শুক্রবার, ১৯ জানুয়ারী ২০১৮রেজি:/স্মারক - ০৫.৪২.৫১০০.০১৪.৫৫.০৩৭.১২-৫৬২
Menu

বেগমগঞ্জ ও সেনবাগে ৮১ কেন্দ্র স্থগিত, নিহত-২, আহত শতাধিক

বেগমগঞ্জ ও সেনবাগে ৮১ কেন্দ্র স্থগিত, নিহত-২, আহত শতাধিক


শনিবার, ২৮ মে ২০১৬
এম.আর রিয়াদ, নোয়াখালী প্রতিনিধি: ভোট কেন্দ্রে হামলা, বিশৃঙ্খলা, ব্যালট বক্স, পেপার ছিনতাই, বিচ্ছিন্ন সংঘর্ষের মধ্য দিয়ে নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ ও সেনবাগ উপজেলার ২৩২টি কেন্দ্রের ভোটগ্রহণ সম্পন্ন হয়েছে। বিভিন্ন ঘটনায় দুই উপজেলার ৮১টি কেন্দ্রের ভোটগ্রহণ স্থগিত করে প্রিজাইডিং অফিসারগণ। এদিকে একটি কেন্দ্রে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের ধাওয়া করার সময় দৌঁড়ে পালাতে গিয়ে সৈয়দ আহম্মদ (৬৫) নামের একজন এবং অন্য একটি কেন্দ্রে গুলিবিদ্ধ হয়ে শাকিল (১৫) নামের একজন নিহত হয়েছেন। বিচ্ছিন্ন সংঘর্ষে আরো ৩জন গুলিবিদ্ধসহ আহত হয়েছে অন্তত শতাধিক ব্যাক্তি আহত হয়েছেন।
শনিবার সকাল সাড়ে ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত সেনবাগ ও বেগমগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন কেন্দ্রে এসব ঘটনা ঘটে। নিহতরা হচ্ছেন বেগমগঞ্জ উপজেলার রাজগঞ্জ ইউনিয়নের ছোট হোসেনপুর গ্রামের মৃত সামছুল হকের ছেলে সৈয়দ আহমদ ও একই উপজেলার জিরতলী ইউনিয়নের উত্তর জিরতলী গ্রামের মিলন হোসেনের ছেলে শাকিল আহমেদ।
স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, সকাল ৮টা থেকে জেলার বেগমগঞ্জ উপজেলার ১৬টি ও সেনবাগ উপজেলার ৯টি ইউনিয়নের মোট ২৩২টি কেন্দ্রে একযোগে ভোটগ্রহণ শুরু হয়। শান্তিপূর্ণভাবে ভোটগ্রহণ শুরু হলেও বেলাবাড়ার সাথে সাথে অনেকগুলো কেন্দ্রে বিভিন্ন প্রার্থীর সমর্থকরা ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া, সংঘর্ষ, ব্যালট বক্স ও পেপার ছিনতাই’এর ঘটনা ঘটে। এসময় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ ধাওয়া, লাঠিচার্জ ও কয়েক রাউন্ড গুলি ছুঁড়ে। সংঘর্ষে দুটি উপজেলার বিভিন্ন কেন্দ্রে ৪জন গুলিবিদ্ধসহ অন্তত শতাধিক ব্যক্তি আহত হয়েছেন।
পরে এসব ঘটনায় বেগমগঞ্জ উপজেলার ১৪৯টি কেন্দ্রের মধ্যে ৫৫টি ও সেনবাগ উপজেলার ৮৩টি কেন্দ্রের মধ্যে ২৬টি কেন্দ্রের ভোটগ্রহণ স্থগিত করেন স্ব-স্ব কেন্দ্রের প্রিজাইডিং অফিসারগণ।

এদিকে সকাল ১১টার দিকে একদল দূর্বৃত্ত বেগমগঞ্জ উপজেলার রাজগঞ্জ ইউনিয়নের ‘রাজগঞ্জ সিনিয়র ফাজিল মাদ্রাসা’ কেন্দ্রে হামলা চালিয়ে ব্যালট বক্স ছিনতাই করে নেওয়ার চেষ্টা করে। পরে পুলিশ তাদের ধাওয়া করে। এসময় ভোট দিয়ে কেন্দ্র থেকে বের হয়ে যাওয়ার সময় ভয়ে দিকবেদিক ছুঁটাছুঁটি করার সময় দেওয়ালের সাথে মাথায় আঘাত লেগে সৈয়দ আহমদ নামের এক ব্যক্তি আহত হয়। পরে তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নেওয়ার পথে তার মৃত্যু হয়।
নিহতের ভাতিজা বেলায়েত হোসেন জানান, তার চাচা ভোট দিয়ে বের হওয়ার সময় পুলিশ কেন্দ্রে বিশৃঙ্খলাকরীদের ধাওয়া করে। এসময় তিনি ভয় পেয়ে দৌঁড় দিতে গেয়ে দেওয়ালের সাথে আঘাত লেগে মারা যান।

অপরদিকে দুপুর দেড়টার দিকে বেগমগঞ্জ উপজেলা জিরতলী ইউনিয়নের ‘কেবি ইউনিয়ন উচ্চ বিদ্যালয়’ কেন্দ্রে পুলিশের সাথে একদল দূর্বৃত্তের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। এসময় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ কয়েক রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছুঁড়লে শাকিল আহমেদ, জসিম উদ্দিন ও রাব্বি’সহ ৪জন গুলিবিদ্ধ হয়।
স্থানীয়রা আহতদের উদ্ধার করে প্রথমে স্থানীয় একটি হাসপাতালে ভর্তি করে। পরে শাকিল ও জসিমের অবস্থার অবনতি হলে তাদের উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা নেওয়ার পথে কুমিল্লায় শাকিলের মৃত্যু হয়।
৮১টি কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ স্থগিতের বিষয়টি বেগমগঞ্জ উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো. আনিসুজ্জামান ও সেনবাগ উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো. শহীদুর রহমান নিশ্চিত করেছেন।

বেগমগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সাজেদুর রহমান সাজিদ জানান, দুপুরে একদল দূর্বৃত্ত জিরতলী ইউপির ‘কেবি ইউনিয়ন উচ্চ বিদ্যালয়’ কেন্দ্র এলাকায় সড়কে বেরিকেট সৃষ্টি করে। পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছলে তারা পুলিশের ওপর হামলা চালায়। এসময় পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করতে কয়েক রাউন্ড গুলি ছূঁড়ে।


আর্কাইভ