মঙ্গলবার, ১৬ জানুয়ারী ২০১৮রেজি:/স্মারক - ০৫.৪২.৫১০০.০১৪.৫৫.০৩৭.১২-৫৬২
Menu

সাংবাদিক নির্যাতনে বিএনপি বিশ্ব রেকর্ড করেছিল-ওবায়দুল কাদের

সাংবাদিক নির্যাতনে বিএনপি বিশ্ব রেকর্ড করেছিল-ওবায়দুল কাদের

এমআর রিয়াদ, নোয়াখালী প্রতিনিধি: আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সড়ক পরিবহন সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ‘বিএনপির শাসন আমলে সাংবাদিক মানিক সাহা, হুমায়ুন কবির বালু, যশোরের শামসুর রহমানসহ সারা দেশের তৃণমূল পর্যায়ের শতাধিক সাংবাদিককে নির্যাতন করে হত্যা করা হয়েছিল। সাংবাদিক নির্যাতনে বিএনপি বিশ্ব রেকর্ড করেছিল।’ বিএনপির মুখে আওয়ামী লীগ শাসন আমলে সাংবাদিক নির্যাতনের কথা ভুতের মুখে রামনাম ধনী ছাড়া আর কিছুই নয়।

মন্ত্রী শনিবার (৪ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ থানার নতুন ভবন উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।

মন্ত্রী আরো বলেন, আওয়ামী লীগ শাসন আমলে বিএনপির কত লোক মারা গেছে তার নাম ঠিকানা দিয়ে বলুক। আওয়ামী লীগের জনপ্রীয় নেতা আহছান উল্যাহ মাষ্টার, এইচএম কিবরিয়া, নাটরের মমতাজ উদ্দিন দলের প্রথম সারির নেতা ও তৃণমূল পর্যায়ের কর্মীসহ নির্যাতন করে ২১হাজার লোককে হত্যা করা হয়েছিল বিএনপির শাসন আমলে।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন, ইন্সপেক্টর জেনারেল অফ পুলিশ (আইজিপি) একেএম শহিদুল হক বিপিএম. পিপিএম, চট্টগ্রাম রেঞ্জের অতিরিক্ত ডিআইজ মাহবুবুর রহমান, নোয়াখালীর জেলা প্রশাসক বদরে মুনির ফেরদৌস, নোয়াখালীর পুলিশ সুপার মো. ইলিয়াছ শরীফ, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার নব জ্যোতি খিশা, নোয়াখালীর পৌরসভার মেয়র শহীদুল্ল্যাহ খান সোহেল, বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আবদুল কাদের মির্জা, কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান বাদল, অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সৈয়দ মোহাম্মদ ফজলে রাবিব, আবদুল মজিদ, জেলা আওয়ামীলীগের শিল্প ও বাণিজ্য সম্পাদক নাজমুল হক নাজিম, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা খিজির হায়াত খান, সাধারণ সম্পাদক নুরনবী চৌধুরী প্রমূখ।

এরআগে সকালে নোয়াখালী শহীদ ভুলু স্টেডিয়ামে নোয়াখালী জেলা পুলিশ কর্তৃক আয়োজিত কমিউনিটি পুলিশিং সমাবেশে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে সমাবেশের উদ্বোধন করেন ওবায়দুল কাদের।
সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী বলেন, গুটি কয়েক অসৎ পুলিশ সদস্যের ঘুষ, দুর্নীতি ও অন্যায়ের দায়ভার পুরো বাহিনী নিতে পারে না। তিনি সম্প্রতি কয়েকটি জঙ্গী আস্তানায় পুলিশের সাহসী অভিযান ও মাদক নিয়ন্ত্রণে ভূমিকার কথা তুলে ধরেন। শুধু পুলিশ ঘুষ খায় তা নয়, রাজনীতিকরাও ঘুষ খায়। টাকার বিনিময়ে চাকরির জন্য সুপারিশ, তদবির সবই করে রাজনীতিকরা। নির্বাচন এলে রাজনীতির অঙ্গন টাকায় বেচা-কেনা হয়। রাজনীতিকদেরও সৎ হতে হবে। সততা ও নিষ্ঠার সাথে রাজনীতি করার কারণে দেশের ঐতিহ্যাবহী দল আ.লীগের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পেয়েছেন তিনি। তাই দলীয় সাংসদসহ নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে বলেন, মনে রাখবেন সততাই শক্তি, সততাই মুক্তি। ত্যাগীদের মূল্যায়ন হবেই। দেশের দুই অভিন্ন শত্রু জঙ্গীবাদ ও মাদক নির্মূলে জনপ্রনিধিদের স্ব স্ব নির্বাচনী এলাকার পুলিশ প্রশাসনকে সহযোগিতা করার অনুরোধ জানান। জঙ্গীবাদ ও মাদক কারো বন্ধু হতে পারে না। রাজনীতি নয় দেশকে বাঁচাতে হবে। তাই দল-মত নির্বিশেষে সকল রাজনীতিকদের এগিয়ে আসতে অনুরোধ জানান মন্ত্রী।

আর্কাইভ