মঙ্গলবার, ১৭ অক্টোবর ২০১৭রেজি:/স্মারক - ০৫.৪২.৫১০০.০১৪.৫৫.০৩৭.১২-৫৬২
Menu

১৪ মার্চ লক্ষ্মীপুরে আসছেন প্রধানমন্ত্রী

১৪ মার্চ লক্ষ্মীপুরে আসছেন প্রধানমন্ত্রী

সাম্প্রতিক স্বদেশ ডেক্স: আসছে ১৪মার্চ মঙ্গলবার বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভানেত্রী গনতন্ত্রের মানসকন্যা, সফল প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার লক্ষ্মীপুর জেলায় আগমন সফল করে তোলার লক্ষ্যে ব্যাপক প্রস্তুতি নিচ্ছে জেলা আওয়ামী লীগ ও অঙ্গসংগঠন।

এ উপলক্ষে সোমবার (৬ মার্চ ) বিকেলে জেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে লক্ষ্মীপুর জেলা স্টেডিয়াম মাঠে এক প্রস্তুতি সভার আয়োজন করা হয়েছে। এতে উপস্থিত থাকবেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক একেএম এনামুল হক শামিমসহ জেলা আওয়ামী লীগ ও অঙ্গসংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

প্রধানমন্ত্রীর সফর উপলক্ষে রোববার (৫ মার্চ) বিকেলে জেলা প্রশাসনের প্রস্তুতি সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। জেলা প্রশাসক সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত সভায় সভাপতিত্ব করেন জেলা প্রশাসক মো. জিল্লুর রহমান চৌধুরী। এসময় উপস্থিত ছিলেন লক্ষ্মীপুর-৩ আসনের সংসদ সদস্য একেএম শাহজাহান কামাল, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. শামসুল ইসলাম, পুলিশ সুপার আসম মাহাতাব উদ্দিন, সিভিল সার্জন ডা. মোস্তফা খালেদ ও অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক শেখ মুর্শিদুল ইসলাম, পৌর মেয়র এম এ তাহের , এডিসি রেভিনিউ মীর শতকত হোসেন, সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ নুরুজ্জমান, জেলা তথ্য অফিসার আবদুল্যাহ আল-মামুন, সদর এসিল্যান্ড মোঃ রুহুল আমিন, এনডিসি মোঃ আনিসুজ্জামানসহ বিভিন্ন সেবা সংস্থার (গ্যাস, বিদ্যুৎ, ফায়ার সার্ভিস) কর্মকর্তা প্রমূখ।

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের জনপ্রসাশন মন্ত্রনালয়ের সংসদীয় স্থায়ী কমিটির অন্যতম সদস্য, লক্ষ্মীপুর-৪ (রামগতি-কমলনগর) আসনের সংসদ সদস্য বীরমুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব মোহাম্মদ আবদুল্লাহ আল মামুন (এমপি) বলেন, প্রধানমন্ত্রী লক্ষ্মীপুর আসছেন এটা রামগতি কমলনগর নয় পুরো লক্ষ্মীপুর জেলাবাসীর জন্য সু-খবর ও আনন্দের সংবাদ। প্রিয় মাতৃভূমি রামগতি-কমলনগর উপজেলায় সাড়ে সাতত্রিশ কিলোমিটার জুড়ে মেঘনার ভয়াবহ ভাঙন কবলিত এলাকা। এতে সাড়ে পাঁচ কিলোমিটার (রামগতি এক কিলোমিটার, আলেকজান্ডার সাড়ে তিন কিলোমিটার ও কমলনগরে এককিলোমিটার) তীরবক্ষা বাধেঁর কাজ চলমান রয়েছে। ঐ দিন আমরা মেঘনান করালগ্রাস থেকে রামগতি-কমলনগর উপজেলা তথা নিরন্ন গরীব দুঃখী মানুষের একমাত্র বেঁচে থাকার সম্ভল বসতভিটা রক্ষার্থে বাকি ৩২ কিলোমিটার কাজের বাস্তবায়ন করার লক্ষে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে জোরদাবি জানাতে হবে।

জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক এড. নুরউদ্দিন চৌধুরী নয়ন বলেন, ১৪ই মার্চ মঙ্গলবার মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাংগঠনিক সফরে লক্ষ্মীপুর আসছেন। এ উপলক্ষে জেলা স্টেডিয়ামে জনসভাকে সফল করতে দলীয় ভাবে সকল ধরনের প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে।

দলীয় সূত্রে জানাযায়, গত ২০১৫ সালের নভেম্বর মাসে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সিদ্ধান্ত নিয়েছেন যে, অনেক দিন না যাওয়া জেলা গুলোতে সফর করবেন প্রধানমন্ত্রী। ওই সময় তাঁর ব্যক্তিগত কর্মকর্তাদের এমন জেলার তালিকা তৈরির নির্দেশ ও দিয়েছেন তিনি।

সূত্র জানায়, ২০১৫ সালে নেদারল্যান্ডস থেকে দেশে ফেরার পর সহযোগী সংগঠনের নেতারা তাকে শুভেচ্ছা জানাতে গণভবনে যান। ওই সময় প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময়কালে স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক পংকজ দেবনাথ প্রধানমন্ত্রীকে বলেন, সংগঠনের কাজে তিনি লক্ষ্মীপুর (১৯ অক্টোবর ২০১৫) গিয়েছিলেন। সেখানকার মানুষ প্রধানমন্ত্রীকে দেখতে চান। পংকজ দেবনাথ প্রধানমন্ত্রীর অনেকদিন সেখানে না যাওয়ার বিষয়টিও স্মরণ করিয়ে দেন।

এর পরিপ্রেক্ষিতে প্রধানমন্ত্রী তাৎক্ষণিকভাবে সেখানে থাকা তার ব্যক্তিগত কর্মকর্তাদের অনেক দিন না যাওয়া জেলাগুলোর তালিকা করতে বলেন। তিনি দ্রুতই এমন জেলাগুলো সফর করবেন বলে সিদ্ধান্ত  জানান।যেসব জেলায় একেবারেই যাননি এ তালিকায় আছে লক্ষ্মীপুর, মাগুরা, চুয়াডাঙ্গা, নড়াইলের পাশাপাশি বরিশাল এবং চট্টগ্রাম বিভাগের বেশকিছু জেলা।

প্রধানমন্ত্রী হিসেবে বিদেশের পাশাপাশি দেশের অভ্যন্তরেও রাষ্ট্রীয় কর্মসূচিতে যোগ দিতে বিভিন্ন জেলায় যেতে হয় আওয়ামী লীগ সভানেত্রীকে। ব্যক্তিগত ভাবেও তিনি তৃণমূলে গিয়ে কাজ করতে পছন্দ করেন। গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান চিরনিদ্রায় শায়িত আছেন। মেহেরপুরের বৈদ্যনাথ তলায় বাংলাদেশের প্রথম সরকার গঠিত হয়েছিল। জাতীয় কর্মসূচি পালনের জন্য সরকার প্রধান হিসেবে তিনি প্রতিবছরই এ দুই জেলায় যান। দেশের সার্বিক অবস্থা, মানুষের জীবনযাত্রা স্বচক্ষে দেখতে চান তিনি। সে বিবেচনায় লক্ষ্মীপুর জেলা এবার গুরুত্ব পাবে।

আর্কাইভ