শুক্রবার, ১৯ জানুয়ারী ২০১৮রেজি:/স্মারক - ০৫.৪২.৫১০০.০১৪.৫৫.০৩৭.১২-৫৬২
Menu

সরকারি চাকরিতে প্রবেশের বয়সসীমা বাড়ানোর প্রস্তাব

সরকারি চাকরিতে প্রবেশের বয়সসীমা বাড়ানোর প্রস্তাব

ঢাকা অফিস :
সরকারি চাকরিতে প্রবেশের বয়সসীমা বাড়ানোর প্রস্তাব দিয়েছেন বিভিন্ন জেলার প্রশাসকেরা (ডিসি)। তারা চাকরিতে প্রবেশের বর্তমান বয়স ৩০ বছর থেকে বাড়িয়ে ৩২ অথবা ৩৩ বছর করার প্রস্তাব দিয়েছেন। ডিসি সম্মেলনকে সামনে রেখে বিভিন্ন জেলার ডিসিরা মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে যে প্রস্তাবনা দিয়েছেন, তার মধ্যে সরকারি চাকরিতে প্রবেশের এই সীমা বাড়ানোর কথা বলা হয়েছে। একই সঙ্গে স্বেচ্ছায় অবসর গ্রহণের ২৫ থেকে কমিয়ে ২০ বছর করার প্রস্তাব করা হয়েছে। মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ জানায়, আগামী ৮ জুলাই থেকে তিন দিনব্যাপী ডিসি সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে। সম্মেলনে উপস্থিত থাকবেন প্রধানমন্ত্রী। সম্মেলন উপলক্ষে আলোচনার বিষয়বস্তুর প্রস্তাবনা চেয়ে সকল জেলা প্রশাসককে চিঠি দেয় মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ। গত ৪ মার্চ পাঠানো চিঠিতে ২৫ মার্চের মধ্যে সম্মেলনে উত্থাপনের জন্য প্রস্তাবনা সংক্রান্ত তথ্য-উপাত্ত পাঠাতে বলা হয়েছিল। রাজশাহীর জেলা প্রশাসক মেজবা উদ্দিন বুধবার বলেন, সম্মেলনের আগে একটি প্রস্তাবনা পাঠানো হয়।
প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে অনুষ্ঠিতব্য ওই সম্মেলনে মন্ত্রিপরিষদ সদস্য, উপদেষ্টা, সচিব, বিভাগীয় কমিশনাররাও উপস্থিত থাকেন। উদ্বোধনী পর্বের পর বাকি সেশনগুলো সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে অনুষ্ঠিত হয়। ইতোমধ্যে সব বিভাগীয় কমিশনার ও ডিসিদের কাছ থেকে সম্মেলনে আলোচনার জন্য বেশ কিছু প্রস্তাবনা পাওয়া গেছে। প্রস্তাবনায় নওগাঁর ডিসি মো. এনামুল হক সুনির্দিষ্ট প্রস্তাবে উল্লেখ করেন, আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের ২০১১ সালের ২৬ ডিসেম্বর তারিখে ৩.২০১১ নং অধ্যাদেশ মোতাবেক Public servants (Retirement) Ordinance, 2011 অনুযায়ী সরকারি কর্মচারীদের অবসর গ্রহণের বয়সসীমা ৫৭ থেকে ৫৯ বছর করা হয়েছে। কিন্তু চাকরিতে প্রবেশের ক্ষেত্রে নির্দিষ্ট বয়সসীমা ৩০ বছর রয়েছে। চাকরি থেকে অবসরের বয়সসীমা বৃদ্ধির সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে চাকরিতে প্রবেশের বয়সসীমা ৩২ থেকে ৩৩ বছর নির্ধারণ করা প্রয়োজন। আরো প্রস্তাব করা হয়, সরকারি কর্মচারীদের মধ্যে অনেকের পক্ষে স্বাস্থ্যগত ও পারিবারিক কারণে ২৫ বছর চাকরিকাল অতিক্রান্ত করা সম্ভব হয় না। ফলে খোঁড়া অজুহাত প্রর্দশনপূর্বক মেডিকেল বোর্ডের মাধ্যমে অক্ষমতাজনিত অবসরের আবেদন করেন তারা। এক্ষেত্রে কর্মচারীদের মেডিকেল বোর্ডের প্রতিবেদন সংগ্রহ ও অন্যান্য শর্তাদি পূরণ করতে অনেক সময় অতিবাহিত হয়। তাই কর্মচারীদের ভোগান্তি লাঘবের লক্ষ্যে গণকর্মচারী (অবসর) আইন’১৯৭৪ এর ৯(২) ধারা অনুযায়ী ২৫ বছর চাকরি পূর্তির পর স্বেচ্ছায় অবসর গ্রহণের বয়সসীমা ২০ বছর করা প্রয়োজন। বুধবার নওগাঁর জেলা প্রশাসক মো. এনামুল হক সরকারি চাকরিতে প্রবেশের বয়সসীমা বাড়ানোর প্রস্তাব করার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, চাকরিতে অবসরের বয়স বাড়লেও প্রবেশের সীমা না বাড়ায় এবার তা করার প্রস্তাব করা হয়েছে। পাশাপাশি স্বেচ্ছায় অবসর গ্রহণের ক্ষেত্রে চাকরি পূর্তির সীমা ২৫ বছর থেকে কমিয়ে ২০ বছর করারও প্রস্তাব করা হয়েছে বলে জানান তিনি। বর্তমানে সরকারি চাকরিতে প্রবেশের বয়সসীমা ৩০ বছর আর অবসরের সীমা ৫৯ বছর। আর মুক্তিযোদ্ধার সন্তান, প্রতিবন্ধী কোটা ও বিসিএস (স্বাস্থ্য) ক্যাডারের সাধারণ প্রার্থী এবং কয়েকটি বিশেষ ক্যাডারের উপজাতীয় প্রার্থীদের চাকরিতে প্রবেশের বয়সসীমা ৩২ বছর। মুক্তিযোদ্ধাদের অবসরের বয়সসীমা ৬০ বছর। চাকরিতে প্রবেশের বয়সসীমা বাড়ানোর জন্য দীর্ঘদিন ধরে আন্দোলন করে আসছেন বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। তাদের যুক্তি, সেশনজটের কারণে পড়ালেখা শেষ করতে ৩০ বছর শেষ হয়ে যায়।
মন্ত্রিপরিষদের কাছে নওগাঁ ছাড়াও বেশ কয়েকটি জেলার ডিসি ওই একই প্রস্তাবনা করেছেন। সম্মেলনের প্রস্তাবনায় স্থানীয় সমস্যাগুলোও উপস্থাপন করা হয় জানিয়ে নওগাঁর ডিসি মো. এনামুল হক বলেন, জেলার সাপাহার-পোরশায় পানির সমস্যা লাঘব, কর্মকর্তাদের জন্য আবাসিক ভবন তৈরি এবং পাহাড়পুর বৌদ্ধবিহারকে কেন্দ্র করে পর্যটন কেন্দ্র গড়ে তোলার প্রস্তাব করা হয়েছে।

আর্কাইভ