মঙ্গলবার, ১৬ জানুয়ারী ২০১৮রেজি:/স্মারক - ০৫.৪২.৫১০০.০১৪.৫৫.০৩৭.১২-৫৬২
Menu

আলোকিত মানুষকে বাংলাদেশ শিশু একাডেমির সম্মাননা প্রদান

 আলোকিত মানুষকে বাংলাদেশ শিশু একাডেমির সম্মাননা প্রদান


লক্ষ্মীপুর থেকে: গুণী মানুষকে সম্মান জানানোর মধ্য দিয়ে একটি সমাজে গুণী মানুষের সংখ্যা বৃদ্ধি পায়। ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহ’র মতে, যে জাতি তার গুণীকে সম্মান করে না সে জাতিতে গুণী জন্ময় না। লক্ষ্মীপুরে একজন আলোকিত মানুষকে বাংলাদেশ শিশু একাডেমির সম্মাননা প্রদান করা হয়েছে। ফুলেল শুভেচ্ছায় অভিষিক্ত হয়েছেন সেই আলোকিত মানুষ মুহম্মদ রাজ্জাকুল হায়দার।

সম্প্রতি বাংলাদেশ শিশু একাডেমি স্থানীয় পর্যায়ে খ্যাতিমান কবি, সাহিত্যিক, শিল্পী, শিক্ষাবিদ ও সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্বদের প্রতিবছর জন্ম দিবস উদ্যাপনের কর্মসূচী গ্রহন করেছে। এরআগেও অনুরূপ কর্মসূচী নেয়া হয়েছিল। পরে সে কর্মসূচী বন্ধ হয়ে যায়। আশা করা যায়, ভবিষ্যতে এ কর্মসূচী অব্যাহত থাকবে।

গত ৫ জুন, লক্ষ্মীপুর জেলা শিশু একাডেমি এক আনুষ্ঠানিকতা মধ্য দিয়ে বীর মুক্তিযোদ্ধা, শিক্ষাবিদ, ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব মুহম্মদ রাজ্জাকুল হায়দার এর জন্মোৎসব পালন করে । লক্ষ্মীপুর আদর্শ সামাদ সরকারী উচ্চ বিদ্যালয় আডিটরিয়ামে এক আড়ম্বর আনুষ্ঠায়িকতা ‘মুহম্মদ রাজ্জাকুল হায়দর ; শুভ জন্মোৎসব’ নামে অনুষ্ঠানটি অনুষ্ঠিত হয়।

ফুলেল শুভেচ্ছায় এ অনুষ্ঠানে ‘মুহম্মদ রাজ্জাকুল হায়দার; একজন আলোকিত মানুষের জীবন ও কর্ম’ নামে বইয়ের মোড়ক উম্মোচন, বাংলাদেশ শিশু একাডেমির উত্তরীয় পরিয়ে দেয়া, জন্ম দিনের কেক কাটা, সম্মাননা স্মারক হিসেবে ক্রেষ্ট ও সনদপত্র প্রদান করা এবং তাঁর স্মরণীয় জীবন-স্মৃতি তুলে ধরা হয়। অনুষ্ঠানের শেষদিকে স্কুল ও শিশু-কিশোর সংগঠন সমূহের পরিবেশনায় সাংস্কৃতি উৎসব -২০১৬ অনুষ্ঠিত হয়।

শুভ জন্মোৎসব অনুষ্ঠানে জেলা প্রশাসক মোঃ জিল্লুর রহমান চৌধুরী প্রধান অতিথি ছিলেন। অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোঃ সাজ্জাদুল হাসানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত অনুষ্ঠানমালায় লক্ষ্মীপুর সরকারী কলেজের সহযোগী অধ্যাপক মোঃ মাইন উদ্দিন পাঠান, মুক্তিযোদ্ধা সংসদের ডেপুটি ইউনিট কমান্ডার কাজল কান্তি দাস, জেলা জাতীয় মহিলা সংস্থার চেয়ারম্যান ফরিদা ইয়াসমিন লিকা, জেলা শিশু বিষয়ক কর্মকর্তা আবদুল্লাহ আল জব্বার সহ জেলা পর্যায়ের সরকারী কর্মকতা, বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-শিক্ষিকা ও ছাত্র-ছাত্রী বৃন্দ এবং শিশু সংগঠন সমূহের কর্মকর্তা ও শিশুবন্ধুগণ অংশগ্রহন করেন।

জেলা প্রশাসক অনুষ্ঠানে উপস্থিত শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে বলেন, তোমরা একদিন আলোকিত মানুষ হবে, তোমাদের থেকেই একদিন এরকম আলোকিত মানুষের অনুষ্ঠান করা হবে। প্রতি বছর আমরা আলোকিত মানুষের পরিচিতি শিশুদের মাঝে তুলে ধরবো। তোমরা প্রকৃত মানুষ হবে নিজেরা সেই ওয়াদা করতে হবে।

 উল্লেখ্য, মুক্তিযুদ্ধে লক্ষ্মীপুরের অন্যতম প্রধান সংগঠক মরহুম রফিকুল হায়দর চৌধুরীর (রফিক স্যার) ছোট ভাই মুহম্মদ রাজ্জাকুল হায়দার ১৯৫১ সালে সদর উপজেলার হাসন্দি গ্রামে এক শিক্ষক পরিবারে জন্ম গ্রহন করেন। তার পিতা এ কে এম মোখলেসুর রহমান মাষ্টার একজন স্বনামধন্য শিক্ষক ছিলেন।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াকালীন সময়ে তিনি ছাত্র রাজনীতিতে জড়িয়ে পড়েন। ১৯৬৯ সালে ১১ দফা আন্দোলনে গ্রেফতার হন। ১৯৭১ সালে ভারতের উত্তর প্রদেশের দেরাদুনে যুদ্ধের তাত্ত্বিক ও অস্ত্র চালনার প্রশিক্ষণ নেন এবং দেশে ১৭টি অপারেশনে যুদ্ধ করেন। তিনি ১৯৭২ সালে বিএ অর্নাস ও ১৯৭৩ সালে এমএ ডিগ্রী নেয়ার পর শিক্ষকতা জীবন শুরু করেন।

শেষ জীবনে লক্ষ্মীপুর আদর্শ সামাদ সরকারী উচ্চ বিদ্যালয়, ঢাকার মুসলিম হাই স্কুল, গভর্ণমেন্ট ল্যাবরেটরি হাই স্কুল, মতিঝিল হাই স্কুল, আরমানিটোলা হাই স্কুলে শিক্ষকতা করেন। এছাড়া গণভবন সরকারী হাই স্কুলে সহকারী প্রধান শিক্ষক এবং কুমিল্লা গভর্নমেন্ট ল্যাবরেটরি হাই স্কুল ও জেলা স্কুলে প্রধান শিক্ষকের দায়িত্ব পালন করেন।

তিনি কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয় জীবনে ফুটবল ও ভলিবল খেলোয়াড় হিসেবে কৃতিত্বের স্বাক্ষর রাখেন। উভয় খেলায় জহুরুল হক হল টীমের নিয়মিত সদস্য ছিলেন। জাতীয় দলের খেলোয়াড়দের সাথে ফুটবল খেলেছেন। লক্ষ্মীপুর আদর্শ সামাদ উচ্চ বিদ্যালয়ে শিক্ষকতাকালে নিত্য ফুটবল চর্চা ও খেলোয়ার সৃষ্টিতে তাঁর ব্যাপক ভুমিকা ছিল।

ছাত্র জীবন থেকে মঞ্চ নাটকে অভিনয় করতেন। তিনি একজন সফল নাট্যাভিনেতা ও নাট্য নির্দেশক। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে সূর্যসেন হল ও টি এস সি অডিটরিয়াম, লক্ষ্মীপুর টাউন হল, লক্ষ্মীপুর থিয়েটার সহ মফস্বলের অনেক মঞ্চে অভিনয় করেছেন ও নির্দেশনা দিয়েছেন । উল্লেখযোগ্যের মধ্যে মায়াবী প্রহর, ইবলিশ, ওরা কদম আলী, কুয়াশা কান্না, সামনের পৃথিবী, লালন ফকির, এক মুঠো ভাত, করিম চাচা মরেনি (স্বরচিত) নাটকে কাজ করেন।


আর্কাইভ