শুক্রবার, ১৯ জানুয়ারী ২০১৮রেজি:/স্মারক - ০৫.৪২.৫১০০.০১৪.৫৫.০৩৭.১২-৫৬২
Menu

কণ্ঠশিল্পী বশির আহমেদ আর নেই

কণ্ঠশিল্পী বশির আহমেদ আর নেই

বিনোদন ডেস্ক :
সজনী গো ভালোবেসে এত জ্বালা কেন বল না…, আমাকে পোড়াতে যদি এতো লাগে ভালোসহ অসংখ্য জনপ্রিয় গানের সুরকার ও গীতিকার বাংলাদেশের সংগীত জগতের কিংবদন্তি শিল্পী বশির আহমেদ আর নেই (ইন্না ইল্লাহি…….রাজেউন)। শনিবার রাত পৌনে ১০টার দিকে রাজধানীর মোহাম্মদপুরে বাবর রোডের নিজবাসায় ইন্তেকাল করেন তিনি। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৭৫ বছর। ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে তিনি মারা যান। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, এক ছেলে, এক মেয়েসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। তার স্ত্রীর নাম মীনা বশির, ছেলের নাম রাজা বশির ও মেয়ের নাম হুমায়রা বশির। বোরবার সকালে নামাজের জানাজা শেষে মোহাম্মদপুর কেন্দ্রীয় কবরস্থানে তাকে দাফন করা হবে। বশির আহমেদ ১৯৩৯ সালে কলকাতায় জন্মগ্রহণ করেন। খুব ছোটবেলা থেকেই তিনি সঙ্গীত পাগল ছিলেন। মাত্র ১৫ বছর বয়সে তিনি ওস্তাদ বেলায়েত হোসেন’র কাছে সংগীত চর্চা শুরু এরপর তিনি বোম্বে (বর্তমান মুম্বাই) চলে যান, সেখানে উপমহাদেশের প্রখ্যাত ওস্তাদ বড়ে গোলাম আলী খাঁর কাছে তালিম নেন। তার কাছ থেকে বশির আহমেদ প্রচুর অনুপ্রেরণা পেয়েছেন। তিনি ছিলেন একজন কবি এবং গীতিকার। চলচ্চিত্র নির্মাতা মোস্তাফিজ তার ‘সাগর’ ছবির জন্য গান লিখতে বশির আহমেদের সঙ্গে যোগাযোগ করেন।বশির আহমেদ সেই ছবির গান লেখেন এবং চমৎকারভাবে গেয়েছিলেন ‘জো দেখা প্যায়ার তেরা’। একইভাবে রবিন ঘোষও তার ছবির গান লেখার জন্য বশির আহমেদকে অনুরোধ করেন। ১৯৬৪ সালে ‘কারোয়ান’ ছবির জন্য বশির আহমেদ গান লিখেছিলেন এবং অসাধারণ গেয়েছিলেন ‘যব তোম একেলে হোগে হাম ইয়াদ আয়েঙ্গে’ গানটি ব্যাপক আলোড়ন সৃষ্টি করে। রেডিও পাকিস্তানে ষাটের দশকে সবচেয়ে বেশি বাজতো গানটি। তার গাওয়া ছবিগুলো- সাগর, কারোয়ান, ইন্ধন, কঙ্গন, দর্শন এবং মিলন উল্লেখযোগ্য। শবনম ও রহমান অভিনীত দর্শন ছবিতে বশির আহমেদ গেয়েছেন ‘তুমহারে লিয়ে ইস দিলমে যিতনি মোহাব্বত হ্যায়’। ছবিটি মুক্তি পায় ১৯৬৭ সালে। অনেকেই জানেন না, বাংলাদেশের বিখ্যাত এ গায়ক বাঙালি ছিলেন না, এমনকি তিনি বাংলা ভাষাও জানতেন না। তিনি ছিলেন দিল্লীর সওদাগর পরিবারের সন্তান। ১৯৬০ সালে তিনি কলকাতা থেকে ঢাকায় চলে আসেন। বশির আহমেদ ভারতের অধিবাসী হয়েও বাংলাদেশে এসে গানের সুর ছড়িয়ে ভক্তদের মুগ্ধ করেন। বশির আহমেদ বাংলাদেশের সব সেরা নারী শিল্পীদের সঙ্গেও গান গেয়েছেন। ‘মনের মতো বউ’ (১৯৬৯) ছবিতে খান আতার কথা এবং সুর সংযোজনায় বশির আহমেদ এবং সাবিনা ইয়াসমিনের কণ্ঠে চমৎকার একটি গান-আহা কী যে সুন্দর হারিয়েছে অন্তর, ভাষা নেই, নেই ভাষা নেই। কখনো মেঘ কখনো বৃষ্টি ছবিতে গানের জন্য ২০০৩ সালে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার (শ্রেষ্ঠ গায়ক) পান বশির আহমেদ।

আর্কাইভ