মঙ্গলবার, ১৬ জানুয়ারী ২০১৮রেজি:/স্মারক - ০৫.৪২.৫১০০.০১৪.৫৫.০৩৭.১২-৫৬২
Menu

আগামী জাতীয় নির্বাচন প্রসঙ্গ

আগামী জাতীয় নির্বাচন প্রসঙ্গ

শুক্রবার, ৪ মার্চ ২০১৬খ্রি: সময়: ০১:০০ পিএম

উপ-সম্পাদকীয় : তলে তলে জাসদ। তলে তলে সংলাপ হচ্ছে, কথা হচ্ছে, নির্বাচনের চরিত্র নিয়ে। এখন সরকারি দল ও বাংলাদেশের বৃহত দল বি এন পি র'র মধ্যে চলছে গোপন বৈঠক , আগামির জাতীয় নির্বাচন নিয়ে। বি এন পি'র দাবী জাতি সংঘের অধীনে একটি সর্বজন গ্রহনযোগ্য একটি নির্বাচন সম্পন্ন করা।

এখন পানি গলানো হচ্ছে। পানি গলানো হচ্ছে বলতে বুঝাচ্ছি এটাই যে, আমরা যারা শীত প্রধান দেশে থাকি তাদের একটা অভিজ্ঞতার কথা বলি। অভিজ্ঞতা হলো শীত কালে গাড়ীর উপর যখন বরফ পডে তখন সে বরফ উঠানো কঠিন। সেই বরফ উঠানোর জন্য তখন গরম পানির পাইপে পানি দিলে বরফ গুলো এমন ভাবে গলে যায়। বর্তমান সরকারের কঠিন অবস্থা ও মনে হয় এমনটি । কারন যারা ২০৪১ সাল পর্যন্ত থাকবেন তারা গরম পানি দেয়া বরফের মত গলে পরিস্কার হয়ে গেছে।

কিছুদিন আগে লিখেছিলাম রাশীয়ার মুতে এখন আর ফেনা হয় না। রাশিয়ার মুতে যদি ফেনা হতো তাহলে রাশিয়াকে রেখে ভারত আমেরিকার সাথে গাঁট বাঁধতো না । আসলে সরকার অস্র কিনে একটা বিরাট এলায়েন্স করে মনে করেছিলো দীর্ঘদিন ক্ষমতায় থাকবে। কিন্তু এটা সম্ভব নয়। রাশিয়ার এখন অর্থনীতি আগের সে পর্যায়ে নেই। তার পর ভারতের উপর নির্ভরশীল আওয়ামী লীগ মনে করেছিলো বন্দু ভারত তার চিরকালের বন্দু থাকবে , কিন্তু বাস্তবতা ভিন্ন। নরেন্দ্র বাবু গরু খায়না তাই হিসাব কষেছেন ভিন্নভাবে। প্রনব বাবুর হিসাব ছিলো এক রকম আর ভারতের তিল তিল করে বেডে উঠা নরেন্দ্র মোদির রাজনীতি অন্যরকম। নরেন্দ্রমোদি চায় রাজনৈতিক প্রতিষ্ঠা। যে কারনে প্রতিবেশি দেশগুলির সাথে বর্তমান ভারত সরকার চায় প্রতিবেশি মুলক আচরন। বিশ্বায়নের যুগে প্রত্যেক রাষ্ট্র অন্য রাষ্ট্রের সাথে গডে তুলতে চায় সৌহার্দ ও সম্প্রীতিমুলক মনোভাব। ভারতের মনোবৃত্তিও এখন তাই।

ভারত চায়না অন্যের সাথে দ্বন্দে লিপ্ত হয়ে তাঁদের ভাবমূর্তি নষ্ট করতে। অর্থ নৈতিক ভিত শক্ত করার এই কৌশল ইউরোপ , আমেরিকা সহ পৃথিবীর সকল দেশ জাতীর নিকট গ্রহনযোগ্য। সুতরাং ভারতের মনোভাব বাংলাদেশের ব্যাপারে অত্যন্ত পরিস্কার। ভারত বাংলাদেশ সরকারের উচ্ছ ক্ষমতাধর ব্যক্তিকে জানিয়ে দিয়েছে গ্রহন যোগ্য নির্বাচন দিয়ে শক্তি শালী রাষ্ট্র পরিচালনার পরামর্শ দিয়েছেন। এই জন্য আমাদের সরকার প্রধানের আরাম আয়েশ হারাম হয়ে গেছে। ক্ষমতার উৎস জনগন ,জনগনকে বাদ রাষ্ট্রের মালিক হবেন তা অলিক কল্পনা মাত্র। এ কথাটি শুধুমাত্র আজকে যারা ক্ষমতায় আছেন শুধুমাত্র তাঁদের ক্ষেত্রে নয় সকলের জন্য,যারা আগামিতে ক্ষমতায় আসবেন তাঁদের ক্ষেত্রেও। ২০৪১ সাল পর্যন্ত যারা ক্ষমতায় থাকবেন বলে দম্বোক্তি করছেন সময়ের ব্যবধানে সে দম্ব ভেংগে খাঁন খাঁন হয়ে যাবে।

সমাজতন্ত্র যখন বিলিন হয়ে গেল পৃথিবীর মানুষ যখন গনতন্ত্রের জোয়ারে নতুন সভ্যতার পথ খুঁজছে নিন্ম মধ্যম আয়ের দেশ বাংলাদেশ ভোট চুরির মাধ্যমে একটি অসভ্য জাতী হিসাবে কলংকের কালী মেখে দিলেন জাতীর কপালে। এর দাঁত ভার আওয়ামিলীগ চুরির গায়ে যতটা দায়ি , বি এন পিও কিন্তু কম দায়ি নয়। কেননা বি এন পি ২০০৭ সালে সিইসি আজিজকে নিয়ে গুঁয়ার্তমি না করতেন তা হলে বাংলাদেশের রাজনীতির প্রেক্ষাপট হতো ভিন্ন। সে দিন আজকের আওয়ামীলিগের মত বি এন পি 'র ও ক্ষমতা কুক্ষিগত করার প্রচন্ড স্বৈরতান্ত্রিক মনোভাবের পরিচয় দিয়েছেন।
আওয়ামীলীগ আর বিএন পি কে এর গন্ডি থেকে বেরিয়ে আসতে হবে। দেশ জনগনের , খালেদা জিয়া আর শেখ হাসিনার নয়। আমরা খালেদা জিয়া বা শেখ হাসিনার প্রজা নয় । আমরা রাষ্ট্রের প্রজা , অথএব আমরা যা'কে রাষ্ট্র পরিচালনা করার জন্য ক্ষমতা দিবো তিনি রাষ্ট্র পরিচালনা করবেন। জনগন যা'কে মেন্ডেট দিবেন তিনি বা সেই দল সে ভাবে দেশ চালাবেন। সংখ্যা গরিষ্ট জনগনের মতামতের ভিত্তিতে সরকার গঠিত হবে আর সংখ্যা লগিষ্ট বিরোধী দলের ভূমিকা গ্রহন করে জনগনের দাবী গুলো সংসদে তুলে ধরবেন।
গনন্ত্রের সরকারি দল নির্দেশক আর বিরোধীদল পথ প্রদর্শক। গনন্ত্রকে শিশুর মত লালন করতে হয় দেশের রাজনীতি বিদরা। যত্ন না করলে শিশুর যে ভাবে মৃত্যু হয় সেই ভাবে গনতনত্রেরও মৃত্যু হয়।

যারা মাটি ও মানুষের জন্য কাজ করবেন বা যারা করেছেন আগামিতে জনগন আশা করি সে সকল লোকদের মুল্যায়ন করবেন। ভোট আসলে যে সকল লোক জনগনের নিকট ছুটাছুটী করে সে সকল লেজের থেকে দূরে থাকতে হবে।
ভোটের সময় চা, বিডি .টাকা পয়সা দিয়ে যারা ভোট দেন, আর বসন্তের কোকিলের মত। ভোটের সময় টাকা পয়সা নিয়ে আসেন তাদের কে প্রত্যাখ্যান করে সঠিক পাত্রে ভোট দেওয়া গনতনত্রের সঠিক বাস্তবায়ন। আগামিতে যে নির্বাচন হবে সেখানে গনতনত্রকে প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দেওয়ার জন্য যে বিষয় গুলোকে বিবেচনা করতে হবে :

১। শক্তিশালী নির্বাচন কমিশন,
২।নির্বাচন কমিশন গঠিত হবে সকল রাজনৈতিক দলের মতামতের ভিত্তিতে.
৩।নির্বাচন কালীন সরকার হবে জাতীয় সরকার,
৪।সামরিক বাহিনীদিয়ে সন্ত্রাসী কার্য কলাপ বন্দ করে লেভেল প্লেইন করতে হবে,
৫।নির্বাচনে অর্থের ব্যবহার বন্দ করতে হবে,
৬।ভোটার দেরকে স্বচেতন করতে হবে (যদিও সময় স্বল্প)।

দল গুলো যা করতে হবে:
সরকারি দল বিরোধী দলকে মতামত প্রকাশের সুযোগ দিতে হবে। বিরোধী দলকে কথায় কথায় ওয়াক আউটের রেওয়াজ বন্দ করতে হবে।
ক্ষমতার পালা বদল সুনির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে হতে হবে। নির্বাচনের মেয়াদ শেষ হবার সাথে ক্ষমতা ক্ষমতা জাতীয় সরকারের নিকট হস্তান্তর হবে। এবং নির্বাচন কমিশন জাতীয় সরকারের সহযোগীতা নিয়ে নির্বাচন করবেন। জাতীয় সরকারে যারা থাকবেন তাঁরা পরবর্তি পাঁচ বছর যে সরকার গঠিত হবে সেই সরকারের কোন পদ অলংকৃত করতে পারবেন না।

আমাদেরকে বিএনপি আওয়ামীলীগ সহ অন্যান্য ছোট খাট দল গলো আশ্বস্ত করতে হবে:
১/ বিচারক নিয়োগ দলিয় ভিত্তিতে হতে পারবে না।
২।দুর্নীতি দমন কমিশন দলীয় ভিত্তিতে নিয়োগ দেওয়া যাবে না।
৩। নির্বাচন কমিশন দলীয় ভিত্তিতে দেওয়া যাবে না
৪।পার্লামেন্টের স্পীকার সব দলের মতা মত নিতে হবে ।
৫। বাংলা বিশ্ব বিদ্যালয় গুলোকে লাল দল, নীল দল মুক্ত করতে হবে,।

এই সকল বিষয় গুলো আওয়মীলীগ, বি এন পি ও অন্যান্য দল মিলে তাদের নির্বাচনী ইস্তেহারে রেখে সম্মিলিত ভাবে বাস্তবায়িত করতে হবে। যদি তা করা যায় দেশ এগিয়ে যাবে একটি সুষ্ঠু ধারার রাজনীতি ফিরে আসবে। দেশ চেয়ে আছে বাংলাদেশর এই দুটি রাজনৈতিক দলের ভবিষ্যত কর্ম পদ্ধতি নির্ধারনের উপর। সবাইকে ধন্যবাদ, সকলের মংগল কামনা করি।

লেখক-ইফতেখার হোসেন ফরহাদ
প্রাক্তন অধ্যক্ষ,রামগতি আহম্মদিয়া কলেজ,
নির্বাহী ইউসি বি এল ও এন সি সি এল ব্যাংক বাংলাদেশ,
সোসাল ওপলিটিক্যাল এক্টিভিষ্ট ইউ এস এ, প্রেসিডেন্ট পেন বাংলা এল এল সি(আর্থিক প্রতিষ্ঠান)
উপদেষ্ঠা: সাম্প্রতিক স্বদেশ
ইউ এস এ
(মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়)

আর্কাইভ