বুধবার, ১৭ জানুয়ারী ২০১৮রেজি:/স্মারক - ০৫.৪২.৫১০০.০১৪.৫৫.০৩৭.১২-৫৬২
Menu

রামগতিতে গৃহবধু মেঘলা হত্যার প্রতিবাদে বিক্ষোভ সমাবেশ, মানববন্ধন ও স্মারকলিপি প্রদান

রামগতিতে গৃহবধু মেঘলা হত্যার প্রতিবাদে বিক্ষোভ সমাবেশ, মানববন্ধন ও স্মারকলিপি প্রদান

রামগতি(লক্ষ্মীপুর)প্রতিনিধি : লক্ষ্মীপুরের রামগতি পৌরসভায় ফাতেমা তুজ জোহরা মেঘলা (২০) নামের গৃহবধুকে পরিকল্পিত ভাবে নির্মম নির্যাতন করে হত্যার রহস্য উৎঘাটন এবং দোষী ব্যক্তিদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবীতে গণবিক্ষোভ সমাবেশ, মানববন্ধন ও স্মারকলিপি প্রদান কর্মসূচী অনুষ্ঠিত হয়েছে।

মঙ্গলবার (১৪ ফেব্রুয়ারী) সকাল ১১টার সময় রামগতি উপজেলা পরিষদ সম্মুখে প্রধানসড়কে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ এবং রামগতি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার মাধ্যমে জেলা প্রশাসক বরাবরে স্মারকলিপি প্রদান করেছেন আসম আবদুর রব সরকারী কলেজের ছাত্র-ছাত্রীবৃন্দ, সচেতন ছাত্র সমাজ, বে-সরকারী স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা নিজেরা করি সহ বেশ কয়েকটি সামাজিক, রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন।

মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশে সহস্রাধিক ছাত্র-ছাত্রী ও আমজনতা একত্রিত হয়ে মেঘলা হত্যাকান্ডের রহস্য উৎঘাটন ও দায়ী ব্যক্তিদের দ্রুত গ্রেফতার এবং দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবীতে শ্লোগান দেয়।

সমাবেশে অন্যান্যের মাঝে বক্তব্য রাখেন  রামগতি উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক মেজবাহ উদ্দিন ভিপি হেলাল, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সভাপতি নেছার উদ্দিন, ছাত্রনেতা সাইফুদ্দিন আহম্মেদ বাবু, জাহিদ হোসেন বাপ্পি, হাসিবুল ইসলাম আজাদ, ছাত্রনেতা সাদ্দাম হোসেন, শিক্ষার্থী নুসাইবা তানজুম তাসনিম, নিজেরা করি আঞ্চলিক সমন্বয়কারী মমতাজ বেগম, ভূমিহীন নেতা ছিদ্দিকুর রহমান প্রমূখ।

প্রসঙ্গতঃ গত রোববার (৫ ফেব্রুয়ারী) রাত ৯ টায় রামগতি পৌরসভার ৬ নং ওয়ার্ডের শাহজাহান মাষ্টারের বাসায় তার ছেলে ইমরান ওরপে এনাম এর স্ত্রী  ভোলা জেলা সদরের পৌরসভার নবীপুর এলাকার শহিদুল হক টিটুর মেয়ে আলেকজান্ডার আসম আবদুর রব সরকারী কলেজ স্নাতকশ্রেণীর প্রাক্তন ছাত্রী ফাতেমা তুজ জোহরা মেঘলার রহস্যজনক মৃত্যুর ঘটনা ঘটে।  
হত্যাকান্ডের পর তার পিতা শহিদুল হক টিটু বাদী হয়ে রামগতি থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন সং/০৩ এর ১১(ক)/৩০ ধারায় মামলা দায়ের করেন। (রামগতি থানার মামলা নং ০২ তারিখ ৬ফেব্রুয়ারী ২০১৭খ্রি:) ঘটনার পরপরই রামগতি থানা পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে লাশ উদ্ধার করে কিন্তু  ঘটনার রহস্য উদঘাটনের জন্য মূল হোতা ইমরান ওরপে এনাম সহ সংশ্লিষ্টদের গ্রেফতার করতে পুলিশ ব্যর্থ হয়েছেন।
মেঘলাকে নির্মম শারিরীক নির্যাতন করে শ্বাসরুদ্ধ করে হত্যার পর ইমরান পালিয়ে যায় কিন্তু ইমরানকে ধরার জন্য পুলিশ কোন গোয়েন্দা তৎপরতা চালায়নি এমনকি ঘটনার মূল রহস্য উৎঘাটনে কার্যকর কোন তৎপরতা লক্ষ্য করা যায় নাই।

মানববন্ধন শেষে রামগতি থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ ইকবাল হোসেনকে তাৎক্ষণিক মানববন্ধনের স্মারকলিপি প্রদান করা হয় এবং সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে ওসি তার প্রতিক্রিয়ায় জানান, মেঘনার খুনীদের গ্রেফতারের ব্যাপারে সর্বোচ্চ প্রচেষ্টা ও প্রযুক্তির ব্যবহার করা হচ্ছে।

মেঘনাকে কিভাবে হত্যা করা হলো এমন  প্রশ্নের জবাবে ওসি আরো বলেন, তার ডিএনএ টেষ্টের জন্য পাঠিয়েছি, ফলাফল আসার পর হত্যার রহস্য জানা যাবে।
সচেতন সমাজ একজন মুক্তমনা শিল্পী ও সাংস্কৃতিক কর্মী মেঘলার হত্যাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী জানায়।

আর্কাইভ