বুধবার, ১৭ জানুয়ারী ২০১৮রেজি:/স্মারক - ০৫.৪২.৫১০০.০১৪.৫৫.০৩৭.১২-৫৬২
Menu

রামগতিতে গৃহবধুকে হত্যা-আটক ২

রামগতিতে গৃহবধুকে হত্যা-আটক ২

রামগতি(লক্ষ্মীপুর)প্রতিনিধি: লক্ষ্মীপুরের রামগতি উপজেলায় মেঘলা (২২) নামের গৃহবধুকে নির্মম নির্যাতন করে হত্যার ঘটনা ঘটেছে।

নিহত মেঘলা ভোলা জেলা সদরের সহিদুল হক টিটুর মেয়ে। গত কয়েক বছর আগে প্রেমের সম্পর্কের মাধ্যমে রামগতি পৌরসভার ৬ নং ওয়ার্ডের শাহাজাহান মাষ্টারে ছেলে ইমরান ওরপে এনামের সাথে তার বিয়ে হয়।
রোববার (৫ফেব্রুয়ারী) রাত ৯ ঘটিকায় রামগতি উপজেলার সদর আলেকজান্ডার পৌরসভা সংলগ্ন শাহাজাহান মাষ্টারের বাসায় হত্যার ঘটনা ঘটে।

এব্যাপারে মেয়ের পিতা শহিদুল হক টিটু বাদী হয়ে রামগতি থানায় মামলা দায়ের করে। ঘটনার পরপরই রামগতি থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে লাশ উদ্ধার করে এসময় ঘটনার রহস্য উদঘাটনের স্বার্থে শাহাজাহান মাষ্টার ও তার মেয়ে রোমানাকে আটক করে। এবিষয়ে রামগতি থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোহাম্মদ ইকবাল হোসেন বলেন মামলা প্রক্রিয়াধীন, লাশ ময়না তদন্তের জন্য লক্ষ্মীপুর সদর হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।

স্থানীয় সূত্রে জানাযায়, তাদের মধ্যে দ্বীর্ঘদিন থেকে দাম্পত্য কলহ চলছিল। ইমরান মেঘলার পরিবারের কাছ থেকে যৌতুকের জন্য এবং খুটিনাটি বিষয় নিয়ে প্রায়ই নির্যাতন করতো তাকে। মেঘলা তার পরিবারের কাছ থেকে বেশ কয়েকবার যৌতুক বাবদ টাকা এনে তাকে দিয়েছে। এর পরও আরো টাকার জন্য সে মেঘলাকে প্রায়ই নির্যাতন করতো। ঘটনার দিন  মেঘলার সাথে পরিবারিক বিষয় নিয়ে কথাকাটির এক পর্যায়ে সে মেঘলাকে নির্মম শারিরীক নির্যাতন করে শ^াসরুদ্ধ করে হত্যার পর ইমরান পালিয়ে যায়। লাশের শরীরের বিভিন্ন যায়গায় নির্যাতনের চিহ্ন রয়েছে বলে থানা সূত্রে জানাযায়।

বিশ্বস্তসূত্রে জানাযায়, মেঘলা হত্যাকান্ডের সাথে ইমরান ও তার পরিবারের লোকজন এবং ইমরানের কয়েকজন ঘনিষ্ঠ বন্ধু জড়িত রয়েছে বলে এলাকায় গুঞ্জন শুনা যায়। মেঘলা হত্যাকান্ডের ফলে এলাকার জনমনে চাপা ক্ষোভ বিরাজ করছে।

আর্কাইভ