মঙ্গলবার, ১৬ জানুয়ারী ২০১৮রেজি:/স্মারক - ০৫.৪২.৫১০০.০১৪.৫৫.০৩৭.১২-৫৬২
Menu

ব্যাংকিং সেক্টরে নিরাপত্তা ব্যবস্থা ঢেলে সাজানো সময়ের দাবী

ব্যাংকিং সেক্টরে নিরাপত্তা ব্যবস্থা ঢেলে সাজানো সময়ের দাবী

সাম্প্রতিক সময়ে এবং নিকট অতীতে সোনালী ব্যাংক লিমিটেড থেকে টাকা চুরির মত জঘন্য অপরাধ একের পর এক সংঘটিত হচ্ছে। সোনালী ব্যাংক কিশোরগঞ্জ শাখা থেকে সুড়ং কেটে টাকা চুরির ঘটনা ঘটিয়ে টাকা নিয়ে চোরচক্র ঢাকা অবধি পৌঁছে গিয়েছিল। কিন্তু র‌্যাব এর তৎপরতার কারনে তারা টাকাসহ আটক হয়েছে। উদ্ধার তৎপরতায় টাকাগুলো উদ্ধারের পর সেগুলো সংশ্লিষ্ট ব্যাংকে জমা করা হয়েছে। টাকা চুরির সাথে জড়িতরা আটক হয়ে জেল-হাজতে আছে। চলতি মাসে বগুড়ার আদমদিঘীতে সোনালী ব্যাংক থেকে ৩১লক্ষ টাকা সুড়ং কেটে চুরি করেছে সংঘবদ্ধ চক্র। এপর্যন্ত আসল হোতাদের আটক করা যায়নি।তবে সোনালী ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদ দুই জিএমসহ ঐ শাখার সকল ব্যাংক কর্মকর্তাকে বরখাস্ত করেছে। এর আগে চট্টগ্রামের লালদিঘীর পাড় কর্পোরেট শাখায় সিঁধ কেটে টাকা চুরির চেষ্টা করে চোরচক্রটি সফল হতে পারেনি। এভাবে একের পর এক সোনালী ব্যাংকের সুরক্ষিত ভল্ট ভেঙ্গে টাকা চুরির ঘটনা কেন ঘটছে? এছাড়া হলমার্ক কেলেংকারী , ঋণখেলাপীসহ যত অঘটন এ সোনালী ব্যাংকে কেন ঘটছে? সোনালী ব্যাংক এখন বেসরকারী খাতে পরিচালিত হলেও বৈদেশিক রেমিটেন্স , সরকারী কর্মকর্তা-কর্মচারীদের পেনশন, ওয়েজ আর্নারসসহ অনেক গুরুত্বপূর্ন বিষয় ডিল করছে। সোনালী ব্যাংকে রয়েছে স্বল্প আয়ের লোকজনের ডিপিএসসহ আরো অনেক কল্যানমূলক প্রকল্প । এ ব্যাংকটিতে একের পর এক ঘটনা এর গ্রাহক ও সেবাগ্রহিতাদের বিশ্বাসকে তলানীতে নিয়ে ঠেকিয়েছে। প্রশ্ন হচ্ছে, সোনালী ব্যাংকে কেন এ ধরনের ঘটনা সংঘটিত হচ্ছে? তবে কি এর পেছনে অন্য কোন মহল বা দেশের কোন এজেন্সীর হাত রয়েছে? বিষয়টি খতিয়ে দেখা প্রয়োজন। ব্যাংকের নিরাপত্তা ব্যাবস্থার ফাঁক -গলিয়ে কিভাবে এ ঘটনা সংঘটিত হচ্ছে তা বের করা প্রয়োজন। কিন্তু আদমদিঘীর চুরির ঘটনার পর সোনালী ব্যাংক পরিচালনা পর্ষদ ঐ ব্যাংকের সকল কর্মকর্তাকে বরখাস্ত করেছে এটা কি যৌক্তিক? ব্যাংকের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা কাজশেষে ব্যাংকের সবকিছু হিসাব মিলিয়ে ব্যাংক বন্ধ করে চলে যান। ব্যাংকের চাবি থাকার কথা শাখার প্রধানের কাছে। আর ব্যাংকের রাতের পাহারার দায়িত্ব থাকার কথা পুলিশের এবং সংশ্লিষ্ট ব্যাংকের নিরাপত্তাকর্মীদের। যদি দায়-দায়িত্ব কারো থাকে তবে তা থাকার কথা ব্যাংকের নিরাপত্তা কর্মী এবং পুলিশের। কিন্তু পরিচালনা পর্ষদ বরখাস্ত করল ঐ শাখার সকল কর্মকর্তাকে। এ কেমন সিদ্ধান্ত? হবুচন্দ্র রাজার গবুচন্দ্র মন্ত্রীর সিদ্ধান্ত ছাড়া একে আর কি বলা যায়? এ ঘটনার দায় পরিচালনা পর্ষদ এড়াতে পারে কি? সোনালী ব্যাংকে একের পর এক কেলেংকারীর ঘটনা গ্রাহক ও সেবাগ্রহীতা মহলের আস্থাকে শুন্যের কোঠায় নিয়ে ঠেকিয়েছে। সোনালী ব্যাংকের লকারে অনেক গ্রাহক তাদের মূল্যবান গহনা গচ্ছিত রাখে। এগুলোতো যে কোন সময় চুরি হয়ে যেতে পারে। এহেন পরিস্থিতি খেকে উত্তরণের লক্ষে একটি শক্তিশালী তদন্ত কমিটি করে সোনালী ব্যাংকসহ অন্যান্য (অগ্রনী,রূপালী,জনতা ব্যাংকসহ) ব্যাংকের গ্রাহকদের গচ্ছিত টাকা ও স্বর্ণালংকার সঠিক রয়েছে কিনা তা সরেজমিনে খতিয়ে দেখা দরকার। সোনালী ব্যাংককে কেনইবা টার্গেট করা হয়েছে তাও খতিয়ে দেখা দরকার। একটি শাখায় ঘটনা নজরে আসা মানে এই নয় যে অন্য শাখায় এ ধরনের ঘটনা ঘটেনি। তাই সময় থাকতে ব্যবস্থা নেয়ার মাধ্যমে রাষ্ট্রের অত্যন্ত নিরাপদ ও জনগণের বিশ্বাসের আস্থাস্থলকে অটুট রাখা প্রয়োজন। নতুবা এ আস্থার সংকটকে পুঁজি করে অন্য কোন মতলববাজ এ খাতকে ব্যবসাশুন্য করে অন্য পথে এর সফল কর্মকান্ড কব্জা করে নিতে পারে। সময় থাকতে সাধু সাবধান।

আর্কাইভ