শুক্রবার, ১৯ জানুয়ারী ২০১৮রেজি:/স্মারক - ০৫.৪২.৫১০০.০১৪.৫৫.০৩৭.১২-৫৬২
Menu

পদ আপ-গ্রেডেশনের মাধ্যমে বেতন বৈষম্য নিরসনের দাবিতে সংবাদ সংম্মেলন

পদ আপ-গ্রেডেশনের মাধ্যমে বেতন বৈষম্য নিরসনের দাবিতে সংবাদ সংম্মেলন

মঙ্গলবার ১৫ মর্চ ২০১৬ সময়: ০৫:৪০পিএম
প্রেস বিজ্ঞপ্তি:পদ আপ-গ্রেডেশনের মাধ্যমে বিদ্যমান বেতন বৈষম্য নিরসনের দাবি জানিয়েছেন বাংলাদেশ হেলথ এসিসট্যান্ট এসোসিয়েশনের নেতৃবৃন্দ।

শুক্রবার ১১ মার্চ একযোগে দেশের ৬৪টি জেলায় কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে লক্ষ্মীপুর সদর হাসপাতাল কনফারেন্স কক্ষে সংবাদ সম্মেলনে এ দাবি জানান তারা। এ সময় লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন এসোসিয়েশনের লক্ষ্মীপুর জেলা সাধারণ সম্পাদক মোঃ রফিকুল ইসলাম।

লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, দেশের বিভিন্ন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রায় ২১ হাজার স্বাস্থ্য সহকারী কাজ করে যাচ্ছেন। শিশু ও মাতৃ মৃত্যু হ্রাস, যক্ষা, ধনুষ্টংকার, ডায়রিয়া, ম্যালেরিয়া নিয়ন্ত্রণ, সংক্রামক ও অসংক্রামক ব্যাধি নিয়ন্ত্রণ, অন্ধত্ব দূরীকরণে স্বাস্থ্য সহকারীরা তৃণমূল পর্যায়ে সফল ও দায়িত্বশীল ভূমিকা পালন করে যাচ্ছেন। তাদের কারণেই ইপিআই কার্যক্রমে শুধু দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ায় ১২টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশ চ্যাম্পিয়ান হয়নি, সারা বিশ্বে রোল মডেল হয়েছে। কমিউনিটি ক্লিনিক চালুতে সরকারি নির্দেশে স্থান নির্বাচন, স্থানীয় জনগণ হতে বিনামূল্যে জমিদানে উদ্বৃদ্ধকরণ, নির্মাণ তদারকি সহ স্বাস্থ্য সহকারী নিষ্ঠার সাথে দায়িত্ব পালন করে বর্তমান সরকারের সফল ও সার্থক উদ্যোগ কমিউনিটি ক্লিনিককে গ্রামীণ জনগণের দোর গোড়ায় সহজলভ্য সেবা একটি জনপ্রিয় মডেল কর্মসূচীতে পরিণত করেছেন।
প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক এমডিজি, সাউথ সাউথ পুরষ্কার প্রাপ্তি, গ্যাভি কর্তৃক শ্রেষ্ঠ টিকাদানকারী দেশের স্বীকৃতি অর্জন, দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার টিকাদানে শ্রেষ্ঠত্ব এবং সম্প্রতি পোলিও মুক্ত বাংলাদেশ গঠনে জাইকা কর্তৃক প্রেসিডেন্ট এ্যাওয়ার্ড প্রাপ্তিতে স্বাস্থ্য সহকারীদের কাজের আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি বলে সর্বজন স্বীকৃত।

সংবাদ সম্মেলনে তারা বলেন, দীর্ঘদিন থেকে স্বাস্থ্য সহকারীরা টেকনিক্যাল পদমর্যাদার দাবী করে আসলেও সরকার তা বাস্তবায়ন না করায় পদমর্যাদা সহ চরম বেতন বৈষম্যের শিকার হচ্ছেন তারা। ১৯৭৭ সালের জাতীয় বেতন স্কেল অনুসারে এইচ.এস.সি পাশ স্বাস্থ্য সহকারীদের ১৬ তম গ্রেডে মূল বেতন ছিল ৩০০ টাকা। কৃষি বিভাগের এসএসসি পাস ব্লক সুপারভাইজার যারা ১৯৭৭ সালের জাতীয় বেতন স্কেলে ১৯তম গ্রেডে মূল বেতন পেতেন ২৪০ টাকা। ১৯৮৫ সালের ৫ই আগস্ট এক সরকারী আদেশে তাদের বেতন স্কেল আপগ্রেডেশনের মাধ্যমে ১৪তম গ্রেডে উত্তীর্ণ করা হয়।
২০০১ সালের ২৩শে এপ্রিল তাদেরকে ১১তম গ্রেডে আপগ্রেডেশন করা হয় এবং টেকনিক্যাল মর্যাদা প্রদান করা হয়। ২০০৫ সালের ২৩শে এপ্রিল এক সরকারী আদেশে পদবী পরিবর্তন করে উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা করা হয়। প্রাণী সম্পদ বিভাগের ভেটেনারী ফিল্ড এসিস্ট্যান্টরা ১৯৭৭ সালের জাতীয় বেতন স্কেলে ১৯তম গ্রেডে মূল বেতন পেতেন ২৪০ টাকা। ব্লক সুপারভাইজারদের সাথে ১৯৮৫ সালে সরকারী আদেশে গ্রেড আপগ্রেডেশনের মাধ্যমে ১৪তম গ্রেড প্রদান করা হয়।
২০১১ সালে ৩রা মার্চ সরকারী আদেশের মাধ্যমে ১১তম গ্রেডে উত্তীর্ণ করা হয় এবং টেকনিক্যাল মর্যাদা প্রদান করা হয়। ২০১৪ সালের ৯ই মার্চ প্রাথমিক বিদ্যালয়ে এসএসসি পাস সহকারী শিক্ষক যারা ১৭তম গ্রেডে নিয়োগ প্রাপ্ত হন, তাদের ১৪তম গ্রেডে উত্তীর্ণ করা হয়। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের অধীনস্থ প্রকল্পের আওতাধীন এইচএসসি পাস সিএইচসিপিদেরকে ১৪তম গ্রেডে নিয়োগ প্রদান করা হয়েছে।

তারা আরো বলেন, বর্তমান প্রধানমন্ত্রী ১৯৯৮ সালের ৬ ডিসেম্বর স্বাস্থ্য সহকারীদের মহাসমাবেশে পদ-মর্যাদাসহ বেতন বৈষম্য নিরসনের ঘোষণা দিয়েছিলেন। স্বাস্থ্য অধিদপ্তর, অর্থ, জনপ্রশাসন ও স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের প্রতিনিধি সমন্বয়ে গঠিত উচ্চ পর্যায়ের একাধিক কমিটির অনুকূল সিদ্ধান্ত থাকা সত্ত্বেও স্বাস্থ্য সহকারীরা বেতন বৈষম্যের শিকার হচ্ছেন। ইতিপূর্বে বেতন বৈষম্য নিরসন সংক্রান্ত মন্ত্রীসভা কমিটির আহ্বায়কসহ সকল সদস্যবর্গকে পৃথক পৃথক ভাবে আবেদনের মাধ্যমে বিষয়টি বিবেচনার জন্য উপস্থাপন করা হয়েছে।
গত ২২ জানুয়ারী ২০১৬ সারা দেশে বিভাগীয় সমাবেশগুলোতে স্বাস্থ্য বিভাগের উচ্চ পর্যায়ের কর্মকর্তাবৃন্দ, সরকার দলীয় নেতৃবৃন্দ, সংসদ সদস্যগণ, প্রতিমন্ত্রী ও মন্ত্রীগণ উপস্থিত থেকে বেতন বৈষম্য নিরসনের যৌক্তিকতা স্বীকার করেন এবং নিরসনের আশ্বাস প্রদান করেন।

সংবাদ সম্মেলনে তারা অভিযোগ করে বলেন, কৃষি তথা যারা পশু-পাখি, হাঁস মুরগি, গরু-ছাগল সহ গবাদিপশুর চিকিৎসা সেবা করে, তারা ৩০ বৎসর পূর্ব থেকে টেকনিক্যাল মর্যাদা পেয়ে আসছেন। অথচ মানুষের চিকিৎসা সেবা প্রদান করেও আমরা টেকনিক্যাল মর্যাদা পাচ্ছি না। ১৮ বছর পূর্বে বর্তমান প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক ঘোষণার পরও বেতন বৈষম্য ও পদ-মর্যাদার বিষয়টি নিরসন হয়নি। ৩০ বৎসর ধরে বেতন বৈষম্যের শিকার হওয়ার পরও স্বাস্থ্য সহকারীরা কখনো পেশাকে দাবী পূরণের হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করেননি। কিন্তু বর্তমানে আমাদের পিঠ দেয়ালে ঠেকে গেছে।

সংবাদ সম্মেলনে আগামী ৩১শে মার্চের মধ্যে বেতন বৈষম্য নিরসনের সুস্পষ্ট ঘোষণা প্রদান না করা হলে ১ এপ্রিল জাতীয় প্রেস ক্লাবে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে কর্মবিরতি সহ বৃহত্তর কর্মসূচী ঘোষণা করা হবে বলে জানানো হয়।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন সংগঠনের জেলা সভাপতি কামাল হোসেন পাটোয়ারী, সিনিয়র সহ-সভাপতি জামাল হোসেন, শাহাবুদ্দীন, সহ-সভাপতি আনোয়ার হোসেন, খাদিজা বেগম, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এস.এম বদরুদ্দোজা, নিজাম উদ্দিন ভূঁইয়া, সহ-সাধারণ সম্পাদক বিল্লাল হোসেন,  সাংগঠনিক সম্পাদক মনির হোসেন, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক গিয়াস উদ্দিন ফরহাদ, অর্থ সম্পাদক মোঃ ই¯্রাফিল, সহ-অর্থ সম্পাদক ফিরোজ আলম, দপ্তর সম্পাদক আবদুর রহিম, সহ-দপ্তর সম্পাদক ইউসুফ পাটোয়ারী, প্রচার সম্পাদক শরীফুল ইসলাম, সহ-প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আরিফুল ইসলাম, মহিলা সম্পাদক ফরিদা শেখওয়া, সহ-ক্রিড়া সম্পাদক মাহফুজ রাব্বী, সমবায় সম্পাদক ফিরোজ আলম, সাংস্কৃতিক ও বিনোদন সম্পাদক আজিজ উল্লা, আপ্যায়ন সম্পাদক আবু ছায়েদ, ইসমাইল হোসেন, শারমিন আক্তারসহ প্রমুখ।

আর্কাইভ