মঙ্গলবার, ১৬ জানুয়ারী ২০১৮রেজি:/স্মারক - ০৫.৪২.৫১০০.০১৪.৫৫.০৩৭.১২-৫৬২
Menu

প্রি-পেইড মিটারিং স্থাপনে চুক্তি স্বাক্ষরিত

   প্রি-পেইড মিটারিং স্থাপনে চুক্তি স্বাক্ষরিত

ঢাকা অফিস :

ঢাকা পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানিতে (ডিপিডিসি) প্রথমবারের মতো প্রি-পেইড মিটারিং সিস্টেম স্থাপন পাইলট প্রকল্পে চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছে। ঢাকা পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি ও বাংলাদেশ ডিজেল প্ল্যান্ট লিমিটেডের মধ্যে এ চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। রোববার দুপুরে বিদ্যুৎ ভবনের মুক্তি হল রুমে এ চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর ‘বাংলাদেশ ডিজেল প্ল্যান্ট লিমিটেড’ এ প্রকল্প বাস্তবায়ন করবে। প্রি-পেইড মিটারিং সিস্টেম প্রকল্পের পরিচালক এ এইচ এম মহিউদ্দিন ও ডিপিডিসির ডিজিএম (প্লানিং) এসএম পারভেজ চুক্তিতে স্বাক্ষর করেন। চুক্তি স্বাক্ষর শেষে প্রকল্প সম্পর্কে ডিপিডিসির ব্যবস্থাপনা পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) মো. নজরুল হাসান বলেন, ডিপিডিসি ঢাকার বিদ্যুৎ সরবরাহ করে থাকে। ২০০৮ সালে ডিপিডিসি বাণিজ্যিকভাবে বিদ্যুৎ সরবরাহ করে আসছে। আধুনিক জীবন ব্যবস্থায় বিদ্যুতের বিকল্প নেই। ডিপিডিসিকে আধুনিকায়ন ও ডিজিটাল বাংলাদেশ বি-নির্মাণে প্রি-পেইড মিটারিং সিস্টেমে আসছে। ডিপিডিসি ২০১৩ সালের জুলাই পর্যন্ত ১৪শ’ মেগাওয়াট চাহিদা ছিল। ২০১৪ সাল নাগাদ ৩ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ প্রয়োজন হবে। ডিপিডিসির আওতায় এনসিওএস আজিমপুরে প্রি-পেইড মিটার প্রকল্প স্থাপন করবে। প্রাথমিকভাবে ১০ হাজার আবাসিক গ্রাহককে (সিঙ্গেল ফেইজ) প্রি-পেইড মিটারিং সিস্টেমের আওতায় আনা হবে। দু’ফেইজে ২০১৪ সালের মধ্যে ৫ হাজার মিটার স্থাপনসহ সম্পূর্ণ প্রি-পেইড মিটারিং সিস্টেম চালু করা হবে। দ্বিতীয় ফেইজে চার মাসের মধ্যে ৫ হাজার মিটার স্থাপন করা হবে। পরবর্তী ৫ বছর প্রকল্প এলাকায় প্রি-পেইড মিটার পরিচালন ও রক্ষণাবেক্ষণের সেবা দেওয়া হবে। তিন মাসের মধ্যে এত বেশি প্রি-পেইড মিটার স্থাপন অন্য কোন কোম্পানির পক্ষে সম্ভব নয়। তিনি বলেন, পাঁচ বছরের এ প্রকল্প ব্যয় ধরা হয়েছে ১২ কোটি ৯৬ লক্ষ ৫২ হাজার ৬৫৬ টাকা। ডিপিডিসি’র নিজস্ব অর্থায়নে এ প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হবে। এ প্রকল্পের সুবিধা তুলে ধরে তিনি বলেন, আইটি সফটওয়্যারের মাধ্যমে এ প্রকল্প বাস্তবায়িত হবে। এ পদ্ধতিতে গ্রাহকের কোন হয়রানি, অভিযোগ থাকবে না। একটি সফটওয়্যারের মাধ্যমে সহজে গ্রাহক ১০-১৫টি সেবা পাবে। ব্যাংকের লাইনে না দাঁড?িয়ে ভেন্ডিং ষ্টেশনে সকাল আটটা থেকে রাত আটটা পর্যন্ত কার্ড রিচার্জ করে বাসার মিটারে কার্ড পান্স করলে চাহিদা অনুসারে বিদ্যুৎ ব্যবহার করতে পারবেন। বিশেষ সফটওয়্যারের মাধ্যমে এ মিটার সিস্টেম ব্যবহৃত হওয়ায় যেকোন সময় অন্য কোন কোম্পানি ব্যবহার করতে পারবেন। শুধু এ প্রকল্পই নয়, ডিপিডিসি’র লক্ষ্য ২০১৮ সালের মধ্যে সকল মিটারকে প্রি-পেইড মিটারে রুপান্তর করা। প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে ডিপিডিসি গ্রাহক সেবার মান বৃদ্ধিসহ রাজস্ব বৃদ্ধি পাবে। বর্তমানে ডিপিডিসি’র গ্রাহক সংখ্যা ৮ লক্ষ ৮৬ হাজার। বাংলাদেশ ডিজেল প্ল্যান্ট লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আসিফ আনসারী বলেন, বর্তমান সরকারের ভিশন-২০২১ বাস্তবায়নে প্রি-পেইড মিটারিং সিস্টেম একটি মাইলফলক প্রকল্প। এ প্রকল্প বাস্তবায়িত হলে বিদ্যুৎ সরবরাহে একটি স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত হবে। বাংলাদেশ সেনাবাহিনী বাংলাদেশ ডিজেল প্ল্যান্ট লিমিটেড সততা ও নিষ্ঠার মাধ্যমে এ কাজ করবে বলে উল্লেখ করেন তিনি। বাংলাদেশ ডিজেল প্ল্যাট লিমিটেডের মাধ্যমে বিদ্যুৎ বিভাগসহ বিভিন্ন বিভাগের বিভিন্ন প্রকল্প বাস্তবায়ন করে যাচ্ছে। প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন- বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ এমপি। চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে ডিপিডিসি চেয়ারম্যান তাপস কুমার রায়ের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন- বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিব মনোয়ার ইসলাম, বাংলাদেশ ডিজেল প্ল্যান্ট লিমিটেড চেয়ারম্যান লে. জেনারেল আনোয়ার হোসেন, ঢাকা-৭ সংসদ সদস্য হাজী মো. সেলিম প্রমুখ।

আর্কাইভ