মঙ্গলবার, ১৬ জানুয়ারী ২০১৮রেজি:/স্মারক - ০৫.৪২.৫১০০.০১৪.৫৫.০৩৭.১২-৫৬২
Menu

বাংলাদেশের শ্বাসরুদ্ধকর হার

 বাংলাদেশের শ্বাসরুদ্ধকর হার

স্পোর্টস ডেস্ক :
দারুণ একটি জয় পেয়ে যেতে পারত বাংলাদেশ। কিন্তু শেষ ওভারের উত্তেজনায় মাত্র দুই রানের জন্য হেরে যেতে হলো শ্রীলঙ্কার কাছে। তবে শীর্ষ দলকে ঘাম ঝরিয়ে ছেড়েছে স্বাগতিকরা। এনামুল হক বিজয় শেষ বলে দলকে তিন রান এনে দিতে পারেননি, আউট হয়ে যান থিসারা পেরেরার ফুল টসে।
শ্রীলঙ্কা: ১৬৮/৭ (২০ ওভার)
বাংলাদেশ: ১৬৬/৭ (২০ ওভার)
ফল: শ্রীলঙ্কা জয়ী ২ রানে
এর আগে জয়ের জন্য শেষ ওভারে ১৭ রানের প্রয়োজন পড়লে তিনটি চার ও দুটি দৌড়ে রান নিয়ে ম্যাচে উত্তেজনা ফেরান এই ডানহাতি ব্যাটসম্যান। এই ওভারে ৪১ বলে অভিষেক ফিফটি পান এনামুল। ৪৫ বলে সাত চারে সাজানো তার ৫৮ রানের ইনিংস।
লক্ষ্যে নেমে শুরুটা টি-টোয়েন্টিসুলভ ব্যাটিং করে তামিম ইকবাল ও শামসুর রহমান। ৩৬ বলে ৫২ রানের এই জুটি ভাঙে শামসুর ২২ রানে অজন্তা মেন্ডিসের কাছে ফিরতি ক্যাচ তুলে দিলে। কিছুক্ষণ পর তামিম ছয় চারে ৩০ রানে থিসারা পেরেরার শিকার হন।
দুই ওপেনার ৬৭ রানের মধ্যে বিদায় নিলে সাকিব আল হাসান ও এনামুলের ৪৩ রানের জুটি আশা বাঁচিয়ে রাখে। ১৭ বলে দুই চার ও এক ছয়ে ২৬ রানে আউট হন সাকিব। এরপর দ্রুত নাসির হোসেন (১৬), মিথুন আলী (০) ও ফরহাদ রেজা (৭) উইকেট হারাতে থাকলে শেষ ম্যাচে উত্তেজনা ফেরান এনামুল।
লঙ্কানদের পক্ষে নুয়ান কুলাসেকারা ও থিসারা পেরেরা দুটি করে উইকেট দখলে নেন।
 এদিন জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে প্রথমবারের মতো আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি ম্যাচ শুরু হলো। অভিষেক হওয়া স্পিনার আরাফাত সানি দারুণ সঙ্গ দিলেন বাংলাদেশের অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসানকে। দুজনের ঘূর্ণিতে স্বাগতিকরা শ্রীলঙ্কার ব্যাটিং ইনিংসের লাগাম টেনে ধরেছিল। প্রথমবারের মতো লঙ্কানদের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি জয়ের অভিজ্ঞতা পেতে বাংলাদেশের লক্ষ্য ১৬৯ রান।
মুশফিকুর রহিম ছিলেন না। তার অনুপস্থিতিতে দলের নেতৃত্ব পান মাশরাফি মুর্তজা। টস জিতে ফিল্ডিং নিয়ে প্রথম ওভারের শেষ বলে তিলকরতেœ দিলশানকে বোল্ড করে দর্শকদের উল্লাসে মাতান এই ডানহাতি পেসার। শেষ ওভারেও দলের সপ্তম উইকেট পান মাশরাফি, নুয়ান কুলাসেকারা ২২ বলে ৩১ রানে শামসুর রহমানের তালুবন্দি হন।
এর মাঝে সাকিব ও আরাফাতের জোড়া আঘাত ছিল দেখার মতো। কুশল পেরেরা ও দিনেশ চান্দিমাল ঝড় তুললেও তা থামিয়েছেন সাকিব। চান্দিমাল ছয় মারতে গিয়ে লং অনে সীমানার প্রান্তে দাঁড়িয়ে থাকা ফরহাদ রেজার তালুবন্দি হন। পরের ওভারে এই অলরাউন্ডার নাসির হোসেনের হাতে ক্যাচ তুলে দিতে বাধ্য করেন কুমার সাঙ্গাকারাকে।
পেরেরা চতুর্থ টি-টোয়েন্টি ফিফটি হাঁকিয়ে ব্যক্তিগত ৬৪ রানে আউট হন আরাফাতের ঘূর্ণিতে। অভিষেকে খেলতে নামা স্পিনার তার প্রথম উইকেট তুলে নেন সেক্কুজে প্রসন্নকে সাজঘরে পাঠিয়ে। কয়েক ওভার পর এই বাঁহাতির ঘূর্ণিতে ডিপ মিড উইকেটে একেবারের সীমানায় দাঁড়িয়ে থাকা এনামুল হক দুর্দান্ত ক্যাচ ধরেন।
বাংলাদেশের পক্ষে মাশরাফি, সাকিব ও আরাফাত দুটি করে উইকেট পান।
এদিন আরাফাতের সঙ্গে আন্তর্জাতিক অভিষেক হলো উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান মিথুন আলীর। ২০১১ সালের ডিসেম্বরের পর আবারও আন্তর্জাতিক মঞ্চে খেলতে নেমেছেন অলরাউন্ডার ফরহাদ রেজা।
ম্যাচসেরা হয়েছেন কুশল পেরেরা। পরের ম্যাচটি ১৪ ফেব্রুয়ারি একই ভেন্যুতে।

আর্কাইভ