বুধবার, ১৭ জানুয়ারী ২০১৮রেজি:/স্মারক - ০৫.৪২.৫১০০.০১৪.৫৫.০৩৭.১২-৫৬২
Menu

বাংলাদেশের মানুষ নিজেদের প্রয়োজনে শেখ হাসিনাকে আবার প্রধানমন্ত্রী দেখতে চায়---কমলনগরে একেএম এনামুল হ

বাংলাদেশের মানুষ নিজেদের প্রয়োজনে শেখ হাসিনাকে আবার প্রধানমন্ত্রী দেখতে চায়---কমলনগরে একেএম এনামুল হ

কমলনগর(লক্ষ্মীপুর)প্রতিনিধি: বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতি গণতন্ত্রের মানসকন্যা জননেন্ত্রী সফল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ১৪মার্চ লক্ষ্মীপুরে প্রায় ১৯বছর পর আসছেন। জেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত বিশাল সমাবেশকে সফল করতে জেলার পাঁচ উপজেলাও ব্যাপক প্রস্তুতি নিচ্ছে। এরই ধারাবাহিকতায় কমলনগর উপজেলা আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ সংগঠন এক প্রস্তুতি সমাবেশের আয়োজন করেন।
শুক্রবার (১০মার্চ) সন্ধ্যায় হাজিরহাট হামেদিয়া ফাজিল ডিগ্রী মাঠে এ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

এতে প্রধান অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগে কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক একেএম এনামুল হক শামীম।

বিশেষ অতিথি ছিলেন স্থানীয় সাংসদ বীরমক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ আবদুল্লাহ আল মামুন (এমপি), কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সহ সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার খোকন পাল, ত্রাণ ও সমাজ কল্যাণ সম্পাদক বেগম ফরিদুন্নাহার লাইলী, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান শামসুল ইসলাম, জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি গোলাম ফারুক পিংকু।

প্রধান অতিথি একেএম এনামুল হক শামীম তাঁর বক্তব্যে বলেন বাংলাদেশের মানুষ নিজেদের প্রয়োজনে শেখ হাসিনাকে আবার প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দেখতে চায় তারই ফলশ্রুতিতে আগামী ১৪মার্চ তারিখে লক্ষ্মীপুরের পবিত্র মাটিতে ১৬ কোটি মানুষের অবিসাংবাদিত নেত্রী মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রায় ১৯বছর পর আসছেন এটা অত্যন্ত আনন্দের বিষয় ও আমাদের জন্য সৌভাগ্যও বলা চলে।
অত্যন্ত স্বল্প সময়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী এ জেলায় আসছেন। এ আগমন উপলক্ষে লক্ষ্মীপুর জেলা আওয়ামী লীগ ও জেলা প্রশাসক ব্যাপক প্রস্তুতি নিচ্ছেন। জেলার প্রত্যেকটি জায়গায় বর্ণিল সাজে সাজবে। রাস্তায়, মোড়ে, দৃশ্যমান জায়গায় তোরণ, ব্যানার, প্লেকার্ড, পেস্টুনে ভরে যাবে পুরো শহর। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী লক্ষ্মীপুর আগমন উপলক্ষে পাঁচ উপজেলায় উৎসবের আমেজে পরিণত হয়েছে। এবং অধির আগ্রহে অপেক্ষা করছে কখন প্রিয় নেত্রী আসবেন।

শামীম আরো বলেন আওয়ামী লীগের একজন কর্মী হিসেবে প্রায় ১মাসের মধ্যে বাংলাদেশের ১২টি জেলায় সফর করেছি। সারা দেশের মানুষ বলে শেখহাসিনা বাঘের বাচ্চা। আল্লাহ রহমত আছে শেখহাসিার প্রতি। বাংলাদেশের মানুষ বলে শেখহাসিনা যদি প্রাধানমন্ত্রী থাকে তখন বাংলাদেশের উন্নয়ন হয়, কৃষক ভালো থাকে, শ্রমিক ভালো থাকে, ৩ কোটি ছাত্র জানুয়ারীর ১তারিখে বই পায়, ১০টাকা দরে বাংলার মানুষ চাল পায়, বিদ্যুৎ যায়না গ্রামে গ্রামে বাড়িতে বাড়িতে বিদ্যুতের সংযোগ হয়, সারের দাম বাড়েনা, তেলের দাম বাড়েনা, শান্তিতে থাকে বাংলার মানুষ, রাস্তা ঘাট হয়, মসজিদের উন্নয়ন হয়, পদ্মাসেতু হয়, হাতিরঝিল হয়, ক্রিকেটেও বাংলার ছেলেরা পাকিস্তানকে হারিয়ে হোয়াটওয়াস করে হারিয়ে দেয়, ভারতকে হারিয়ে বাঙরাদেশের ছেলেরা বিশ্ব চেম্পিয়ান হওয়ার স্বপ্ন দেখে।

তিনি আরো বলেন আজকের শেখ হাসিনা শুধু বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী নয়, বিশ্বের এমন কোন গুরুত্বপূর্ণ সভা নেই যেই সভায় বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীকে আমন্ত্রন জানায়নাই। ভিয়েত সম্মেলন ধনী  ৮দেশের সম্মেলন ইত্যাদি। বাংলাদেশ ধনী দেশ নয়, বাংলাদেশ হলো তৃতীয় বিশ্বের গরীর একটি দেশ। কিন্তু বিশ্বনেতৃবৃন্দ মনে করেন শেখ হাসিনা মেধা, দক্ষতা, যোগ্যতাপূর্ণ একজন সফল প্রধানমন্ত্রী। যে নেত্রী গরীর দেশের প্রধানমন্ত্রী হলেও ধনী দেশকে নেতৃত্ব দিতে পারবে।
শেখহাসিনা বঙ্গবন্ধুর যোগ্য কন্যা, যে বঙ্গবন্ধুর নামের সাথে ৫৫হাজার১২৬ বর্গমাইলের আমাদের এই সুজলা সুফলা সস্য শ্যামলা, সোনার বাংলা মিলে রয়েছে। শেখহাসিনা হচ্ছেন সেই শেখমুজিবের কন্যা যে শেখমুজিবের নামের সাথে আমাদের এই লাল সবুজের পতাকা মিশে রয়েছে। শেখহানিা হচ্ছেন এমন এক নেতার কন্যা যে নেতার নামের সাথে আমার সোনার বাংলা আমি তোমায় ভালোবাসি-জাতীয় সংগীত মিশে রয়েছে।

শামীম আরো বলেন শেখহাসিনা হচ্ছেন এমন এক মুজিবের কন্যা যে বঙ্গবন্ধু শেখমুজিবুর রহমানের ডাকে ১৯৭১সালের মার্চ মাসে বাংলাদেশের দামাল ছেলেরা বঙ্গবন্ধুর ডাকে ব্যাংকারে ব্যাংকারে যুদ্ধ করে ত্রিশলক্ষ শহীদের রক্তের বিনিময়ে ২লক্ষ মা-বোনের ইজ্জতের বিনিময়ে এ দেশ স্বাধীন করেছিলেন। শেখহাসিনা হচ্ছেন সেই শেখ মুজিবের কন্যা যে বঙ্গবন্ধু হচ্ছেন পৃথিবীর ইতিহাসে একমাত্র নেতা যিনি প্রধানমন্ত্রী বা রাষ্ট্র প্রধান না হয়েও ১৯৭১সালের মার্চ মাসে তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের মানুষের সাড়ে সাত কোটি মানুষকে যা বলতেন তারা তাই শুনতেন। ১৯৭১ সালের মার্চ মাসের কথা চিন্তা করলে ১লা মার্চ থেকে ২৬মার্চ পর্যন্ত বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব ধানমন্ডির ৩২ নম্বর বাড়িতে দাঁড়িয়ে যাই বলতেন তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের মানুষ তাই শুনতেন।

১৯৭১সালের ৭ইমার্চের ১৯মিনিটের ভাষণকে পৃথিবীর অন্যতম সেরা ভাষণ বলে মনে করেন। অনেকে আব্রাহাম লিংকনের অবদি পিপলস বাই দি পিপলস এর সাথে তুলনা করেন। কিন্তু বঙ্গবন্ধু শেখমুজিবুর রহমানের ৭ই মার্চের ভাষণ হচ্ছে পৃথিবীর ইতিহাসে একমাত্র ভাষণ। এই ভাষণ যতবার বাজানো হয়েছে আর কোন নেতার ভাষণ এতবার বাজানো হয়নি।

তিনি আরো বলেন সারা বাংলায় টেকনাফ থেকে তেতুলিয়া রূপসা থেকে পাথরিয়া একই আওয়াজ উঠেছে শেখহানিার সরকার বারবার দরকার। নারীদের জন্য শেখহাসিনা সরকার উন্নয়নের মাইল ফলক। নারীদের কল্যানে তিনি বিধবাভাতা প্রচলন করেছেন। সেনাবাহিনী, নৌ-বাহিনী, বিমানবাহিনীতে নারীদের কর্মসংস্থানের সুযোগ করে দিয়েছে। এছাড়াও তিনি মুক্তিযোদ্ধাদের কল্যানে মুক্তিযোদ্ধাভাতা, বয়স্কভাতা, বিধবাভাতা, গ্রামে গ্রামে কমিউনিটি ক্লিনিক স্থাপনের মাধ্যমে দেশকে সামনের দিকে এগিয়ে নেওয়া প্রত্যয়ে শেখহাসিনা উন্নয়নের মাইলফলক স্থাপন করেন।

বেগম খালেদা জিয়া প্রসঙ্গে এনামুল হক শামীম বলেন খালেদা জিয়া তার সরকারের আমলে দূনীতির পাহাড় গড়েছেন। হাওয়া ভবনের কথা মানুষ এখনো ভুলেনি। সারা বাংলায় একটা শ্লোগান ছিলো মা-পুতে মিল্লা দেশটা খাইছে গিল্লা। ওরা দূনীতিবাজ, ওরা এতিমের টাকা লুট করে খেয়েছে। ওরাি বাংলাদেশের শতকোটি টাকা বিদেশে পাচার করেছে। ওরা বিদেশে বিলাসীতায় জীবন যাপন করছে।

খালেদা জিয়ার আমলে সার চাইতে গিয়ে কৃষক গুলি খেয়ে মরেছে, শ্রমিক হত্যা হয়েছে, ছাত্রদেরকে ট্রাক এর নিচে পৃষ্ঠে মারা হয়েছে। আজকের বাংলাদেশে ওই খালেদা জিয়ারা আর ক্ষমতায় আসার সম্ভাবনা নেই। বেগম খালেদা জিয়াকে বাংলাদেশের মানুষতো দূরের কথা বিএনপি’র নেতা কর্মীরাও মানেনা। তিনি সর্ব ক্ষেত্রে ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছে। তিনি ঘরে বসে আন্দোলনের ডাকদেন। মানুষ মারার হুকুম দেন। নেতাকর্মীদের মাঠে নামার নির্দেশ দেন। তিনি শুধু শেখহাসিনা কে ক্ষমতা থেকে নামিয়ে দেওয়ার তারিখ ঘোষণা করনে। তাতেও তিনি ব্যর্থ হয়েছেন। পেট্রোল বোম মারিয়ে হাজারো মানুষকে আগুনে পুড়িয়ে হত্যা করিয়েছেন, বাস পুড়িয়েছেন, গাড়ি জ্বালিয়ে দিয়েছিলেন, মায়ের কোল থেকে মেয়েকে হত্যা করেছেন। আর তিনি আগুনের সন্ত্রাসী নামে বেগম খালেদা জিয়া বাংলাদেশের মানুষের কাছে পরিণত হয়েছেন।
 
উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি একেএম নুরুল আমিন মাস্টারের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন জেলা আ. লীগ সাধারণ সম্পাদক এড নুরউদ্দিন চৌধুরী নয়ন, জেলা যুবলীগ আহবায়ক একেএম সালাহ উদ্দিন টিপু, ১৪দলের সমন্বয়ক এড. আনোয়ারুল হক ও এড.একেএম নুরুল আমিন রাজুসহ প্রমূখ।

আর্কাইভ