মঙ্গলবার, ১৬ জানুয়ারী ২০১৮রেজি:/স্মারক - ০৫.৪২.৫১০০.০১৪.৫৫.০৩৭.১২-৫৬২
Menu

আল আরাফাহ ইসলামী ব্যাংক প্রধান কার্যালয়ের তিন কর্মকর্তার বিরুদ্ধে দুদকের মামলা

আল আরাফাহ ইসলামী ব্যাংক প্রধান কার্যালয়ের তিন কর্মকর্তার বিরুদ্ধে দুদকের মামলা

কক্সবাজার- আল আরাফাহ ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড কক্সবাজারররর শাখার সাবেক ম্যানেজার সহ ৪ জনের বিরুদ্ধে কক্সবাজার সদর মডেল থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। দুর্নীতি দমন কমিশন সমন্বিত জেলা কার্যালয় চট্টগ্রাম-২ এর উপ-সহকারী পরিচালক আজিজুল হক বাদী হয়ে গত ৩১ অক্টোবর এই মামলাটি দায়ের করেন। মামলার এজাহার নামীয় ৪ আসামীর মধ্যে ৩ কর্মকর্তা বর্তমানে আল আরাফাহ সিলামী ব্যাংক প্রধান কার্যালয় ঢাকায় মানব সম্পদ বিভাগে কর্মরত আছেন। 

মামলার বিবরণে জানা যায়, আল আরফাহ ইসলামী ব্যাংক কক্সবাজার শাখার সাবেক ম্যানেজার মো. শওকত ইসলাম ( বর্তমানে প্রধান কার্যালয় ঢাকা মানব সম্পদ বিভাগের সিনিয়র ভাইস প্রসিডেন্ট ), মো. মনজুর আলম সাবেক সিনিয়র প্রিন্সিপাল অফিসার (বর্তমানে প্রধান কার্যালয় ঢাকা মানব সম্পদ বিভাগের সিনিয়র প্রিন্সিপাল অফিসার), সাবেক সিনিয়র এক্সিকিউটিভ অফিসার মো. আবদুর রহমান (বর্তমানে প্রধান কার্যালয় ঢাকা মানব সম্পদ বিভাগের সিনিয়র এক্সিকিউটিভ অফিসার) ও কক্সবাজার সদর হাসপাতালস্থ মেসার্স আলম মেডিকেল হল এর মালিক মীরমোহাম্মদ আমিন গত ২৬/১/২০১২ ইং হতে ১৫/৪/২০১২ ইং পর্যন্ত পরস্পর যোগসাজশে অন্যায় ভাবে লাভবান হওয়ার অসৎ অভিপ্রায়ে অপরাধজনক বিশ্বাস ভঙ্গের মাধ্যমে ক্ষমতার অপব্যবহার পূর্বক আল আরাফাহ ইসলামী ব্যাংক কক্সবাজার শাখা থেকে অন্য জনের নামে ভুয়া ঋন হিসাব খুলে ১৩ লাখ ৬৮ হাজার ৭৯৫ টাকা উত্তোলণ করে আত্মসাৎ করেন।


বিবরণে আরো জানা যায়, সাবেক ম্যানেজার মো. শওকত ইসলাম, সেকেন্ড ম্যানেজার মনজুর আলম, সাবে সিনিয়র এক্সিউটিভ ম্যানেজার আবদুর রহমান অবৈধ ক্ষমতার অপব্যবহার করে কক্সবাজার শহরের তারাবনিয়ার ছড়াস্থ শহীদ তিতুমীর সড়কেরমো. আবু তাহের এর নামে ০৪৭৮৯১০০০০৩৭২ নম্বরে একটি ( এইচপিএসএম, রিয়েল এষ্টেট) ঋন হিসাব সৃজন করেন। এ ধরনের হিসাব মুলত দালান বা গৃহ নির্মাণ সংক্রান্ত হিসাব। ব্যাংক হতে দালান বা গৃহ নির্মাণ ঋন মঞ্জুর করতে হলে গ্রাহককে আবেদন করতে হয়অ এবং ঋন নিয়েযে দালান বা গৃহ নির্মাণ করা হবে উক্ত জমি সাধারণ মর্টগেজ হিসাবে ব্যাংকে বন্ধক রাখা হয়। কিন্তু এক্ষেত্রে উক্ত ঋন হিসাবখোলার জন্য ওই আবু তাহের কোন আবেদন করেননি। কোন জমি মর্টগেজ দেননি এমনকিকোন টাকা গ্রহণ করেননি এবং উক্ত ব্যাংক হিসাবে তিনি কোন টাকাও জমা প্রদান করেননি। ওই আবু তাহেরেরে নামে উক্ত নম্বরে ভুয়া ঋন হিসাব খুলে তিন কিস্তিতে কক্সবাজার শহরের ঝাউতলা এলাকার মো. মীর কাশেমের ছেলে মীর মোহাম্মদ আমিন পে-অর্ডারের মাধ্যমে টাকা গুলো উত্তোলণ করেন।


এব্যাপারে দুর্নীতি দমন কমিশন তদন্ত শুরু করলে উক্তপে-অর্ডার সমুহ সবেক ম্যানেজার শওকত ইসলাম, সাবেক সিনিয়র প্রিন্সিপাল অফিসার মনজুর আলম স্বাক্ষর করে মীরমো. আমিনের অনুকুলে ইস্যুর বিষয়ে সত্যতা পান।দুর্নীতি দমন কমিশন সমন্বিত জেলা কার্যালয় চট্টগ্রাম-২ তদন্ত কমিটি দীর্ঘ তদন্ত করে উপ-সহকারী পরিচালক আজিজুল হক বাদী হয়ে ৪ জনের বিরুদ্ধে গত ৩১ অক্টোবর কক্সবাজার থানার মামলা নং-৯৬, ধারা-৪০৯/১০৯ দঃবিঃ তৎসহ ১৯৪৭ সালের ২নং দুর্নীতি দমন প্রতিরোধ আইনের ৫ (২) দায়ের করেন।মামলায় এজাহার নামীয় আসামীরা হচ্ছে, কক্সবাজারের চকরিয়া উপজেলার কৈয়ারবিল এলাকার মৃত নুরুল কবির চৌধুরীর ছেলে ও বর্তমানে বর্তমানে প্রধান কার্যালয় ঢাকা মানব সম্পদ বিভাগের সিনিয়র ভাইস প্রসিডেন্ট পদে কর্মরতমো. শওকত ইসলাম, চকরিয়া উপজেলার কাকারা এলাকার ছিদ্দিক আহমদেরছেলে ও বর্তমানে প্রধান কার্যালয় ঢাকা মানব সম্পদ বিভাগের সিনিয়র প্রিন্সিপাল অফিসার পদে কর্মরত মো. মনজুর আলম,নোয়াখালী জেলার চাটখিল থানাধীন করিহাটি গ্রামের মৃত মো. আজিজুর রহমানের ছেলে ও বর্তমানে প্রধান কার্যালয় ঢাকা মানব সম্পদ বিভাগের সিনিয়র এক্সিকিউটিভ অফিসার মো. আবদুর রহমান ও টাকা উত্তোলণকারী কক্সবাজার শহরের ঝাউতলা এলাকার মো. মীর কাশেমের ছেলে ও কক্সবাজার সদর হাসপাতালস্থ মের্সাস আল মেডিকেল হলের মালিক মীর মো. আমীন। দুর্নীতি দমন কমিশন মামলাটি তদন্ত করছে।

আর্কাইভ