবেন।
পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একটি সূত্র জানায়, শেখ হাসিনার চীন সফরকালে প্রধানমন্ত্রী পর্যায়ে আলোচনায় সর্বোচ্চ গুরুত্ব পাবে সোনাদিয়া দ্বীপ সমুদ্রবন্দর নির্মাণে চীনের সহযোগিতা। পাশাপাশি বাংলাদেশের ছয়টি মেগা প্রজেক্ট যথা : পটুয়াখালীর কলাপাড়া উপজেলায় ১৩২০ মেগাওয়াট কয়লাচালিত বিদ্যুৎ কেন্দ্র প্রকল্প , ন্যাশনাল আইসিটি ইনফরমেশন নেটওয়ার্ক ফর বাংলাদেশ গভর্ণমেন্ট ফেস-৩, রাজশাহী ওয়াসা ওয়াটার ট্রিটমেন্ট প্লান্ট, কর্ণফুলী নদীতে কনস্ট্রাকশন অব মাল্টি-লেন ভিত্তিক টানেল, চট্টগ্রামের কালুরঘাটে কর্ণফুলী নদীর ওপর দ্বিতীয় রেল ও সড়ক সেতু নির্মাণ এবং চট্টগ্রাম-রামু-কক্সবাজার ও রামু-গুনধুম রেলপথ নির্মাণ প্রকল্প বাস্তবায়নে চীনের সহায়তা চাওয়া হবে।
সরকারি কর্মকর্তারা বলেন, প্রধানমন্ত্রীর এই সফরের মূল উদ্দেশ্য হচ্ছে- দ্বিপক্ষীয়, আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক ফোরামে বাংলাদেশের স্বার্থরক্ষার বিভিন্ন ইস্যুতে চীনের নতুন নেতৃত্বের সঙ্গে আলোচনা।
প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ৭০ সদস্যের একটি ব্যবসায়ী প্রতিনিধিদলও রয়েছে।
চীনের সঙ্গে বাংলাদেশের কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপনের ৪০ বছর পূর্ণ হবে আগামী বছর। প্রধানমন্ত্রীর এই সফর চীনের সঙ্গে সম্পর্ক জোরদারে উলে¬খযোগ্য ভূমিকা রাখবে।

আর্কাইভ