মঙ্গলবার, ১৬ জানুয়ারী ২০১৮রেজি:/স্মারক - ০৫.৪২.৫১০০.০১৪.৫৫.০৩৭.১২-৫৬২
Menu

রামগতিতে শিক্ষা বিভাগে চলছে ভয়াবহ লুটপাট ও দূর্নীতি

রামগতিতে শিক্ষা বিভাগে চলছে ভয়াবহ লুটপাট ও দূর্নীতি

রামগতি (লক্ষ্মীপুর) প্রতিনিধি: লক্ষ্মীপুরের রামগতিতে শিক্ষা খাতে ভয়াবহ লুটপাট ও দূর্নীতির ব্যাপক অভিযোগ পাওয়া গেছে।

স্বংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায় স্কুলের পাঠদান, টেন্ডার জালিয়াতি, বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচী, বদলী বানিজ্য, স্লীফ ফান্ডের টাকার ব্যাপক লুটপাটের ঘটনা ঘটেছে। উপজেলার মোট ৯৬ সরকারী প্রাথমিকের স্লীফ ফান্ডের বিল ভাউচার স্বাক্ষর করতে ইউডি নুর আলম, সহকারী শিক্ষা অফিসার মুজিবুর রহমান ও সহকারী শিক্ষা অফিসার কাউছার মিলে প্রতিটি স্কুল হতে প্রায় ১২০০/১৫০০ টাকা করে আদায়ের অভিযোগ পাওয়া যায়।

সম্প্রতি নদী ভাঙ্গনের ও অন্যান্য সমস্যার কারণে উপজেলার ৪টি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ভবন নিলাম দেওয়া হয়েছে। নিলাম দেওয়া নিয়ে প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা করেছেন তুঘলকি কারবার। নামমাত্র মূল্যে দেওয়া এই টেন্ডার প্রক্রিয়ায় প্রতিটি পদক্ষেপে করেছেন মারাত্মক দূর্নীতি।

এছাড়াও টেন্ডার দেওয়ার আগেই জনৈক ঠিকাদার আবদুল ওয়ারেছ চর সেভেজ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়টি ভেঙ্গে নিয়ে পার্শবর্তী এলাকায় আরেকটি নতুন স্কুল নির্মাণ কাজে ব্যবহার করছেন বলে জানা গেছে।

নিলাম দেওয়া চর সেভেজ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, পূর্ব চর আালগী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, চর গেছফার সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ও আবদুল ওয়াহেদ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভবনগুলো সরকারী দলের ছত্রছায়ায় নিলাম দিয়েছেন নামমাত্র মুল্যে।

এছাড়াও টেন্ডার আহবান, বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ, টেন্ডার দাখিল থেকে প্রতিটি পদক্ষেপে করেছেন পুকুর চুরি। সরকারকে বিশাল অর্থের ফাঁকি দিয়ে পুরো প্রক্রিয়াটা করেছেন তিনি নিজের পকেট ভারী করার জন্য। এখাত থেকে প্রাথমিক শিক্ষা কর্মককর্তা আইয়ুব আলী লুটে নিয়েছেন কয়েক লক্ষ টাকা।

রামগতিতে কর্মরত শিক্ষা খাতের কর্মকর্তারা ব্যস্ত রয়েছেন লুটপাট আর নিজেদের আখের ঘোছাতে। তাদের ভয়াবহ লুটপাট আর দূর্নীতির কারণে কিছু কিছু প্রাথমিকের শিক্ষক ক্লাস করেনা। যা স্কুলে আসেন তাও শুধুমাত্র বেতন তোলার জন্য।

টেন্ডার প্রক্রিয়াধীন স্কুল চর সেভেজ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে গিয়ে দেখা যায় ১ জুন’ ২০১৭ ইং তারিখে কার্যাদেশ ছাড়াই স্কুলের ভবন ভেঙ্গে নিয়ে গেছে ঠিকাদার ওয়ারেছ। শিক্ষা কর্মকর্তা স্বীকার করেছেন তিনি সেদিন পর্যন্তও কার্যাদেশ দেন নাই।

এবিষয়ে প্রাথমিক শিক্ষা কর্মককর্তা আইয়ুব আলীর কাছে জানতে চাইলে বলেন, বিষয়টা নিয়ে ঝামেলার মধ্যে আছি, এবিষয়টা উপজেলা চেয়ারম্যান দেখেন তাই বেশী কিছু বলতে পারছিনা।

বিজ্ঞজনরা এমনটা দাবী করছেন প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তাদের উপর গণ মানুষের কোন আস্থা নেই তাই জেলা প্রশাসনের নিকট তাদের আবেদন উচ্চ ক্ষমতা সম্পন্ন নিরপেক্ষ তদন্তপূর্বক দূর্নীতিবাজ কর্মকর্তাদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দেওয়া হোক।

সচেতন মহলের দাবী জীবনের বুনিয়াদ প্রাথমিক শিক্ষার বেহাল দশা থেকে রামগতি উপজেলার শিশুদের রক্ষা করে এই মহা দূর্নীতিবাজদের বিরুদ্ধে নিরপেক্ষ তদন্তপূর্বক দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি ব্যবস্থা করা হোক।

আর্কাইভ