মঙ্গলবার, ১৬ জানুয়ারী ২০১৮রেজি:/স্মারক - ০৫.৪২.৫১০০.০১৪.৫৫.০৩৭.১২-৫৬২
Menu

রিজার্ভও বিষফোঁড়ায় পরিণত হয় : মনিরুজ্জামান

 রিজার্ভও বিষফোঁড়ায় পরিণত হয় : মনিরুজ্জামান

ঢাকা অফিস :
রিজার্ভ বাড়ালেই চলবে না, তা বিনিয়োগ করে কর্মসংস্থানের সৃষ্টি করতে না পারলে এ রিজার্ভই এক সময় বিষফোঁড়া হয়ে দাঁড়াবে বলে মন্তব্য করেছেন সাবেক অর্থসচিব এম মনিরুজ্জামান। ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সাগর-রুনি মিলনায়তনে শনিবার দুপুরে ‘রেকর্ড পরিমাণ বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ: অর্থনীতিতে প্রভাব’ শীর্ষক এক গোলটেবিল আলোচনায় তিনি এ মন্তব্য করেন। বাংলাদেশ যুব অর্থনীতিবিদ ফোরাম অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। ‘টাকা বিনিয়োগ না করলে রিজার্ভ বাড়বে’ উল্লেখ করে এ অর্থনীতিবিদ বলেন, ‘রিজার্ভের পরিমাণ বেড়ে যাওয়াটা এক সময় দেশের জন্য ক্ষতির কারণ হতে পারে। রিজার্ভ বিনিয়োগ করে কর্মসংস্থান না বাড়ালে একসময় তা বিষফোঁড়া হয়ে দাঁড়াবে।’ তিনি অভিযোগ করে বলেন, ‘রিজার্ভ বেড়েছে। কিন্তু কিভাবে বেড়েছে তা কেউ স্পষ্ট করছে না। এ সময় বাড়তি রিজার্ভের টাকা আমদানি ও বিনিয়োগ এ দুটো কাজে লাগানোর পরামর্শ দেন সাবেক এ অর্থসচিব। তিনি বলেন, অন্যথায় এ রিজার্ভ এক সময় দেশের অর্থনীতিতে বড় ধরনের হুমকি বয়ে আনতে পারে।’ মনিরুজ্জামান বলেন, ‘বর্তমানে দেশে জিডিপি’র ১৬ শতাংশ বিনিয়োগ হয়ে থাকে।কিন্তু এ পরিমাণ বিনিয়োগে ৭ শতাংশ প্রবৃদ্ধি অর্জন করা কখনই সম্ভব নয়। এটা সম্পূর্ণভাবে অবান্তর চিন্তা-ভাবনা। ২০২১ সালের মধ্যে মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হতে হলে আমাদেরকে প্রতিবছর ৮ থেকে ৯ শতাংশ হারে জিডিপি প্রবৃদ্ধি অর্জন করতে হবে। এজন্য বিনিয়োগ হতে হবে জিডিপি’র কমপক্ষে ৩০ থেকে ৩২ শতাংশ।’ রিজার্ভ দিয়ে বিদেশ থেকে কি ধরনের পন্য আমদানি বা কোন কোন খাতে বিনিয়োগ করা যেতে পারে এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, ‘বাইরে থেকে আমরা রিজার্ভের অর্থ দিয়ে প্রযুক্তিভিত্তিক যন্ত্রপাতি, বিভিন্ন ধরনের শিল্প কাঁচামালসহ মুনাফাভিত্তিক পণ্য আমদানি করতে পারি।বিনিয়োগের মাধ্যমে দেশে শিল্পের প্রসার ঘটাতে পারি। এতে ব্যাপকভাবে কর্মসংস্থান সৃষ্টি হবে এবং বেকারত্ব কমবে। এভাবে শিল্পায়নের মাধ্যমে দেশের অর্থনীতিকে সচল করা যাবে।’ এদিকে ড. ইউনূস প্রসঙ্গে মনিরুজ্জামান বলেন, ‘অর্থনীতি এবং রিজার্ভ সম্পর্কে ড. মুহাম্মদ ইউনূস কি বুঝাতে চেয়েছেন- তা বাংলাদেশ না বুঝলেও উন্নত দেশগুলো ঠিকই বুঝতে পেরেছে।’ অনুষ্ঠানে মূল প্রবন্ধ তুলে ধরেন যুব অর্থনীতিবিদ ফোরামের প্রেসিডেন্ট মির্জা ওয়ালিদ হোসেন। এ সময় তিনি উল্লেখ করেন, ‘জানুয়ারির শেষের দিকে ব্যাংক খাতে আমানতের পরিমাণ বেড়ে ১৬ দশমিক ৪৬ শতাংশ হয়েছে।অন্যদিকে ঋণের পরিমাণ বেড়েছে মাত্র ৭ দশমিক ৭৩ শতাংশ। এ অবস্থায় ব্যাংক সুদের হার বাড়ছে, কিন্তু সে পরিমাণ মুনাফা বাড়ছে না। কারণ ঋণের পরিমাণ কমে এসেছে।’ এ প্রেক্ষিতে সাবেক এ অর্থসচিব বলেন, ‘কোনো একটি দেশে যদি ক্রমাগত হারে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ বাড়ে কিন্তু সে হারে যদি বিনিয়োগ না বাড়ে; তাহলে সে দেশের অর্থনীতিতে একটা স্থবিরতা তৈরি হয়। আর এটা যদি দীর্ঘ সময় চলতে থাকে- তাহলে সেটা বিরাট ক্ষতির কারণ হয়ে দাঁড়ায়।’ ক্ষুদ্র ঋণ প্রকল্প বিশেষ করে গ্রামীণ ও ব্রাক ব্যাংক সম্পর্কে বক্তারা বলেন, ‘এসব ব্যাংক যদি তাদের ঋণের পরিমাণ ৫-১০ হাজারে সীমাবদ্ধ না রেখে ৫০ হাজার কিংবা ১ লাখে উন্নীত করে, তাহলে সেই অর্থকে দরিদ্র জনগোষ্ঠী ভালো কাজে লাগিয়ে তাদের জীবন যাত্রার মান বাড়াতে পারবেন।’ আলোচনা সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন- সাংবাদিক ও কলামিস্ট সাদেক খান, কুষ্টিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. এমতাজ হোসেন, বাংলাদেশ প্রজন্ম একাডেমির সভাপতি ওয়ালিউর রহমান, অর্থনীতিবিদ শহিদুর রহমান প্রমুখ।

আর্কাইভ