মঙ্গলবার, ১৬ জানুয়ারী ২০১৮রেজি:/স্মারক - ০৫.৪২.৫১০০.০১৪.৫৫.০৩৭.১২-৫৬২
Menu

নোয়াখালীতে ড্রিম পার্ক নির্মাণের প্রতিবাদে মানববন্ধন

 নোয়াখালীতে ড্রিম পার্ক নির্মাণের প্রতিবাদে মানববন্ধন

বৃহস্পতিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০১৬ খ্রি: সময়: ১০:৫৬পিএম
এম.আর রিয়াদ, নোয়াখালী প্রতিনিধি: নোয়াখালী জেলা শহর মাইজদীতে সরকারি উন্মুক্ত স্থানে বাণিজ্যিকভাবেড্রিম পার্ক নির্মাণের পাঁয়তারার প্রতিবাদে মানববন্ধন-সমাবেশ হয়েছে।

বৃহস্পতিবার দুপুরে জজকোর্ট-প্রেসক্লাব সড়কে শিশু কিশোর মেলা নোয়াখালী জেলা শাখা এ কর্মসূচির আয়োজন করেন। কর্মসূচিতে স্কুল-কলেজ, রাজনৈতিক সংগঠন, সুশীল সমাজের নাগরিক এবং বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার মানুষ অংশ গ্রহণ করেন।

এ সময় শিশু কিশোর মেলা নোয়াখালী জেলা শাখার সংগঠক বিবি মরিয়ম পলির পরিচালনায় অনুষ্ঠিত সমাবেশে বক্তব্য রাখেন সমাজতান্ত্রিক ক্ষেতমজুর ও কৃষক ফ্রন্ট নোয়াখালী জেলা শাখার সভাপতি তারকেশ্বর দেবনাথ নান্টু, সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট নোয়াখালী জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক কাজী জহির উদ্দিন, শিশু কিশোর মেলার মেডিকেল স্কুলের শিক্ষার্থী মুনতাহার প্রীতি, নোয়াখালী সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় শিক্ষার্থী নাঈমা আক্তার, মাইজদী টেকনিক্যাল স্কুল এন্ড কলেজের শিক্ষার্থী মহিদুল ইসলাম দাউদ এবং অরুন চন্দ্র উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী সপু চন্দ্র শীল প্রমুখ।

বক্তারা বলেন, নোয়াখালী জেলা শহরের একমাত্র উন্মুক্ত স্থান জেলা প্রশাসকের দীঘির চার পাশ। শহরের শিশু-কিশোর, শ্রমজীবী মানুষ ও পৌর নাগরিকদের চিত্ত বিনোদনের জন্য উন্মুক্ত স্থান হিসেবে পৌরসভায় এর জনপ্রিয়তা রয়েছে। তাছাড়া দীঘির দক্ষিণটা পূর্ব থেকে পশ্চিম পর্যন্ত এ জায়গায় রয়েছে জেলা কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার, শহীদ মুক্তিযোদ্ধা স্মৃতিফলক, কচি-কাঁচার মেলা। এ চত্ত্বরে প্রতি বছর বিজয় মেলা, বই মেলা ও বৈশাখী মেলার আয়োজন করা হয়। অথচ শহরের একমাত্র উন্মুক্ত স্থানটি তথা মানুষের এ অবসর বিনোদনের প্রয়োজনকে পুঁজি করে ব্যবসায়ী গোষ্ঠীর চক্রান্ত চলছে। নোয়াখালী পৌরসভা অবৈধভাবে এ স্থানটিকে বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানের কাছে লীজ দিয়েছে। উন্মুক্ত এ স্থানটিকে ব্যক্তি বা কোম্পানী মালিকানায় নিয়ে জনগণের মুক্ত প্রবেশাধিকার হরণ করা হবে মানবিক অধিকার ও রাষ্ট্রীয় আইন বিরোধী। মানুষের সুস্থ বিনোদনের ব্যবস্থা না থকলে শহরে অপসংস্কৃতি অশ্লীলতা ও মাদক-জুয়ার প্রসার ঘটবে।

বক্তারা এ উন্মুক্ত স্থানটিকে বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে বাণিজ্যিক পার্ক করার উদ্যোগের তীব্র প্রতিবাদ জানিয়ে অবিলম্বে রাষ্ট্রীয় অর্থায়নে শিশু কিশোর ও জনগণের জন্য উন্মূক্ত পার্ক নির্মাণ করা এবং জেলার ইতিহাস ঐতিহ্যকে সংরক্ষণ করার দাবী করেন।

আর্কাইভ