মঙ্গলবার, ১৬ জানুয়ারী ২০১৮রেজি:/স্মারক - ০৫.৪২.৫১০০.০১৪.৫৫.০৩৭.১২-৫৬২
Menu

বড় অংকের মূলধন ঘাটতিতে পড়েছে রাষ্ট্রায়ত্ত বিশেষায়িত তিন ব্যাংক

বড় অংকের মূলধন ঘাটতিতে পড়েছে রাষ্ট্রায়ত্ত বিশেষায়িত তিন ব্যাংক

ঢাকা অফিস :
বড় অংকের মূলধন ঘাটতিতে পড়েছে রাষ্ট্রায়ত্ত বিশেষায়িত তিন ব্যাংক। ব্যাংকগুলো হলো, বাংলাদেশ কৃষিব্যাংক, বেসিক ব্যাংক এবং রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংক। বাংলাদেশ ব্যাংক সূত্র বলছে, ডিসেম্বর ভিত্তিতে এসে ৬ হাজার ৩৮২ কোটি টাকা মূলধন ঘাটতিতে পড়েছে সরকারি মালিকানার এ ব্যাংকগুলো। তবে একমাত্র রাষ্ট্রায়ত্ত বিশেষায়িত ব্যাংক বাংলাদেশ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংকের কোনো মূলধন ঘাটতি নেই। সূত্র বলছে, এর আগে রাষ্ট্রীয় মালিকানার সোনালী, জনতা, অগ্রণী, রূপালি ও বেসিক ব্যাংকে প্রায় ৯ হাজার ২৪২ কোটি টাকার মূলধন ঘাটতি তৈরি হয়। সরকার ইতোমধ্যে প্রথম কিস্তিতে ৪ হাজার ১শ’ কোটি টাকা মূলধন বাজেট থেকে সরবরাহ করেছে। সূত্র জানিয়েছে, রাষ্ট্রীয় ব্যাংকগুলো পরিচালনায় অনিয়ম, অদক্ষতা আর অব্যবস্থাপনার কারণে মূলধন ঘাটতি তৈরি হচ্ছে। কিন্তু সেই মূলধন যোগান দিতে হচ্ছে রাষ্ট্রীয় কোষাগারে জমা হওয়া জনগণের দেওয়া রাজস্ব থেকে। বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রতিবেদন অনুসারে,  বেসিক ব্যাংকের মূলধন ঘাটতি দাঁড়িয়েছে ৬৪৭ কোটি টাকা। যা আগে ছিলো ১৮৩ কোটি টাকা। অর্থাৎ তিনগুণ বেড়েছে মূলধন ঘাটতি। প্রতিবেদন অনুসারে, সবচেয়ে বেশি মূলধন ঘাটতি হচ্ছে বাংলাদেশ কৃষিব্যাংকের। এর পরিমাণ ৫ হাজার ৭৬৩ কোটি টাকা। রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংকের মূলধন ঘাটতি ৬৮৭ কোটি টাকা। বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্যমতে, বাংলাদেশ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংকের মূলধন উদ্বৃত্ত রয়েছে। যার পরিমাণ ৭১৬ কোটি টাকা। এ ব্যাংকের মূলধন উদ্বৃত্ত না থাকলে চার বিশেষায়িত ব্যাংকের মূলধন ঘাটতি দাঁড়াতো প্রায় ৭ হাজার কোটি টাকা। বাংলাদেশ ব্যাংক বলছে, রাষ্ট্রায়ত্ত চার ব্যাংকে সরকার ৪ হাজার ১শ’ কোটি টাকা মূলধন যোগান দেওয়ায় এসব ব্যাংকের মূলধন ৮৫৫ কোটি টাকা উদ্বৃত্ত রয়েছে। এর মধ্যে অগ্রণী ব্যাংকে ৯২ কোটি টাকা, জনতা ব্যাংকে ৪০৪ কোটি টাকা, রূপালি ব্যাংকে ১০৭ কোটি টাকা এবং সোনালি ব্যাংকে ২৪৯ কোটি টাকা উদ্বৃত্ত রয়েছে। বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রতিবেদন পর্যালোচনা করে দেখা গেছে, ব্যাংকিং খাতে ন্যূনতম মূলধনের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৬১ হাজার ৮৩৪ কোটি টাকা। গত সেপ্টেম্বর মাসে তা ছিল ৬০ হাজার ২১৭ কোটি টাকা। অর্থাৎ তিন মাসের ব্যবধানে ১ হাজার ৬১৭ কোটি টাকা মূলধন বেড়েছে। প্রয়োজনীয় মূলধনের বিপরীতে ব্যাংক খাতে সংরক্ষিত মূলধনের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৬৫ হাজার ১৯০ কোটি টাকা। সে হিসেবে মূলধনের উদ্বৃত্ত দাঁড়িয়েছে ৩ হাজার ৩৫৫ কোটি টাকা। তবে গত সেপ্টেম্বর মাসে মূলধন ঘাটতি ছিলো ৯ হাজার ৮৮৮ কোটি টাকা। ব্যাংকের মূলধন ঘাটতির বিষয়ে জানতে রোববার কৃষি ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আবদুস সালামের অফিসে কয়েক দফায় টেলিফোন করা হয়। কিন্তু তাকে পাওয়া যায় নি। পরে রাতে তার বাসায় ফোন করা হয়। তখন ‘তিনি বাসায় নেই’ বলে জানানো হয়।

আর্কাইভ